নিজের বিয়ে বন্ধে অধ্যক্ষের শরণাপন্ন ছাত্রী

আপডেট: 05:22:28 15/05/2016



img

সুবর্ণভূমি ডেস্ক : নিজের বিয়ে বন্ধ করতে সহযোগিতা চেয়ে কলেজের অধ্যক্ষের কাছে আবেদন জানিয়েছে এইচএসসি পরীক্ষার্থী প্রিয়াংকা দাশ (১৮)। আগামী ২৭ মে তার বিয়ের দিন ধার্য করা হয়েছে। ইতোমধ্যে তার আশীর্বাদও সম্পন্ন হয়েছে বলে আবেদনে জানায় সে।
তার অমতে এ বিয়ের আয়োজন করা হচ্ছে উল্লেখ করে বিয়ে বন্ধে কলেজ অধ্যক্ষের সহযোগিতা চেয়েছে প্রিয়াংকা। রোববার সকালে কলেজে উপস্থিত হয়ে অধ্যক্ষ মো. আলমগীরের কাছে লিখিতভাবে এ সহেযোগিতা চায় প্রিয়াংকা।
চট্টগ্রাম মহানগরীর উত্তর কাট্টলী মোস্তফা হাকিম ডিগ্রি কলেজ থেকে প্রিয়াংকা এবার মানবিক বিভাগ থেকে এইচএসসি পরীক্ষায় অংশ নিচ্ছে। সে সীতাকুণ্ড উপজেলার বড় কুমিরা লেদাবাসী দাশের বাড়ির বাবুল দাশের মেয়ে।
মোস্তফা হাকিম ডিগ্রি কলেজের অধ্যক্ষ মো. আলমগীর বলেন, ‘মেয়েটি আমাদের কলেজ থেকে এবার এইচএসসি পরীক্ষা দিচ্ছে। সে আমাদের কাছে এসেছে। তার লিখিত অভিযোগের ভিত্তিতে বিষয়টি আমরা সীতাকুণ্ড উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এবং ওসিকে জানিয়েছি।’
কলেজ অধ্যক্ষ আরও বলেন, ‘মেয়েটি এখন প্রাপ্ত বয়স্ক। নিজের ভালো-মন্দের সিদ্ধান্ত নেওয়ার ক্ষমতা তার রয়েছে। এছাড়া পরীক্ষা চলাকালে মেয়েটি বিয়েতে রাজি না থাকায় আমাদের কাছে এসেছে আইনি সহায়তার জন্য।’
এ ব্যাপারে সীতাকুণ্ড উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) নাজমুল ইসলাম বলেন, ‘আমাদের কাছে এ ধরনের কোনও অভিযোগ আসেনি। তবে প্রাপ্তবয়স্ক কেউ যদি বিয়ে করতে না চায় তাকে জোর করে বিয়ে দেওয়া যাবে না। এক্ষেত্রে অভিযোগকারী চাইলে থানায় মামলা করতে পারে। পুলিশ ব্যবস্থা নেবে।’
বিয়েতে অনিচ্ছুক প্রিয়াংকা দাস বলেছে, ‘আমি এবার এইচএসসি পরীক্ষা দিচ্ছি। আরও ছয় বিষয়ের পরীক্ষা বাকি রয়েছে। আমার বাবা সম্প্রতি মধ্যপ্রাচ্য থেকে এসে জোর করে আমাকে বিয়ে দিচ্ছেন। বিয়ের ব্যাপারে আমার সম্মতি না থাকা সত্ত্বেও বিয়ের আয়োজন সম্পন্ন করেছেন। আগামী ২৭ মে আমার বিয়ের দিন ধার্য করা হয়েছে।’
ইতোমধ্যে জোর করে আশীর্বাদ সম্পন্নও হয়েছে বলেও অভিযোগ করে প্রিয়াংকা।
প্রিয়াংকার ভাষ্য, ‘পড়া শেষ না করে আমি বিয়ে করব না। এছাড়া যার সঙ্গে বিয়ে ঠিক করা হয়েছে তার সঙ্গে বয়সের বড় তফাত রয়েছে।’
পড়ালেখা বন্ধ করে জোর করে বিয়ে দিলে আত্মহত্যা করবে বলেও হুমকি দেয় প্রিয়াংকা।
এদিকে প্রিয়াংকার বাবা বাবুল দাশ বলেন, ‘মেয়ের পিছনে আমার অনেক টাকা পয়সা খরচ হয়েছে। বিয়েতে রাজি না হলে প্রয়োজনে তাকে ত্যাজ্য করব।’
এ ছাড়া যে ছেলের সঙ্গে প্রিয়াংকার বিয়ে ঠিক হয়েছে প্রয়োজনে তার সঙ্গে নিজের ছোট মেয়েকে বিয়ে দেবেন বলেও জানান তিনি।

আরও পড়ুন