কেশবপুরে সন্দেহভাজন গরু চোর পিটুনিতে নিহত

আপডেট: 06:07:02 12/02/2019



img

কেশবপুর (যশোর) প্রতিনিধি : কেশবপুরে আনিন নাঈম (২৪) নামে এক যুবক ‘গণপিটুনিতে’ নিহত হয়েছেন। বলা হচ্ছে, গরু চুরি করতে গিয়ে তিনি গণপিটুনির শিকার হন।
পুলিশ লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য যশোর জেনারেল হাসপাতাল মর্গে পাঠিয়েছে। এঘটনায় থানায় হত্যা মামলা হয়েছে।
নিহত আনিন নাঈম উপজেলার নতুন মূলগ্রামের মশিয়ার রহমান সরদারের ছেলে।
পুলিশ ও স্থানীয়রা বলছেন, উপজেলার ভান্ডারখোলা এলাকায় প্রতি রাতেই বিভিন্ন বাড়িতে গরু চুরি হচ্ছিল। গরু চুরি ঠেকাতে এলাকাবাসী প্রতি রাতেই পাহারা দিয়ে আসছিলেন। সোমবার রাতে হাড়িয়াঘোপ গ্রামের আবদুস সোবহানের বাড়িতে গরু চুরি করতে ঢুকলে এলাকাবাসী টের পেয়ে ধাওয়া দেন। পালিয়ে যাওয়ার সময় ওই যুবক ভান্ডারখোলা গ্রামে রাস্তার পাশে একটি নলকূপে ধাক্কা খেয়ে পড়ে যান। এলাকাবাসীরা সেখানে তাকে পিটিয়ে মেরে ফেলেন।
এব্যাপারে কেশবপুর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. শাহিন জানান, গণপিটুনিতে আনিন নাঈম নামের এক চোর নিহত হয়েছেন। কেশবপুরসহ পাশের সাতক্ষীরা জেলার কলারোয়াসহ বিভিন্ন থানায় তার বিরুদ্ধে একাধিক চুরির মামলা রয়েছে।
মঙ্গলবার সকালে থানা পুলিশ খবর পেয়ে উপজেলার ভান্ডারখোলা গ্রামের তিন রাস্তার মোড়ে জনৈক হাবিবুর রহমানের দোকানের সামনে রাস্তার ওপর পড়ে থাকা লাশ উদ্ধার করে। লাশের সুরতহাল প্রতিবেদন তৈরি করে ময়নাতদন্তের জন্য যশোর জেনারেল হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে।
এ ঘটনায় নিহতের বাবা মশিয়ার রহমান সরদার বাদী হয়ে অজ্ঞাতনামা ৫০ থেকে ৬০ জনের নামে মামলা করেছে।

আরও পড়ুন