খুলনা-কলকাতা রুটে বন্ধ বাস চালুর দাবি

আপডেট: 03:32:33 12/03/2019



img

খুলনা অফিস : খুলনা-কলকাতা বন্ধ বাস সার্ভিস চালু, খুলনা-কলকাতা ট্রেন সার্ভিস সপ্তাহের তিন দিন করা ও নগরীতে বন্ধ বিএরটিসির দোতলা বাস চালুর দাবিতে মানববন্ধন ও সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে।
মঙ্গলবার (১২ মার্চ) দুপুরে মহানগরীর পিকচার প্যালেস মোড়ে এ মানববন্ধন হয়।
নিরাপদ সড়ক চাই (নিসচা), খুলনা জেলা শাখা এ মানববন্ধন ও সমাবেশের আয়োজন করে।
নিসচার জেলা সভাপতি মো. হাছিবুর রহমান হাছিবের সভাপতিত্বে এতে প্রধান অতিথি ছিলেন নিসচার জেলা উপদেষ্টা ও সদর থানা আওয়ামী লীগ সভাপতি অ্যাডভোকেট সাইফুল ইসলাম।
নিসচার জেলা সাধারণ সম্পাদক এসএম ইকবাল হোসেন বিপ্লবের পরিচালনায় মানববন্ধনে বক্তৃতা করেন কৃষকলীগের কেন্দ্রীয় নেতা শ্যামল সিংহরায়, বৃহত্তর খুলনা উন্নয়ন সংগ্রাম সমন্বয় কমিটির যুগ্ম মহাসচিব মিজানুর রহমান বাবু, এনসিআরবি খুলনা জেলার সদস্য সচিব এম এ কাশেম, মুক্তিযোদ্ধা শেখ মো. ইলিয়াস, বাগেরহাট জেলা ডেপুটি কমান্ডার মুক্তিযোদ্ধা শেখ আব্দুল জলিল, ওয়ার্কার্স পার্টির নেতা শেখ মফিদুল ইসলাম, বৃহত্তর খুলনা উন্নয়ন আন্দোলনের চেয়ারম্যান শেখ মো. নাসির উদ্দিন, বাংলাদেশ পরিবেশ আইনবিদ সমিতির (বেলা) বিভাগীয় সমন্বয়কারী মাহফুজুর রহমান মুকুল, লবণচরা টেকনিক্যাল ইনস্টিটিউটের চেয়ারম্যান মোসলেহ উদ্দিন তুহিন, ইউনি ভিশনের নির্বাহী ব্যবস্থাপক হেলাল হোসেন, সামাজিক সংগঠন গতির সহ-সভাপতি আনোয়ারা পারভিন আক্তার পরী, নিসচার জেলা সাংগঠনিক সম্পাদক এসএমএ রহিম, দপ্তর সম্পাদক এম মোস্তফা কামাল, সদস্য রাকিবউদ্দিন ফারাজী, ফিরোজ আলী, এম সাইফুল ইসলাম, ইশরাত আরা হীরা, মাহমুদা আক্তার লিজা, আনোয়ারা আক্তার পারভিন প্রমুখ।
তারা বলেন, দীর্ঘ পাঁচ মাস ধরে বন্ধ খুলনা-কলকাতা রুটের বাস চলাচল। সর্বশেষ খুলনা থেকে সরাসরি কলকাতা সৌহার্দ্য যাত্রা করে ২০১৮ সালের ৪ অক্টোবর। ফলে দুই বাংলার যাত্রীরা আন্তর্জাতিক বাস সার্ভিস থেকে বঞ্চিত হওয়ার পাশাপাশি ভোগান্তির মধ্যে পড়ছেন।
তারা বলেন, ২০১৭ সালের ২২ মে গ্রিনলাইন পরিবহনের বাস দিয়ে কমলাপুর বিআরটিসি আন্তর্জাতিক বাসটারমিনাল থেকে ঢাকা-খুলনা-কলকাতা রুটে যাত্রা শুরু হয়। এদিন কলকাতা থেকে ছেড়ে আসা সৌহার্দ্য শ্যামলী পরিবহনের একটি বাস যাত্রী নিয়ে খুলনা হয়ে ঢাকায় যায়। এর আগে ৮ এপ্রিল নয়া দিল্লি থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে খুলনা-কলকাতা রুটে বাস ও ট্রেন চলাচল উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও নরেন্দ্র মোদী। এছাড়া ২০১৮ সালের ২ ফেব্রুয়ারি ঢাকা-মাওয়া-গোপালগঞ্জ-খুলনা হয়ে কলকাতাগামী শ্যামলী এনআর ট্রাভেলস চলাচল শুরু হয়। এ রুটে পরিবহনটি চালু হওয়ায় যাত্রীরা স্বল্প সময়ে কলকাতায় যাতায়াত করার সুযোগ পেয়েছিলেন। কিন্তু একই বছরের এপ্রিল মাসে বন্ধ হয়ে যায় এই রুটের বাসও।
সমাবেশে বক্তারা বলেন, খুলনা-কলকাতা রুটে বাস চালুর মধ্য দিয়ে খুলনাসহ দক্ষিণাঞ্চলের মানুষের দীর্ঘদিনের স্বপ্ন পূরণ হয়েছিল। আর এর মাধ্যমে খুলনার যাত্রীদের কলকাতা গিয়ে কাজ সেরে আবার দ্রæত ঘরে ফিরে আসার সুযোগ তৈরি হয়েছিল। নিরাপদে ও স্বাচ্ছন্দে রোগী, পর্যটক, ব্যবসায়ী কলকাতায় পৌঁছে যেতেন। এর মাধ্যমে দুই দেশের বাণিজ্যে আরো বেশি সম্প্রসারণ ঘটছিল। কিন্তু কোনো নির্ধারিত কারণ ছাড়াই ২০১৮ সালের ৪ অক্টোবর এ রুটে বাস চলাচল বন্ধ করে দেয় ডাব্লিউবিটিসি-এর অধীনে পরিচালনাকারী সৌহার্দ্য শ্যামলী পরিবহন কর্তৃপক্ষ। রুট পারমিটের চুক্তির মেয়াদ থাকতেও দুই দেশের প্রধানমন্ত্রীর উদ্বোধন করা এ পরিবহন বন্ধ রাখছে বাস মালিক পক্ষ। যা খুলনাবাসীর জন্য দুঃখজনক।
এছাড়া বক্তারা খুলনা-কলকাতা ট্রেন সার্ভিস সপ্তাহের এক দিনের পরিবর্তে তিন দিন করা ও খুলনা মহানগরীতে বন্ধ বিআরটিসির দোতলা বাস চালুর দাবি জানান।

আরও পড়ুন