উদীচী হত্যাযজ্ঞের বার্ষিকী পালিত

আপডেট: 10:19:36 06/03/2018



img

স্টাফ রিপোর্টার : ঘাতকদের বিচারের দাবির মধ্যদিয়ে নানা কর্মসূচিতে মঙ্গলবার যশোরে উদীচী হত্যাযজ্ঞের ১৯তম বার্ষিকী পালিত হয়েছে।
সংস্কৃতিকর্মীরা এ দিনটিকে ‘সংস্কৃতি রক্ষা দিবস’ হিসেবে পালন করে ঘাতকদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি করেন। রক্তদান কর্মসূচি, স্মারকস্তম্ভে শ্রদ্ধাঞ্জলি, আলোচনা সভা ও মঙ্গলপ্রদীপ প্রজ্বলন করা হয়।
দিনের শুরুতে উদীচী যশোর কার্যালয়ে সংগঠনের পতাকা ও কালো পতাকা উত্তোলন করা হয়। বিকেলে শহরের টাউন হল ময়দানে শহীদদের স্মরণে নির্মিত স্মারকস্তম্ভে বিভিন্ন সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠনের পক্ষ থেকে শ্রদ্ধাঞ্জলি অর্পণ করা হয়।
শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে টাউন হল ময়দানের রওশন আলী মঞ্চে শহীদদের স্মরণে আলোচনা সভা হয়। এতে সভাপতিত্ব করেন উদীচী যশোরের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মাহবুবুর রহমান মজনু।
অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন উদীচীর উপদেষ্টা অ্যাডভোকেট কাজী আব্দুস শহীদ লাল, যশোর ইনস্টিটিউটের সাধারণ সম্পাদক শেখ রবিউল আলম, সংবাদপত্র পরিষদের সভাপতি একরাম-উদ-দ্দৌলা, শিল্পকলা একাডেমির সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট মাহমুদ হাসান বুলু, আইনজীবী সমিতির সাধারণ সম্পাদক শাহানুর আলম শাহীন, সঙ্গীত সংগঠন সমন্বয় পরিষদের আহ্বায়ক আবু সালেহ তোতা, সিপিবি সভাপতি অ্যাাডভোকেট আবুল হোসেন, মৎস্যচাষি সমিতির উপদেষ্টা আলহাজ সাইফুজ্জামান মজু, সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি তরিকুল ইসলাম তারু, রবীন্দ্রসঙ্গীত সম্মিলন পরিষদের সভাপতি শ্রাবণী সুর, উদীচীর সাধারণ সম্পাদক সাজ্জাদ হোসেন বিপ্লব প্রমুখ।
১৯৯৯ সালের ৬ মার্চ গভীর রাতে যশোর টাউন হল মাঠে উদীচীর দ্বাদশ জাতীয় সম্মেলনের শেষ দিনের সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে পর পর দুটি শক্তিশালী বোমা বিস্ফোরণে নিহত হন দশজন। আহত হন আরো শতাধিক।