নতুন আয়লানের নাম মোহাম্মদ শোহায়েত

আপডেট: 12:44:55 05/01/2017



img

সুবর্ণভূমি ডেস্ক : দুটি ছবি প্রায় একই রকম। একটি ছবি আয়লান কুর্দির। অন্যটি মোহাম্মদ শোহায়েত নামে ১৬ মাস বয়সী শিশুর।
আয়লান কুর্দির ছবি বিশ্ব মানবতাকে কাঁদিয়েছে। শোহায়েতের ছবিও মানুষকে কাঁদিয়েছে। প্রথমে সামাজিক মিডিয়ায় তার ছবি ছড়িয়ে পড়ে। তাতে দাবি করা হয়, এ ছবিটি রোহিঙ্গা শিশুর। কিন্তু নিশ্চয়তা পাওয়া যাচ্ছিল না নির্ভরযোগ্য সূত্র থেকে। এখন এ শিশুটির পরিচয় পাওয়া গেছে। সে সত্যি এক রোহিঙ্গা মুসলিম পরিবারের সন্তান। তার বাবার নাম জাফর আলম। তিনি নিশ্চিত করেছেন শোহায়েত তার সন্তান। বর্ণনা করেছেন কীভানে নাফ নদী পাড়ি দেওয়ার সময় শোহায়েত ও তার স্ত্রীর সলিল সমাধি হয়েছে।
এ নিয়ে বিস্তারিত এক প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে অনলাইন সিএনএন। এতে মোহাম্মদ শোহায়েত সম্পর্কে বর্ণনা দেওয়া হয়েছে এভাবে- মাটিতে মুখ গুঁজে পড়ে আছে একটি ছোট্ট শিশু। তাকে পানির স্রোত ভাসিয়ে নিয়ে এসেছে তীরে। তার নাম মোহাম্মদ শোহায়েত। বয়স ১৬ মাস। মিয়ানমারের রাখাইন প্রদেশে সহিংসতা থেকে তার পরিবার পালিয়ে বাংলাদেশে আসার চেষ্টা করেছিল। কিন্তু তার মা, এক চাচা ও তিন বছর বয়সী আরেক ভাইসহ নদীতে ডুবে মারা গেছে।
জাফর আলম বলেছেন, 'যখন আমি শোহায়েতের ওভাবে তীরে পড়ে থাকা ছবি দেখতে পাই আমার মনে হয়েছিল এর চেয়ে আমার মরে যাওয়া ভালো। এই দুনিয়ায় আমার আর বেঁচে থাকার কোনো অর্থ নেই।'
২০১৫ সালের সেপ্টেম্বরে তুরস্কের সমুদ্রসৈকত থেকে উদ্ধার করা হয় সিরিয়ার শরণার্থী শিশু আয়লান কুর্দির মৃতদেহ। সেও নিজের দেশের গৃহযুদ্ধ থেকে বাঁচার জন্য পরিবারের সঙ্গে পালানোর চেষ্টা করেছিল। তার ছবির সঙ্গে শোহায়েতের ছবি সমান্তরালে বিবেচনা করা হচ্ছে। আয়লান ও শোহায়েত দু’জনে দেশ ছেড়েছিল যে কারণে তা ভিন্ন হতে পারে। কিন্তু দুটি পরিবার যেভাবে পালাচ্ছিল তা একই রকম।
মিয়ানমারে রোহিঙ্গা মুসলিমদের মনে করা হয় বিশ্বে সবচেয়ে বেশি নির্যাতনের শিকার যেসব সংখ্যালঘু তার অন্যতম। রোহিঙ্গারা রাখাইনে প্রজন্মের পর প্রজন্ম বসবাস করলেও মিয়ানমার সরকার তাদেরকে বাঙালি হিসেবে অভিহিত করে।
জাফর আলম বলেছেন, 'রাখাইনে আমাদের গ্রামে আমাদের ওপরে হেলিকপ্টার থেকে গুলি করা হয়। মিয়ানমারের সেনারাও আমাদের ওপর প্রকাশ্যে গুলি করেছে। এর ফলে আমরা বাড়িঘরে থাকতে পারছিলাম না। আমাদের পালাতে হয়েছে। পালিয়ে জঙ্গলে আশ্রয় নিয়েছি। আমার দাদা-দাদিকে তারা পুড়িয়ে মেরেছে। পুরো গ্রাম জ্বালিয়ে দিয়েছে সেনারা। এখন সেখানে কিছুই নেই। আমাদেরকে জীবন বাঁচাতে গ্রাম থেকে গ্রামে পালিয়ে বেড়াতে হয়েছে।'
জাফর আলম বলেন, 'আমি ছয় দিন ধরে হেঁটেছি। চারদিন পেটে কোনো দানাপানি পড়েনি। ওই ছয় দিন আমি ঘুমাতে পারিনি। এ সময়ে অব্যাহতভাবে আমাদেরকে এক স্থান থেকে আরেক স্থানে পালাতে হয়েছে।'
কিন্তু চলার পথে আলম একপর্যায়ে তার পরিবার থেকে আলাদা হয়ে পড়েন। তিনি নাফ নদী দিয়ে পালিয়ে চলে আসেন বাংলাদেশে। এই নদীতে সাঁতার কেটে তিনি পালানোর চেষ্টা করেন। তাকে দেখে বাংলাদেশের জেলেরা উদ্ধার করে তীরে নিয়ে আসেন। এরপরই তিনি পরিবারের অন্যদের নিরাপদে বাংলাদেশে আনার চেষ্টা করতে থাকেন।
