পরকীয়া : যশোরে গৃহবধূ হত্যার অভিযোগ

আপডেট: 08:01:25 09/09/2018



img

স্টাফ রিপোর্টার : যশোরে সালমা খাতুন (২০) নামে এক গৃহবধূকে শ্বাসরোধ করে হত্যার অভিযোগ করা হচ্ছে তার স্বামীর বিরুদ্ধে। পরকীয়া প্রেমে বাধা দেওয়ায় এই ‘হত্যাকাণ্ড’ বলে অভিযোগ।
ঘটনাটি ঘটেছে আজ রোববার সকাল সাড়ে নয়টার দিকে শহরেরতলীর তফসিডাঙ্গা এলাকায়। সালমা তফসিডাঙ্গা গ্রামের জামাল হোসেনের স্ত্রী এবং মণিরামপুর উপজেলার ষোলখাদা গ্রামের বজলুর রহমানের মেয়ে।
মামা মনির হোসেন সুবর্ণভূমিকে বলেন, ‘আমার ভাগনি সালমাকে প্রায় তিন বছর আগে রডমিস্ত্রি জামাল হোসেনের সাথে বিয়ে দিই। বিয়ের সময় নগদ টাকা ও বিভিন্ন মালামালসহ আড়াই-তিন লাখ টাকার মালমাল যৌতুক হিসেবে দেওয়া হয়। ওই দম্পতির এক বছরের একটি ছেলেসন্তান আছে।’
মামাতো বোন রাবেয়া বেগম সুবর্ণভূমিকে বলেন, ‘সালমা আমাকে বহুবার বলেছে, জামালের সাথে তার ভাবি কাজল বেগমের পরকীয়া প্রেম আছে। আজ ভোরবেলা সালমা আমাকে মোবাইল ফোনে বলেছে, শনিবার দিবাগত রাতে জামাল ও কাজল বেগমকে অনৈতিক কর্মকাণ্ডে লিপ্ত অবস্থায় হাতেনাতে ধরেছে। ওই রাত থেকেই জামাল সালমাকে মারপিট করছে। সকাল নয়টার দিকে খবর পাই, সালমাকে শ্বাসরোধ করে হত্যা করা হয়েছে। ঘটনাস্থলে এসেও তাই পেয়েছি।’
চাচা বিল্লাল হোসেন সুবর্ণভূমিকে বলেন, ‘আমরা আগের থেকেই জানতাম জামালের সাথে তার ভাবির পরকীয়া প্রেম চলছে। প্রেমের কারণে জামাল আজ সকালে আমার ভাতিজিকে শ্বাসরোধ করে হত্যা করে। পরে লাশ ঘরের আড়ার সাথে ওড়না জড়িয়ে ঝুলিয়ে রেখেছে। আমরা ঘটনাস্থলে এসে পুলিশকে খবর দিয়েছি।’
জেনারেল হাসপাতালের জরুরি বিভাগের ডাক্তার এম আব্দুর রশিদ সুবর্ণভূমিকে বলেন, ‘এটা হত্যা কি আত্মহত্যা তা এখনই বলা যাবে না। ময়নাতদন্ত রিপোর্ট আসলে বিস্তারিত জানানো যাবে।’
কোতয়ালী থানার এসআই সাইদুর রহমান সুবর্ণভূমিকে বলেন, ‘আমি মৃত্যুর খবর শুনে ঘটনাস্থলে যাই। লাশ মাটিতে পড়ে থাকতে দেখেছি। এলাকাবাসী বলছে, সালমা খাতুন আত্মহত্যা করেছে। আর তার পরিবার বলছে, তাকে শ্বাসরোধ করে হত্যা করা হয়েছে। লাশ উদ্ধার করে হাসপাতাল মর্গে আনা হয়েছে। ময়নাতদন্ত রিপোর্ট আসলে মৃত্যুর সঠিক কারণ জানা যাবে। তবে নিহতের স্বামী জামাল হোসেনের সাথে তার ভাবি কাজলের পরকীয়া ছিল, এটা ঠিক। জামাল পলাতক রয়েছে।’

আরও পড়ুন