কর্মচাঞ্চল্য ফেরেনি বেনাপোল বন্দরে

আপডেট: 07:32:54 04/09/2017



img
img

স্টাফ রিপোর্টার : পবিত্র ঈদুল আজহার টানা তিনদিন ছুটি শেষে সোমবার অফিস খুললেও দেশের বৃহত্তম স্থলবন্দর বেনাপোলে এখনো ফিরে আসেনি কর্মচাঞ্চল্য।
আজ সকালে বেনাপোল-পেট্রাপোল বন্দর দিয়ে ভারত-বাংলাদেশের মধ্যে আমদানি-রপ্তানি আবার চালু হয়েছে। আগামী সপ্তাহের আগে বন্দরের কর্মচাঞ্চল্য ফিরে আসবে না বলে ধারণা করছেন বন্দর ব্যবহারকারীরা।
কাস্টম ও বন্দর সূত্রে জানা গেছে, ঈদুল আজহা উপলক্ষে বেনাপোল-পেট্রাপোল স্থলবন্দর দিয়ে ভারত-বাংলাদেশের মধ্যে বৃহস্পতিবার (৩১ আগস্ট) বিকেল থেকে সোমবার (৪ সেপ্টেম্বর) সকাল পর্যন্ত আমদানি-রপ্তানি বাণিজ্য বন্ধ ছিল। সোমবার ছুটি শেষে অফিস খুললেও লোকজনের উপস্থিতি নেই বললেই চলে। অনেক কর্মকর্তার চেয়ার খালি দেখা গেছে। আমদানি-রপ্তানি চললেও রপ্তানিমুখী কয়েকটি পণ্য ছাড়া বন্দর থেকে তেমন কোনো পণ্য খালাস হয়নি। আগামী সপ্তাহয় বন্দরের কর্মচাঞ্চল্য পুরোদমে ফিরে আসবে বলে আশা করছেন সংশ্লিষ্টরা।
বেনাপোল কাস্টমস ক্লিয়ারিং অ্যান্ড ফরোয়ার্ডিং এজেন্টস অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি মফিজুর রহমান সজন জানান, সোমবার বন্দর ও কাস্টম হাউস খোলা থাকলেও ঈদের ছুটির পর প্রথম কর্মদিবস হওয়ায় কর্মকর্তা-কর্মচারীরা শুভেচ্ছাবিনিমিয়ে সময় কাটিয়েছেন। শুল্ক বিভাগসহ অন্যান্য দপ্তরের কাজকর্ম চলছে ধীর গতিতে। টানা ছুটির কারণে দুই দেশের বন্দর এলাকায় পণ্যবোঝাই শত শত ট্রাক আটকা পড়েছে। আমদানিকারকরা সময় মতো পণ্য ডেলিভারি না নেওয়ায় আমদানি-রপ্তানি স্বাভাবিক হতে আরো কয়েকদিন সময় লাগবে বলে তিনি জানান।
বেনাপোল আমদানি-রপ্তানিকারক সমিতির সহসভাপতি আমিনুল হক জানান, ঢাকাসহ দেশের অধিকাংশ আমদানিকারকরা ঈদের আমেজ কাটিয়ে উঠে এখনো তাদের ব্যবসা প্রতিষ্ঠান খুলতে পারেননি। অনেক আমদানিকারক পরিবার-পরিজনের সঙ্গে ঈদ উদযাপন করতে চলে যান গ্রামের বাড়িতে। দোকানের লোকজন ও লেবাবরাও ছুটিতে গেছেন। তারাও আসেন অনেক পরে। ঈদের আমেজ কাটার পর তারা আমদানিকৃত পণ্য চালান খালাস করে থাকেন। ঈদের তিন দিন আগে ও পরে ট্রাক ও কাভার্ড ভ্যান চলাচল বন্ধ রাখার সরকারি সিদ্ধান্তের কারণে বুধবারের আগে পণ্যবোঝাই ট্রাক হাইওয়েতে চলাচল করতে পারবে না। এই জন্য বন্দর থেকে পণ্য খালাসের সম্ভাবনাও কম বলে জানান তিনি।
বেনাপোল চেকপোস্ট কাস্টম কার্গো শাখার রাজস্ব কর্মকর্তা আবুল কালাম আজাদ জানান, সোমবার সকাল থেকে পেট্রাপোল ও বেনাপোল বন্দর দিয়ে পুরোদমে আমদানি-রপ্তানি শুরু হয়েছে। বেলা ৪টা পর্যন্ত ৭৮ ট্রাক পণ্য ভারত থেকে বেনাপোল বন্দরে এসেছে। আর ভারতে গেছে মাত্র পণ্যবাহী ১২টি ট্রাক।
বেনাপোল স্থলবন্দর কর্তৃপক্ষের উপ-পরিচালক (প্রশাসন) রেজাউল করিম বলেন, ‘ঈদের ছুটি ও ঈদের আগে পরে পণ্যবাহী ট্রাক চলাচলে বিধিনিষেধ থাকায় বন্দরে আমদানি পণ্যের চাপে পণ্যজটের আশঙ্কা রয়েছে। যারা পণ্য খালাস করতে আসবে তাদের পণ্য দ্রুত খালাসের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে বন্দর হ্যান্ডলিং শ্রমিকদের।’
বেনাপোল কাস্টম হাউজের কমিশনার মো. শওকাত হোসেন জানান, ছুটির ঘাটতি পুষিয়ে নিতে দ্রুত পণ্য খালাস করার জন্য শুল্ক ভবনের সকল বিভাগের কর্মকর্তাকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। এছাড়া ২৪ ঘণ্টা কাজও চলবে বলে তিনি জানান।

আরও পড়ুন