জাফর আলম বলেন, 'আমি এক মাঝির সঙ্গে যোগাযোগ করি। তাকে বলি আমার স্ত্রী ও সন্তানদের নিরাপদে নদী পার করে দিতে। সর্বশেষ ৪ ডিসেম্বর পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে আমার কথা হয়। তারা মিয়ানমার ছাড়তে মরিয়া হয়ে পড়েছিল। সেই ছিল পরিবারের সঙ্গে আমার শেষ কথা।'
''আমি যখন টেলিফোনে স্ত্রীর সঙ্গে কথা বলছিলাম তখন ছোট্ট ছেলের ‘আব্বা আব্বা’ ডাক শুনতে পাচ্ছিলাম। এই ফোনকলের মাত্র কয়েক ঘণ্টা পরই আমার পরিবার পালানোর চেষ্টা করে। মিয়ানমারের নিরাপত্তা রক্ষীরা যখন এটা টের পেয়ে যায় তখন তারা গুলি শুরু করে। সঙ্গে সঙ্গে মাঝি নৌকার সবাইকে গুলির হাত থেকে জীবন বাঁচানোর আহ্বান জানান। নৌকাটিতে ছিল অতিরিক্ত মানুষ। তারা নড়াচড়া শুরু করায় নৌকাটি ডুবে যায়। একদিন পর ৫ ডিসেম্বর আমি জানতে পারি কী ভয়াবহ এক ঘটনা ঘটে গেছে আমার স্ত্রী ও সন্তানদের জীবনে।''
জাফর আলম আরো বলেন, 'কেউ একজন আমাকে ফোন করেন। বলেন, আমার ছেলের মৃতদেহ পাওয়া গেছে। তিনি আমার ছেলের একটি ছবি তুলেছেন মোবাইল ফোনে। তা পাঠিয়ে দিয়েছেন আমাকে। তা দেখে আমি যেন বোবা হয়ে পড়েছিলাম।'
সেই স্মৃতি হাতড়ে জাফর আলম বলেন, 'আমার ছেলের সম্পর্কে কোনো কথা বলা খুবই কঠিন। সে আমার খুবই প্রিয় ছিল। আমাকে ভীষণ ভালোবাসতো। সে সবার আদরের ছিল। গ্রামের সবাই তাকে ভালোবাসতো।'
আলমের এ কাহিনীর মধ্য দিয়ে মিয়ানমারে রোহিঙ্গারা যে নিষ্পেষণের শিকার তা ফুটে উঠেছে। অভিবাসন বিষয়ক সংস্থা ইন্টারন্যাশনাল অর্গানাইজেশন ফর মাইগ্রেশন বলেছে, গত কয়েক সপ্তাহ ও মাসে সীমান্ত পেরিয়েছে প্রায় ৩৪ হাজার রোহিঙ্গা।
এ বিষয়ে জাফর আলম বলেন, 'শুধু নাফ নদী জানে তার বুকে কত রোহিঙ্গার মৃতদেহ।'
বর্তমানে জাফর আলমের ঠাঁই বাংলাদেশের টেকনাফে লেদা শিবিরে। যা ঘটেছে তা পিছনে ফেলে বাঁচার জন্য সংগ্রাম করছেন আলম।
তিনি বলেছেন, 'এখন আমার আর কেউই নেই। দুই ছেলে, স্ত্রী মারা গেছে। সব শেষ হয়ে গেছে। বাংলাদেশে যে শিবিরে আমার ঠাঁই হয়েছে সেখানেও রয়েছে নানা জটিলতা। তবুও অন্তত সহিংসতা থেকে বেরিয়ে একটু শ্বাস নেওয়ার জায়গা তো পেয়েছি! অথচ মিয়ানমারে আমরা সব সময়ই জীবন হারানোর আতঙ্কের মধ্যে থাকতাম।'
জাফর আলমের এসব কথার প্রেক্ষিতে সিএনএন মিয়ানমার সরকারের বক্তব্য চায়। জবাবে মুখপাত্র আই আই সোই বলেছেন, এসবই হলো প্রচারণা ও মিথ্যা কথা। তবে তিনি স্বীকার করেন ১২ নভেম্বর সেনাবাহিনীর হেলিকপ্টার থেকে রোহিঙ্গা গ্রামের ওপর গুলি করা হয়েছিল। এটা ছিল উদ্ধার অভিযান।
উল্লেখ্য, এমন অভিযোগ বরাবরই প্রত্যাখ্যান করছে মিয়ানমার সরকার। সেপ্টেম্বরে জাতিসংঘের সাবেক মহাসচিব কফি আনানকে প্রধান করে সরকার গঠন করেছে রাখাইন কমিশন। এ কমিশনের উদ্দেশ্য ওই অঞ্চলের সমস্যাগুলোর দিকে দৃষ্টি রাখা।
কমিশনের বিষয়ে জাফর আলম বলেছেন, 'এটা হলো ধোঁয়াশা সৃষ্টিকারী কমিশন। সারা বিশ্বকে প্রতারিত করছে তারা। কমিশন যখন রাখাইন পরিদর্শন করছিল তখন গ্রাম থেকে মানুষজন তাড়িয়ে দিচ্ছিল সেনারা। মিয়ানমারে যখন নির্বাচন হলো তাতে বিজয়ী হলেন অং সান সুচি। আমি ভেবেছিলাম তার বিজয় আমাদের উপকারে আসবে। কিন্তু স্বপ্ন আর বাস্তবতা পুরোপুরি আলাদা। সুচি ক্ষমতায় আসার পর কিছুই পাল্টেনি। আমাদের ওপর নির্যাতন চলছেই। সুচি ও সেনারা রাখাইন থেকে রোহিঙ্গাদের নির্মূল করতে চায়।'
সেনারা যে নৃশংসতা চালিয়েছে তা অস্বীকার করেছেন অং সান সুচি।
সূত্র : সিএনএন ও মানবজমিন

আরও পড়ুন