দড়িবাঁধা স্কুলযাত্রা

আপডেট: 12:51:44 02/08/2018



img

জি এম আব্বাসউদ্দীন, দেবহাটা (সাতক্ষীরা) : বাসচাপায় শিক্ষার্থী নিহত হওয়ার জেরে হাজারো ছাত্রছাত্রী নেমে এসেছে রাজধানীর রাজপথে। তারা এইভাবে শিক্ষার্থী হত্যার বিচার চায়। আর যেন কোনো শিক্ষার্থীকে দুর্ঘটনার নামে হত্যা করা না হয়।
এমনই সময় সাতক্ষীরার দেবহাটায় দেখা গেল এক অভাবনীয় চিত্র। স্থানীয়ভাবে নির্মিত বিপজ্জনক যন্ত্রযান শিশু শিক্ষার্থীদের নিয়ে ছুটে চলেছে রাজপথে। শিশুরা যেন রাস্তায় ছিটকে না পড়ে তার জন্য রীতিমতো বেঁধে রাখা হয়েছে তাদের।
নসিমন, করিমন, ভটভটিসহ বিচিত্র নামে দক্ষিণ-পশ্চিমের রাস্তায় চলছে হাজার হাজার যানবাহন। গরু-ছাগল থেকে শুরু করে হরেক পণ্য বহন করা হয় এতে। গ্রামের মানুষের যাতায়াতেরও অন্যতম প্রধান মাধ্যম হয়ে উঠেছে এই যন্ত্রযানগুলো।
এই অঞ্চলের শহর-শহরতলীর সড়ক-মহাসড়কে প্রায়ই চোখে পড়ে পশুবাহী নসিমন, করিমন বা ভটভটি ধরনের যন্ত্রযান। পশুগুলোকে বেঁধে রাখা হয় যন্ত্রযানের ওপর। কিন্তু মানুষকে বেঁধে যন্ত্রযান ছুটে চলার দৃশ্য বিরলই বটে।
বুধবার দুপুর একটার দিকে দেবহাটা উপজেলার পারুলিয়া গরুরহাট এলাকায় দেখা যায় মডার্ন প্রিক্যাডেট নামে একটি স্কুলের ভ্যানে করে একসঙ্গে অনেকগুলো শিশুকে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে। ভ্যানের মধ্যে তিল পরিমাণ জায়গা ফাঁকা নেই। এমনকি ইনজিনভ্যানের সামনে চালকের দুই পাশে ডানপাশে দুটি শিশু ও বাম পাশে দুটি শিশুকে বেঁধে রাখা হয়েছে গরু-ছাগলের মতো।
স্থানীয়রা বলছেন, এইভাবে ইনজিনভ্যানে চেপে দীর্ঘদিন ধরে কোমলমতি শিশুরা যাতায়াত করছে স্কুলে; যা ভীষণ বিপজ্জনক। বিষয়টি দেখার যেন কেউ নেই।
চালকের কাছে জিজ্ঞেস করলে তিনি বলেন, ‘অভিভাবকরা স্কুলে রেখে এসেছে বাচ্চাদের। তা আমি কী করবো! তাদেরকেতো বাড়ি পৌঁছানো লাগবে!’
তবে মডার্ন প্রিক্যাডেট স্কুলের পরিচালক অধ্যক্ষ জামশেদ আলম দাবি করেন, শিশুদের এভাবে নিয়ে যাওয়া হয়, তা তিনি জানেন না। তবে এ ব্যাপারে আগামী শনিবারের মধ্যে ব্যবস্থা নেবেন বলে সাংবাদিকদেরকে জানান তিনি।
স্থানীয়রা জানান, প্রিক্যাডেটটি প্রায় ১০-১২ বছর আগে প্রতিষ্ঠিত। প্রতিষ্ঠাকালে এর নাম ছিল ‘ক্যাপ্টেন শাহজাহান কিন্ডারগার্টেন’। সম্প্রতি প্রতিষ্ঠানটির নাম বদল করে ‘মডার্ন প্রিক্যাডেট’ রাখা হয়েছে।