কয়রায় ছাত্রলীগের সংঘর্ষে নয়জন আহত

আপডেট: 07:33:05 10/01/2018



img

খুলনা অফিস : বঙ্গবন্ধুর স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবসের আলোচনা সভা চলাকালে আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে খুলনার কয়রা উপজেলায় ছাত্রলীগের দুই গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষ হয়েছে। এতে উপজেলা শ্রমিকলীগ সভাপতিসহ নয়জন আহত হয়েছেন। আহতদের স্থানীয় স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে।
এর আগে বুধবার দুপুরে উপজেলা আওয়ামী লীগের কার্যালয়ের পেছনে এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।
দলীয় সূত্র জানায়, কয়রা উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অ্যাডভোকেট মহসিন রেজা ও সদর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান এসএম শফিকুল ইসলামের  নেতৃত্বাধীন স্থানীয় আওয়ামী লীগের বিবদমান দুই গ্রুপ একত্রিত হয়ে উপজেলা কার্যালয়ে আলোচনা সভার আয়োজন করে। সকাল দশটার দিকে দলীয় কার্যালয়ে আলোচনা সভা শুরু হয়। সভা চলাকালে সেখানে উপস্থিত হন খুলনা জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক কামরুজ্জামান জামাল। এর কিছু সময় পর সাবেক ও বর্তমান ছাত্রলীগের দুই গ্রুপের নেতাকর্মীদের মধ্যে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া শুরু হয়। একপর্যায়ে এক গ্রুপ অপর গ্রুপের ওপর ধারালো অস্ত্র নিয়ে চড়াও হয়। এতে ছাত্রলীগের সাবেক নেতা তরিকুল ইসলাম, শ্রমিকলীগ সভাপতি আব্দুল হালিম গাজী, সোহরাব ঢালী, মিজানুর রহমান কোহিনুর, রবিউল ইসলাম, মোজাফফর হোসেন, মাওলা গাজী, জাকারিয়া ও রায়হান আহত হন। আহতদের স্থানীয় উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা  হয়েছে।
উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মহসিন রেজা বলেন, ‘শান্তিপূর্ণভাবে আলোচনা চলাকালে সেখানে কামরুজ্জামান জামালের উপস্থিতির পরপরই সংঘর্ষ শুরু হয়। এতে নয় নেতাকর্মী আহত হন।’
জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক কামরুজ্জামান জামাল বলেন, ‘আমি সেখানে যাওয়ার পর ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা কে আগে বসবে তা নিয়ে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে।’
কয়রা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এনামুল হক বলেন, ‘শান্তিপূর্ণভাবে সভা চলাকালে সেখানে ছাত্রলীগের সাবেক ও বর্তমান নেতৃবৃন্দের কথাকাটাকাটির এক পর্যায়ে সংঘর্ষ শুরু হয়। এতে সাতজন আহত হন। সংঘর্ষের পরপরই পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। আহতদের স্থানীয় স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে।’

আরও পড়ুন