নয় মাস পর বাড়ি ফিরল দেড়শ পরিবার

আপডেট: 08:25:27 26/01/2019



img
img

লোহাগড়া (নড়াইল) প্রতিনিধি : একটি হত্যাকাণ্ডকে কেন্দ্র করে লোহাগড়া উপজেলার পার-মল্লিকপুর গ্রামের ঘরছাড়া দেড় শতাধিক পরিবার দীর্ঘ নয় মাস পর ফিরতে পেরেছেন নিজ নিজ বাড়িতে।
আজ শনিবার বিকেল পাঁচটায় পুলিশ প্রশাসনের উদ্যোগে পার মল্লিকপুর গ্রামের ফুটবল মাঠে এক সম্প্রীতি সভার আয়োজন করা হয়। মল্লিকপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি সৈয়দ শামসুল হক কচির সভাপতিত্বে সভায় আরো বক্তব্য রাখেন জেলা প্রশাসক আনজুমান আরা, পুলিশ সুপার জসিমউদ্দিন, পুলিশ সুপারের স্ত্রী নাহিদা চৌধুরী সুমী, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার শরফুদ্দিন, সহকারী কমিশনার (ভূমি) এম এম আরাফাত হোসেন, লোহাগড়া থানার ওসি প্রবীর বিশ্বাস, উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি শিকদার আব্দুল হান্নান রুনু, মল্লিকপুর ইউপি চেয়ারম্যান শিকদার মোস্তফা কামাল, সাবেক চেয়ারম্যান সাহিদুর রহমান, মাতুব্বর উজ্বল ঠাকুর ও হিমায়েত হোসেন হিমু।
উপজেলার পার মল্লিকপুর গ্রামে আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে দীর্ঘদিন ধরে মাতুব্বর হেমায়েত হোসেন হিমু ও ইউপি মেম্বর উজ্জ্বল ঠাকুর গ্রুপের মধ্যে পাল্টাপাল্টি হামলার ঘটনা ঘটছে। ২০১৮ সালে এক সংঘর্ষে উজ্জ্বল ঠাকুর সমর্থক খায়ের মৃধা নিহত হন। এ ঘটনায় নিহতের বোন রেক্সোনা বেগম বাদী হয়ে থানায় ৫১ জনের বিরুদ্ধে মামলা করেন। পরে আসামি পক্ষের প্রায় দুইশ পরিবার বাড়িছাড়া হয়। বাড়িঘর ভাঙচুর এবং মূল্যবান আসবাবপত্র, গরু-ছাগল ও ফসল লুটপাট করা হয়। ভুক্তভোগী এসব পরিবারের সদস্যরা আত্মীয়-স্বজন বাড়ি ও বিভিন্ন এলাকায় বাসা ভাড়া করে বসবাস করে আসছিল। দীর্ঘদিন পর এসব পরিবারের সদস্যরা প্রশাসনের উদ্যোগে বাড়িতে ফিরতে পারায় তাদের মধ্যে স্বস্তি ফিরে এসেছে।
পুলিশ সুপার জসিমউদ্দিন বলেন, ‘ওই গ্রামের মানুষজন যাতে শান্তিপূর্ণভাবে নিজ নিজ বাড়িতে বাস করতে পারেন, এ জন্য আজকের এই সম্প্রীতিসভা করে দুই পক্ষের কাছ থেকে মুচলেকা নেওয়া হয়েছে। আশা করি, উভয় পক্ষ মিলে-মিশে গ্রামে বসবাস করবে।’

আরও পড়ুন