পলাশের ছাগলের দাম ৭০ হাজার টাকা!

আপডেট: 04:04:13 14/08/2017



img
img

আনোয়ার হোসেন, মণিরামপুর (যশোর) : মণিরামপুরের জলাবদ্ধ শ্যামকুড় ইউনিয়নের চিনাটোলা গ্রামের ৩২ বছর বয়সী যুবক আতাউর রহমান পলাশ। পেশায় মুদি ব্যবসায়ী। স্থানীয় নাগোরঘোপ মোড়ে তার ব্যবসা প্রতিষ্ঠান। প্রাতিষ্ঠানিক লেখাপড়া মাধ্যমিক স্তর পেরোয়নি।
তা সত্ত্বেও গৃহপালিত পশু-পাখি পালনে তিনি পেয়েছেন সাফল্য। তার পোষা একটি ছাগলের বর্তমান বাজারদর প্রায় ৭০ হাজার টাকা। এছাড়া পলাশের রয়েছে ৪৫ জোড়া দেশি কবুতর। এসব কাজে পলাশ কাজে লাগাননি কোনো প্রযুক্তি জ্ঞান। উপজেলা পশুসম্পদ কর্মকর্তার কার্যালয়ের কেউ রাখেন না পলাশের এই সাফল্যের খবর।
নিজ দোকানের পাশাপাশি ছাগল ও কবুতরের যত্ন করেই সময় কাটে পলাশের। পলাশ চিনাটোলা গ্রামের বাশিয়ার রহমানের ছেলে।
পলাশ জানান, ১৫-২০ বছর আগে মহেশপুরে নানার বাড়ি বেড়াতে যান তিনি। সেখানে মণিরামপুরের নাগোরঘোপ এলাকার আব্দুল হামিদ নামে একব্যক্তি চাকরি করতেন। চাকরির পাশাপাশি দুটি ছাগল পুষেছিলেন আব্দুল হামিদ। তার মধ্যে একটি ছাগল জবাই করে তিন মণ ২০ কেজি মাংস পেয়েছিলেন তিনি।
সেখান থেকে পলাশের ছাগল পালনের ইচ্ছা। অনেক খোঁজাখুঁজির পর বড়ভাই মাহাবুর রহমানের শ^শুর যশোরের চৌগাছার সোহরাব হোসেনের কাছ থেকে আড়াই বছর আগে সাড়ে আট হাজার টাকায় দেড়মাস বয়সী একটি ছাগল কেনেন তিনি; যেটির বর্তমান বাজারদর প্রায় ৭০ হাজার টাকা। ছাগলটি অস্ট্রেলিয়ান জাতের বলে জানান পলাশ।
পলাশ বলেন, ‘ধানের বিচলির সাথে খৈল ও ভুষি মিশিয়ে এবং গাছের পাতা খাইয়ে ছাগলটি এতো বড় করেছি। আট মাস আগে একবার ছাগলটির শরীরের পেছনের অংশ প্যারালাইজড হয়ে যায়। পরে কেশবপুর পশু হাসপাতালে নিলে ডাক্তাররা বোর্ড বসিয়ে ছাগলের চিকিৎসা দেন। সেই সময় সাড়ে চার হাজার টাকা খরচ করা হয়। ১৫ দিন পরে ছাগলটি সুস্থ হয়ে ওঠে।’
পলাশ জানান, দুই মাস আগে তিনি একবার ব্যাপারি দিয়ে ছাগলের দাম করিয়েছিলেন। তখন তারা ৬০ হাজার টাকা দাম বলেছিল। এবারের ঈদুল আজহায় তিনি ছাগলটি বিক্রি করতে চান। সেই ক্ষেত্রে ৭০-৮০ হাজার টাকা হলে তিনি ছাগলটি ছেড়ে দেবেন। যদি স্থানীয় বাজারে দাম না পান তাহলে ছাগল নিয়ে চট্টগ্রামের হাটে যাবেন বলেও সিদ্ধান্ত রয়েছে তার।
তিনি বলেন, ‘গত ২২ দিন ধরে বাড়িতে হাঁটুপানি। ছাগলের ঘরেও পানি উঠেছিল। পানির কারণে ছাগল বের করতে পারছি না।’
তার দাবি, যদি ছাগলটি অসুস্থ না হতো আর চারদিকে বৃষ্টির পানি না উঠতো তাহলে তার ছাগলের দাম হতো এক লাখের ওপরে।
পলাশ বলেন, ‘এই ছাগল বিক্রি করে দিয়ে আরেকটা পুষবো বলে দেড়মাস আগে আট হাজার টাকা দিয়ে আরেকটি ছাগল কিনেছি। তাছাড়া আমার দেশি জাতের ৪৫ জোড়া কবুতর রয়েছে। যেখান থেকে প্রতিমাসে ৫-৬ হাজার টাকা বাড়তি আয় হয়।’
মণিরামপুর উপজেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা আবুজার ছিদ্দিক বলেন, ‘উপজেলায় কেউ এতো বড় ছাগল পালন করে, তা আমার জানা নেই।’

আরও পড়ুন