চুরি হওয়া শিশু উদ্ধার হয়নি, মহিলালীগ নেত্রী রিমান্ডে

আপডেট: 03:44:10 12/07/2017



img
img

স্টাফ রিপোর্টার : যশোরে শিশু চুরির ঘটনায় আটক মহিলালীগ নেত্রী মমতাজ পারভীনকে তিনদিনের রিমান্ডে নিয়েছে পুলিশ।
মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা কোতয়ালী থানার এসআই দেবাশীষ যশোর সদর আমলি আদালতে পাঁচদিনের রিমান্ডের আবেদন করলে আদালত তিনদিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন।
এদিকে, তিনদিন অতিবাহিত হলেও যশোর সদর হাসপাতালের প্রসূতি ওয়ার্ড থেকে চুরি হওয়া নবজাতকটিকে উদ্ধার করতে পারেনি আইনশৃংখলা রক্ষাকারী বাহিনী। তবে কাজ করছে তিনটি তদন্ত কমিটি।
ভুক্তভোগীদের অভিযোগ, চুরি হওয়া শিশুটিকে উদ্ধারে আইনশৃংখলা রক্ষাকারী বাহিনীর ভূমিকা যথেষ্ট না।
গত শনিবার রাতে যশোর জেনারেল হাসপাতালে একটি ছেলে শিশুর জন্ম দেন সদর উপজেলার রূপদিয়া গ্রামের গৃহবধূ রুপালি। এটিই ছিল তার প্রথম সন্তান। এরপর রোববার বেলা ১১টার অজ্ঞাত পরিচয় এক নারী শিশুটিকে তার কাছ থেকে নিয়ে কৌশলে পালিয়ে যায়। তিনদিন অতিবাহিত হলেও শিশুটিকে উদ্ধার করা সম্ভব না হওয়ায় শোকে পাথর হয়ে গেছেন এই মা।
এদিকে, সন্দেহভাজন হিসেবে আটক মহিলা লীগ নেত্রী মমতাজকে তিনদিনের রিমান্ডে নিয়েছে পুলিশ। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন কোতয়ালী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আজমল হুদা।
শিশুটি চুরি হওয়ার দিনই হাসপাতাল চত্বর থেকে মমতাজকে আটক করে পুলিশে দেন জনতা। তার আচরণ সন্দেহজনক মনে হয়েছিল উপস্থিত জনতার কাছে।
তবে মমতাজের দাবি, শিশু চুরির সঙ্গে তিনি কোনোভাবেই জড়িত নন। তিনি মহিলালীগ নেত্রী ও একটি এনজিওর নির্বাহী পরিচালক। তার স্বামীর চিকিৎসার জন্য তিনি হাসপাতালে গেছিলেন। জনতা তাকে খামোখাই সন্দেহ করেছেন।

আরও পড়ুন