নিয়োগ পেয়েও দায়িত্ব পাচ্ছেন না প্রধান শিক্ষক

আপডেট: 05:29:04 29/01/2018



img

এসএম আলাউদ্দিন সোহাগ, পাইকগাছা (খুলনা): অভিভাবক সদস্য ও শিক্ষক প্রতিনিধিদের মধ্যে দ্বন্দ্বের কারণে নিয়োগ পেয়েও দায়িত্ব পাচ্ছেন না প্রধান শিক্ষক মনিরুজ্জামান। এই অবস্থা খুলনার পাইকগাছার শহীদ জিয়া মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয়ে।
অভিযোগে জানা গেছে, গত বছর ২ ফেব্রুয়ারি উপজেলার শহীদ জিয়া মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয়ে প্রধান শিক্ষক পদ শূন্য হয়। শূন্য পদে নিয়োগের জন্য ওই বছর ২৩ ও ২৪ ফেব্রুয়ারি সংবাদপত্রে নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশিত হয়। ৩ আগস্ট নিয়োগ পরীক্ষায় দশজন অংশগ্রহণ করেন। এদের মধ্যে মনিরুজ্জামান প্রথম হন। তাকে নিয়োগের জন্য বোর্ড সুপারিশ করলে কমিটির মধ্যে বিরোধ দেখা দেয়। ফলে নিয়োগ কার্যক্রম ঝুলে যায়। স¤প্রতি সভাপতিসহ অভিভাবক সদস্যদের সঙ্গে ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষকসহ শিক্ষক প্রতিনিধিদের বিরোধ দেখা দেয়। গত ১৭ জানুয়ারি ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষককে সভা করার তাগিদ দিলে তিনি সভা না ডাকায় ম্যানেজিং কমিটির জরুরি সভার সিদ্ধান্ত মোতাবেক ২৪ জানুয়ারি সভাপতি মনিরুজ্জামানকে প্রধান শিক্ষক পদে নিয়োগপত্র প্রদান করেন। মনিরুজ্জামান নিয়মিত বিদ্যালয়ে এলেও তাকে শিক্ষক হাজিরা খাতায় স্বাক্ষর করতে দেওয়া হচ্ছে না বলে অভিযোগ।
ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক অঞ্জলীরানি শীল দাবি করছেন, প্রধান শিক্ষক পদে নিয়োগ অবৈধ। নিয়মতান্ত্রিকভাবে নিয়োগ না দেওয়ায় তাকে দায়িত্ব দেওয়া হচ্ছে না।
জানতে চাইলে স্কুল পরিচালনা কমিটির সভাপতি শেখ রফিকুল ইসলাম বলেন, ‘সম্পূর্ণ নিয়মতান্ত্রিকভাবে প্রধান শিক্ষক পদে নিয়োগ দেওয়া হয়েছে। ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক ক্ষমতা আঁকড়ে রাখতে কূটকৌশল অবলম্বন করছেন, নতুন নিয়োগেরও বিরোধিতা করছেন।’
উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা জয়নাল আবদীন বলেন, ‘নিয়োগের ক্ষেত্রে ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষকের কোনো দায়িত্ব নেই। প্রধান শিক্ষক বাড়াবাড়ি করছেন। তার কাছে আমি ফোন করলেও তিনি রিসিভ করেন না।’
জেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা রুহুল আমিন জানান, নিয়োগ বোর্ডের সুপারিশের ভিত্তিতে ম্যানেজিং কমিটি শিক্ষক নিয়োগ দিয়ে থাকে। এটাই নিয়ম।
উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বলেন, ‘নিয়োগের নিয়ম-কানুন আমার জানা নেই। কমিটির বিরুদ্ধে একটি অভিযোগ আমার কাছে তদন্তাধীন রয়েছে।’
এদিকে, ২৭ জানুয়ারি রাতে ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক কমিটির সভাপতিসহ অভিভাবক সদস্য ও সদ্য নিয়োগপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে পাইকগাছা থানায় একটি জিডি করেছেন। যা নিয়ে বিরোধ আরো চরম আকার ধারণ করেছে। প্রতিষ্ঠানটিতে শিক্ষার পরিবেশ নষ্ট হওয়ার আশঙ্কা করছেন অভিভাবকরা।

আরও পড়ুন