চুয়াডাঙ্গায় পাসপোর্ট পেতে বিড়ম্বনা

আপডেট: 02:08:34 17/05/2018



img

চুয়াডাঙ্গা প্রতিনিধি : চুয়াডাঙ্গা আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিস থেকে নতুন পাসপোর্ট পেতে গ্রাহকদের বিড়ম্বনার শিকার হতে হচ্ছে।  ঢাকা পাসপোর্ট অফিসের প্রিন্টার মেশিন অকেজো হয়ে যাওয়ায় এই পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে।
ঢাকা থেকে অফিসপ্রধানকে আশ্বাস দেওয়া হচ্ছে এ সমস্যা কেটে যাবে। কিন্তু কবে নাগাদ নতুন পাসপোর্ট পেতে গ্রাহকদের সমস্যা হবে না তা নিশ্চিত করে কেউই বলতে পারছেন না।
চুয়াডাঙ্গা আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিসে গিয়ে জানা যায়, সর্বোচ্চ ৪৪৮ দিন ও সর্বনিম্ন ৭৭ দিন পর্যন্ত নতুন পাসপোর্ট পেতে গ্রাহকদের অপেক্ষায় রাখা হয়েছে। দামুড়হুদা উপজেলার দর্শনা কলেজপাড়ার আব্দুল মান্নানের ছেলে আমিনুর রহমান এবার হজে যাবেন। সেকারণে তিনি নতুন পাসপোর্ট নেওয়ার জন্য নিয়ম অনুযায়ী সকল চাহিদা পূরণ করেন। তার পাসপোর্ট দেওয়ার দিন ছিল গত ৫ এপ্রিল। কিন্তু ১৬ মে পর্যন্ত তিনি পাসপোর্ট হাতে পাননি। একারণে তার হজে যাওয়া অনিশ্চিত হয়ে গেছে।
একই উপজেলা শহরের দশমীপাড়ার মিঠু খানের মেয়ে আফলাতুন ও শাহীনুল আলমের ছেলে মাহিন চিকিৎসার জন্য ভারতে যাবেন। কিন্তু ৪৭ দিনেও তারা তাদের নতুন পাসপোর্ট হাতে পাননি।
প্রত্যেকদিন দূরদুরান্ত থেকে অফিসে এসে পাসপোর্ট না পেয়ে ফিরে যাচ্ছে মানুষ। কোনো কোনো পাসপোর্টপ্রার্থী ধৈর্যচ্যুত হয়ে অফিসে কর্মরতদের গালিগালাজ পর্যন্ত করছেন। অল্প অল্প নতুন পাসপোর্ট প্রিন্ট হয়ে আসার কারণে কিছু ব্যক্তি পাসপোর্ট পাচ্ছেন। সুযোগ বুঝে দালালরাও কামিয়ে নিচ্ছে দু’পয়সা।
চুয়াডাঙ্গা আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিসের সহকারী পরিচালক রুবাইয়াত ফেরদৌস গত ১ এপ্রিল এই জেলায় যোগ দিয়েই এ সমস্যার সম্মুখিন হন। তিনি বলেন, চুয়াডাঙ্গা থেকে প্রতিদিন গড়ে ৬০টি পাসপোর্ট ঢাকায় প্রিন্ট করতে পাঠানো হয়। ঢাকায় পাসপোর্ট প্রিন্ট করার জন্য তিনটি মেশিন রয়েছে। এর মধ্যে দুটি অকেজো হয়ে পড়ায় সমস্যা দেখা দিয়েছে। চুয়াডাঙ্গা জেলার প্রায় দুই হাজার নতুন পাসপোর্ট প্রিন্টের অপেক্ষায় রয়েছে। তিনটি মেশিন থেকে দিনে ৩০ হাজার পাসপোর্ট প্রিন্ট করার হতো। এখন তা এক-তৃতীয়াংশে নেমে এসেছে।
তিনি বলেন, গত সপ্তায় মাত্র দশটি পাসপোর্ট প্রিন্ট হয়ে এসেছে। বুধবার (১৬ মে) ১০০টি নতুন পাসপোর্ট এসেছে। কিন্তু বর্তমান সংকট সমাধানে চুয়াডাঙ্গায় প্রতি সপ্তায় ২৫০টি পাসপোর্ট প্রিন্ট হয়ে আসতে হবে।

আরও পড়ুন