ঝুঁকিপূর্ণ ভবনে পাঠদান

আপডেট: 07:21:27 12/07/2018



img

ঝিনাইদহ প্রতিনিধি : তিন বছর আগে ঝিনাইদহ এলজিইডি থেকে চিঠি দিয়ে জানানো হয় প্রাইমারি স্কুলটি ঝুঁকিপূর্ণ। তবু কার্যত পরিত্যক্ত সেই ভবনেই চলছে পাঠদান।
ফলে শিক্ষাথীদের শরীরে খসে পড়ছে পলেস্তরা। খোয়া ও বালিতে নোনা লেগে বেড়িয়ে পড়েছে রড। তারপরও কর্তৃপক্ষ নির্বিকার।
ঝিনাইদহ সদর উপজেলার পূর্ব রাঙ্গিয়ারপোতা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের চিত্র এটি। যে কোনো সময় বড় ধরনের দুর্ঘটনার আশংকা করছেন শিক্ষক-শিক্ষার্থী ও অভিভাবকরা।
সরেজমিনে দেখা গেছে, পুরনো ভবনটির ছাদের বেশির ভাগ স্থান থেকে খসে পড়েছে সিমেন্ট। বৃষ্টি হলেই শিক্ষার্থীদের স্কুল ছেড়ে বাড়ি চলে যেতে হয়। বৃষ্টির পানি পড়ে বই খাতা ভিজে যায়।
স্কুলের সহকারী শিক্ষক আব্দুল ওয়াদুদ বলেন, ‘আমরা খুব কষ্টের মধ্যে আছি। কখন যে দুর্ঘটনা ঘটে, আল্লাহ পাকই জানেন। ভবন ঝুঁকিপূর্ণ হওয়ায় অভিভাবকরা সন্তানদের স্কুলে পাঠানো বন্ধ করে দিচ্ছেন।’
তিনি বলেন, ‘কর্তৃপক্ষ অনেক আগেই ভবনটি পরিত্যক্ত দেখালেও এটি ভাঙাও হয়নি, নতুন ভবনও করা হয়নি। ফলে বাধ্য হয়ে ঝুঁকিপূর্ণ ভবনে ক্লাস নিতে হচ্ছে। এখন বর্ষার সময় ছাদ চুইয়ে পানি ঝরে ভিজে যায় শিক্ষার্থীদের বই-খাতা। তারপরও আমরা নিরুপায়।’
এক নম্বর সাধুহাটি ইউনিয়ন চেয়ারম্যান কাজী নাজির উদ্দীন স্কুল ভবনটির করুণ দশার কথা জানেন। তিনি বলেন, ‘বিষয়টি দুঃখজনক। দীর্ঘদিন ধরে ছাত্র-ছাত্রীরা ঝুঁকির মধ্যে ক্লাশ করবে, এটা কোনোভাবেই মেনে নেওয়া যায় না।’
তিনি পুরনো ভবনটি ভেঙে দ্রুত নতুন বিল্ডিং নির্মাণের দাবি জানান।
দৃষ্টি আকর্ষণ করা হলে জেলা শিক্ষা অফিসার শেখ আক্তারুজ্জামান বলেন, ‘বিষয়টি আমার জানা নেই। আমি খোঁজ-খবর নিয়ে ব্যবস্থা গ্রহণ করবো।’

আরও পড়ুন