খুলনায় নিহত ব্যক্তির কাটা পা উদ্ধার

আপডেট: 04:06:19 11/03/2019



img

খুলনা অফিস : খুলনায় আট খণ্ড করে হাবিবুর রহমান সবুজ (২৬) নামে ইটভাটা ঠিকাদারকে হত্যায় জড়িত সন্দেহে দুই যুবককে আটক করা হয়েছে। সোমবার পৃথক স্থানে অভিযান চালিয়ে র‌্যাব তাদের আটক করে। পরে তাদের স্বীকারোক্তি অনুযায়ী নগরীর ফারাজিপাড়ার একটি বাড়ির কক্ষ থেকে নিহত হাবিবের শরীরের টুকরোর অবশিষ্টাংশ কাটা পা উদ্ধার করা হয়।
র‌্যাব-৬ সূত্র জানায়, গোপন খবরের ভিত্তিতে সোমবার ভোর সাড়ে পাঁচটার দিকে নগরীর ফুলবাড়িগেট এলাকা থেকে আসাদুজ্জামান নামে এক যুবককে আটক করা হয়। এরপর তার স্বীকারোক্তি অনুযায়ী নগরীর ৪৩, ফারাজিপাড়া লেনের চারতলা বাড়ি ‘হাসনাত মঞ্জিল’-এর নিচতলায় তার ভাড়া বাসা থেকে হাবিবের মরদেহের অবশিষ্টাংশ কাটা পা উদ্ধার করা হয়। একই সময় বটিয়াঘাটার নিজ বাসা থেকে অনুপম নামে আরেক যুবককে আটক করা হয়।
র‌্যাব-৬ এর স্পেশাল কোম্পানি কমান্ডার মেজর শামীম সরকার বলেন, ভোরে কুয়েট এর সামনে থেকে আসাদুজ্জামানকে আটক করার পর তার তথ্য মতে তারই বাসা থেকে সাড়ে ছয়টার দিকে মরদেহের অবশিষ্টাংশ উদ্ধার করা হয়। একই সময় বটিয়াঘাটার নিজ বাসা থেকে অনুপমকে আটক করা হয়।
হত্যাকাণ্ডের কারণ হিসেবে সংশ্লিষ্ট সূত্র জানিয়েছে, হত্যাকারীদের সঙ্গে নিহত হাবিবের খুলনা জেলা কারাগারে পরিচয় হয়। সেই সূত্র ধরে হাবিবের কাছে থাকা আর্থিক লেনদেনের একটি স্ট্যাম্প ও অ্যাপাচি মোটরসাইকেল হাতিয়ে নেওয়ার উদ্দেশ্যে তাকে হত্যা করে লাশ টুকরো টুকরো করে গুম করার পরিকল্পনা ছিল হত্যাকারীদের।
৭ মার্চ সকাল সাড়ে দশটার দিকে মহানগরীর শের-এ বাংলা রোডে পলিথিন মোড়ানো মরদেহের একটি অংশ উদ্ধার করে পুলিশ। পরে দুপুরে ফারাজিপাড়া রোডে ড্রেনের পাশ থেকে দুটি ব্যাগে থাকা মাথা ও দুই হাত উদ্ধার করা হয়। ময়নাতদন্তের পর ৮ মার্চ বিকেলে মরদেহের সাতটি খণ্ডিত অংশ পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়। এর মধ্যে লাশের মাথা, দুই হাতের চারটি খণ্ড ও পায়ের ওপরের অংশ থেকে গলা পর্যন্ত দুটি অংশ ছিল।
এ ঘটনায় ৯ মার্চ নিহতের ভগ্নিপতি গোলাম মোস্তফা বাদী হয়ে খুলনা সদর থানায় অজ্ঞাত ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে হত্যা মামলা করেন।

আরও পড়ুন