পল্লী ডাক্তারকে দণ্ড : দোকান বন্ধ করে ব্যবসায়ীদের বিক্ষোভ

আপডেট: 05:44:49 01/03/2018



img

স্টাফ রিপোর্টার : যশোরে ভ্রাম্যমাণ আদালত এক পল্লী চিকিৎসককে ১৫ দিনের বিনাশ্রম কারাদণ্ড দেওয়ায় ওষুধ ব্যবসায়ীরা শহরে তাদের প্রতিষ্ঠান বন্ধ করে বৃহস্পতিবার বিক্ষোভ করেছেন।
ভ্রাম্যমাণ আদালতের বিচারক নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট কেএম আবু নওশাদ সুবর্ণভূমিকে জানিয়েছেন, রাশেদ হেলথ কেয়ার নামে একটি প্রতিষ্ঠানে দায়িত্বরত কথিত ডাক্তার রাশেদ পারভেজ ফুলের কোনো সার্টিফিকেট না থাকায় তাকে দণ্ডাদেশ দেওয়া হয়েছে।
যশোর ওষুধ ব্যবসায়ী মালিক সমিতির সভাপতি এএম জালাল উদ্দিন মিন্টু সুবর্ণভূমিকে বলেন, 'সারাদেশে হাজার হাজার পল্লী চিকিৎসক রয়েছেন। তারা রোগী দেখতে পারবেন না- সে ব্যাপারে সরকার কোনো প্রজ্ঞাপন জারি করেনি। অথচ, যশোরে ভ্রাম্যমাণ আদালত ঘন ঘন অভিযান চালিয়ে ওষুধ ব্যবসায়ীদের হয়রানি করছেন।'
তিনি জানান, আজ বৃহস্পতিবার দুপুরে শহরের রবীন্দ্রনাথ সড়কে রাঙামাটি গ্যারেজের পাশে পল্লী চিকিৎসক রাশেদ পারভেজ ফুলের ওষুধের দোকানে ভ্রাম্যমাণ আদালত অভিযান চালিয়ে তাকে আটক করেন। পরে তাকে আদালতে হাজির করে ১৫ দিনের বিনাশ্রম কারাদণ্ড দেওয়া হয়। ডাক্তার ফুলকে মুক্তি দিতে হবে। তা না হলে যশোর শহরের সব ওষুধের দোকান বন্ধ রেখে আন্দোলন করা হবে।
ওষুধ ব্যবসায়ী মালিক সমিতির নির্বাহী সদস্য শামিম আহম্মেদ রনি সুবর্ণভূমিকে বলেন, 'ভ্রাম্যমাণ আদালত অভিযান চালিয়ে মেয়াদোত্তীর্ণ ওষুধ দেখলে জরিমানা করেন। দোকানে মেয়াদোত্তীর্ণ ওষুধ থাকলেও তা বিক্রি করা হয় না; সেগুলো স্ব-স্ব কোম্পানি ফেরত নেয় । কিন্তু ভ্রাম্যমাণ আদালত এগুলো বুঝতে চায় না।'
ভ্রাম্যমাণ আদালত সূত্রে জানা যায়, শহরের রবীন্দ্রনাথ সড়কে রাশেদ হেলথ কেয়ার নামে ডাক্তারের একটি চেম্বার রয়েছে । সাইনবোর্ডের নিচে লেখা আছে ডাক্তার রাশেদ পারভেজ ফুল। আজ বেলা একটার দিকে ভ্রাম্যমাণ আদালত অভিযান চলাকালে ডাক্তার রাশেদের সার্টিফিকেট দেখতে চান। কিন্তু তিনি সার্টিফিকেট দেখাতে পারেননি । ফলে ভ্রাম্যামাণ আদালত ২০০৯ সালের জাতীয় ভোক্তাধিকার সংরক্ষণ আইনের ৫২ ধারায় রাশেদকে ১৫ দিনের বিনাশ্রম কারাদণ্ড দেন।
নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট কেএম আবু নওশাদ সুবর্ণভূমিকে জানিয়েছেন, রাশেদ পল্লী চিকিৎসকও নন। পল্লী চিকিৎসক হলে তিনি গ্রামের প্রত্যন্ত অঞ্চলে বসতে পারেন। তবে নামের আগে ডাক্তার লেখা যাবে না। নামের আগে ডাক্তার লিখতে হলে তাকে এমবিবিএস অথবা বিডিএস পাশ করতে হবে।

বিকেলে এ রিপোর্ট লেখার সময় ওষুধ ব্যবসায়ীরা স্মারকলিপি দিতে জেলা প্রশাসকের কার্যালয় চত্বরে অবস্থান করছিলেন।

আরও পড়ুন