দুর্ধর্ষ জদ্দিনকে ধরলো বিজিবি

আপডেট: 08:06:11 13/09/2017



img

স্টাফ রিপোর্টার : যশোরের শার্শার শীর্ষ সন্ত্রাসী ও কুখ্যাত মাদক ব্যবসায়ী এমাজ উদ্দিন ওরফে জদ্দিনকে বুধবার ভোরে আটক করেছে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি)।
আটক এমাজ উদ্দিন ওরফে জদ্দিন উপজেলার কন্যাদহ গ্রামের মৃত এলাহি বকসের ছেলে ও উলাশী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আওয়ামী লীগ নেতা আয়নাল হকের ছোট ভাই। আয়নালের বিরুদ্ধেও খুন-খারাবিসহ নানা অভিযোগ রয়েছে।
অভিযানকালে বিজিবি সদস্যরা বাড়িতে অভিযান চালিয়ে মাদকদ্রব্য, অস্ত্রের ম্যাগজিন ও ভারতীয় রুপি উদ্ধার করেন।
যশোর ৪৯ বিজিবি ব্যাটালিয়নের সহকারী পরিচালক আবুল মুনসুর আহম্মেদ জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে বুধবার ভোরে শার্শা উপজেলার কন্যাদহ বাজার-সংলগ্ন দোতলা বাড়িতে অভিযান চালিয়ে মাদক ব্যবসায়ী এমাজ উদ্দিন ওরফে জদ্দিনকে আটক করা হয়। পরে জিজ্ঞাসাবাদে তার হেফাজতে থাকা ৯০ বোতল ফেনসিডিল, একটি ম্যাগজিন, ২০০ গ্রাম গাঁজা, দশ গ্রাম হেরোইন, ৫৬ ভারতীয় রুপি, ৪০ হাজার ৩০০ বাংলাদেশি টাকা ও একটি মোটরসাইকেল উদ্ধার করা হয়।
বিজিবি জানায়, এমাজ উদ্দিন ওরফে জদ্দিন এলাকায় ‘দুর্ধর্ষ সন্ত্রাসী ও মাদক সম্রাট’ হিসেবে পরিচিত। দীর্ঘদিন যাবত তিনি বড় বড় মাদকের চালান রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে পাচার করে আসছেন। তার নামে বেনাপোল, শার্শা, ঝিকরগাছা, যশোর সদরসহ দেশের বিভিন্ন থানায় মাদক ও অস্ত্র আইনে অনেক মামলা রয়েছে।
জদ্দিন উলাশী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আওয়ামী লীগ নেতা আয়নাল হকের ছোট ভাই হওয়ায় দীর্ঘদিন ধরে নির্বিঘ্নে অবৈধ কারবার চালিয়ে যাচ্ছিলেন। চেয়ারম্যান আয়নাল এক সময় শার্শার সীমান্তবর্তী এলাকার মূর্তিমান ত্রাস ছিলেন। দীর্ঘদিন ভারতে পালিয়ে থাকার পর দেশে ফিরে আওয়ামী লীগের প্রশ্রয়ে এলাকায় অবস্থান নেন আয়নাল। গত নির্বাচনে তিনি আওয়ামী লীগের টিকিটে ইউপি চেয়ারম্যানও হন। সে সময় প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীর কর্মী-সমর্থকদের মারপিট, ঘরবাড়িতে হামলা এবং একচেটিয়া ছাপ্পা ভোটের মাধ্যমে তিনি ফল অনুকূলে নেন বলে অভিযোগ রয়েছে।
এদিকে, একই দিন শার্শা থানার এসআই পলাশ ও এসআই বাবুল পৃথক অভিযান চালিয়ে এক কেজি হেরোইন, একটি শুটারগান ও দশ বোতল ফেনসিডিলসহ শার্শা উপজেলার দক্ষিণ বুরুজবাগান গ্রামের খলিলুর রহমান, ঝিকরগাছা কুন্দিপুর গ্রামের মোহাম্মদ আলী ও শার্শার রামপুরের কবিরুল ইসলাম কবুকে আটক করেছে। শার্শা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এম মশিউর রহমান এ তথ্য নিশ্চিত করে জানান, এসব ঘটনায় থানায় পৃথক মামলা হয়েছে।

আরও পড়ুন