কালীগঞ্জে বাক প্রতিবন্ধী কিশোরীকে গণধর্ষণ

আপডেট: 03:55:31 10/02/2019



img

কালীগঞ্জ (ঝিনাইদহ) প্রতিনিধি : কালীগঞ্জে ১৫ বছর বয়সী এক বাক প্রতিবন্ধী গণধর্ষণের শিকার হয়েছে বলে অভিযোগ করা হচ্ছে।
এই ঘটনায় কিশোরীর মা শনিবার রাতে কালীগঞ্জ থানায় একটি মামলা করেছেন। এর আগে দুপুরে ধর্ষণের অভিযুক্ত তিন যুবককে আটক করে পুলিশ।
আটক যুবকরা হলো বালিয়াডাঙ্গা গ্রামের আব্দুর রহমানের ছেলে সেলিম পাটোয়ারী, বানুড়িয়া গ্রামের হায়দার আলীর ছেলে সাঈদ হোসেন এবং নুর আলীর ছেলে রাকিব হোসেন।
খবর পেয়ে শনিবার বিকেলে ঝিনাইদহ পুলিশ সুপার মো. হাসানুজ্জামান ঘটনাস্থলে আসেন। পুলিশ সুপার ভিকটিমের পরিবার ও প্রতিবেশীদের সঙ্গে কথা বলেন। এসময় সেখানে উপস্থিত ছিলেন কালীগঞ্জ থানার ওসি ইউনুচ আলী, ইউপি চেয়ারম্যান নজরুল ইসলাম ছানা ও স্থানীয় ইউপি সদস্যরা।
গত ৬ ফেব্রæয়ারি রাতে কালীগঞ্জ উপজেলার ত্রিলোচনপুর ইউনিয়নের একটি গ্রামে এ ঘটনাটি ঘটে বলে জানানো হয়েছে। ধর্ষিতা কিশোরী ওই গ্রামেরই মেয়ে। তাকে ঝিনাইদহ সদর হাসপাতালে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে।
ভিকটিমের প্রতিবেশী শফি উদ্দীনের স্ত্রী সবুরা বেগম ও ভোলানাথের স্ত্রী কল্পনারানির ভাষ্য, ‘আমরা ওই মেয়েটির ঘরে টেলিভিশন দেখছিলাম। এসময় মেয়েটি ঘরের বারান্দায় বসে খাবার খাচ্ছিল। কিছুক্ষণ পরে তাকে বাড়িতে না পেয়ে খোঁজাখুঁজি শুরু করা হয়। ঘণ্টাখানেক পরে বাড়ির পাশের একটি বাগানে তাকে পোশাকবিহীন অবস্থায় পড়ে থাকতে দেখা যায়। এরপর তাকে উদ্ধার করে বাড়িতে আনা হয়।’
ধর্ষিতার বাবা বলছেন, ‘ঘটনার পর থেকে ধর্ষণকারীরা আমাকে এবং আমার পরিবারকে হুমকি-ধামকি দিয়ে আসছিল ঘটনাটি কাউকে না বলার জন্য। শুক্রবার রাতে সাঈদ নামের একটি ছেলে আমাকে ফোন করে। সে কাউকে কিছু বললে আমাকে মেরে ফেলার হুমকি দেয়। এরপর শনিবার আমি স্থানীয় জনপ্রতিনিধির মাধ্যমে কালীগঞ্জ পুলিশকে বিষয়টি জানাই।’
কালীগঞ্জ থানার ওসি ইউনুচ আলী জানান, এঘটনায় ভিকটিমের মা বাদী হয়ে তিনজনকে আসামি করে একটি মামলা করেছেন; যাদের আগেই আটক করা হয়েছে।

আরও পড়ুন