খুলনা সিটিতে বিএনপির প্রার্থী মঞ্জু

আপডেট: 02:14:25 10/04/2018



img

জিয়াউস সাদাত, খুলনা: সকল জল্পনা কল্পনার অবসান ঘটিয়ে খুলনা সিটি করপোরেশন নির্বাচনে (কেসিসি) বিএনপির মেয়র প্রার্থী হিসেবে দলের নগর সভাপতি ও বিভাগীয় সাংগঠনিক সম্পাদক নজরুল ইসলাম মঞ্জুকে মনোনয়ন দেওয়া হয়েছে।
সোমবার রাতে রাজধানীর গুলশানে চেয়ারপারসনের রাজনৈতিক কার্যালয়ে দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর এ ঘোষণা দেন। মঞ্জু খুলনা-২ আসনের সাবেক সংসদ সদস্য। এবারই তিনি প্রথমবারের মতো কেসিসির মেয়র প্রার্থী হিসেবে নির্বাচন করতে যাচ্ছেন।
নগর বিএনপির কোষাধ্যক্ষ আরিফুর রহমান মিঠু বলেন, দলের অভ্যন্তরীণ কোন্দল ভুলে গিয়ে সবাই একত্রিত হয়ে খুলনায় ধানের শীষ প্রতীক জয়লাভের জন্য কাঁধে কাঁধ দিয়ে কাজ করবে।
মহানগর সাংগঠনিক সম্পাদক ফখরুল আলম বলেন, খুলনা বিএনপির ঘাঁটি। এখানে আবার বিএনপির প্রার্থী মেয়র হবে। দলের মনোনীত ধানের শীষ প্রতীকের প্রার্থীকে জয়ী করতে বিএনপির নেতা-কর্মীরা ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করবে।  
এর আগে গত রোববার রাতে খুলনায় আওয়ামী লীগের মেয়র প্রার্থী হিসেবে সাবেক মেয়র, মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি ও বাগেরহাট-২ আসনের সংসদ সদস্য তালুকদার আব্দুল খালেককে মনোনয়ন দেওয়া হয়।
২০১৩ সালের কেসিসি নির্বাচনে বর্তমান মেয়র মনির কাছে প্রায় ৬১ হাজার ভোটে পরাজিত হয়েছিলেন আওয়ামী লীগের প্রার্থী তালুকদার আব্দুল খালেক। এবারও স্থানীয়ভাবে মনিকেই প্রার্থী হিসেবে মনোনীত করে বিএনপি। কিন্তু মনির চেয়ে আরো জনপ্রিয় প্রার্থী মঞ্জুকে ধানের শীষের প্রার্থী করার সিদ্ধান্ত নেয় দলটির হাইকমান্ড।

এনটিভি জানিয়েছে, খুলনা ও গাজীপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচনে মেয়র পদে মেয়র পদপ্রার্থীর নাম ঘোষণা করেছে বিএনপি। খুলনা সিটি করপোরেশনে বিএনপির মনোনয়ন পেয়েছেন দলটির কেন্দ্রীয় কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক নজরুল ইসলাম মঞ্জু। গাজীপুর সিটি করপোরেশনে মেয়র পদে মনোনয়ন পেয়েছেন দলটির জাতীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য  হাসান উদ্দিন সরকার। তারা দুজনই এক সময় সংসদ সদস্য ছিলেন।
সোমবার রাত সাড়ে নয়টার দিকে রাজধানীর গুলশানে বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার রাজনৈতিক কার্যালয়ে দুই প্রার্থীর নাম ঘোষণা করেন দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। 
এর আগে রোববার বিকেল পাঁচটা ২৫ মিনিট থেকে গুলশানের রাজনৈতিক কার্যালয়ে খুলনা সিটি করপোরেশন নির্বাচনে বিএনপির মনোনয়ন প্রত্যাশীদের সাক্ষাৎকার গ্রহণ করেন দলের জ্যেষ্ঠ নেতারা। সাক্ষাৎকার চলে সন্ধ্যা সাড়ে ছয়টা পর্যন্ত। ৪০ মিনিট বিরতি দিয়ে পরে সন্ধ্যা সাতটা দশ মিনিট থেকে রাত সাড়ে আটটা পর্যন্ত চলে গাজীপুর সিটির মনোনয়ন প্রত্যাশীদের সাক্ষাৎকার।
সাক্ষাৎকার শেষে বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক নজরুল ইসলাম মঞ্জু বলেছিলেন, আমি এবারের নির্বাচনে মনোনয়ন তুলতে চাইনি। কিন্তু সমর্থকরা তুলেছেন। কারণ আমি সংসদ সদস্য পদে নির্বাচনে আগ্রহী। তাই মেয়র পদে নির্বাচন করতে চাই না। এ কারণে আমি মনোনয়ন বোর্ডে বর্তমান মেয়র মহানগর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক মনিরুজ্জামান মনিকে সমর্থন দিয়ে এসেছি।
জানতে চাইলে খুলনা সিটি করপোরেশনের বর্তমান মেয়র মহানগর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক মনিরুজ্জামান মনি বলেছিলেন, আমাদের সাক্ষাৎকার গ্রহণ শেষ হয়েছে। তবে কাউকে নির্বাচনের প্রস্তুতি নিতে বলা হয়নি। সাক্ষাৎকার শেষে পরে সিদ্ধান্ত জানানো হবে বলা হয়েছে দলের পক্ষ থেকে। তারপরও আমাদের মনোনয়ন বোর্ড যাকেই মনোনয়ন দেবে আমরা অতীতের মতো তাকে নিয়েই ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করব। অবাধ, সুষ্ঠু নির্বাচন হলে আমরা আবার এই সিটিতে বিজয়ী হবো।

আরও পড়ুন