পিঁয়াজ কাটলে মানুষ কাঁদে কেনো

আপডেট: 01:53:53 04/12/2017



img

ফোরকান ওয়াহিদ

জীবনের প্রথম ইন্টারভিউতে প্রশ্নকর্তা জিজ্ঞেস করেছিলেন, পিঁয়াজ কাটলে মানুষ কাঁদে কেন? কী উত্তর দিয়েছিলাম এতদিনে মনে নেই। তবে এখন হলে বলা যেতো, কাঁদার জন্য পিঁয়াজ কাটার দরকার হয় না, পিঁয়াজ কিনতে গেলেই এখন মানুষ কাঁদে। ছাত্রজীবনে খুব বেশি রান্নাবান্না করতে হয়নি বলে পিঁয়াজ কেটে কাঁদতে হয়নি। তবে ওই সময়ে আমার ম্যানিব্যাগের সঙ্গে পিঁয়াজের একটা অদ্ভুত সাদৃশ্য ছিল; খুললেই চোখে পানি চলে আসতো।
পিঁয়াজের এ কান্না কিংবা পিঁয়াজ কাটতে গিয়ে কান্না আমাকে অনেকবারই ব্রিবতকর অবস্থায় ফেলেছে। আমার বউ, তিনি আবার কান্না বিশেষজ্ঞ। জগতের এমন কোনো বিষয় নেই যা নিয়ে তিনি কাঁদেন না।
টিভি সিরিয়ালে দেখে, সিনেমা দেখে, গল্প উপন্যাস পড়ে, মনের দুঃখে কিংবা সুখে তিনি কাঁদেন। কিছুদিন আগে বউয়ের নাকের পানি আর চোখের পানিতে একাকার। দেখে জিজ্ঞেস করলাম, আবার কে মারা গেল?
-কে মারা যাবে? পিঁয়াজ কাটলাম এতগুলো।
কয়েকদিন আগে আবার একই কাহিনী। জিজ্ঞেস করলাম, প্রতিদিন পিঁয়াজ কাটতে হয় নাকি, একবারে বেশি করে কেটে রাখলেই তো পারো।
-ঢং করবে না তো, আমি বাঁচি না মনের দুঃখে, উনি আসছেন পিঁয়াজ কাটতে।
পিঁয়াজের অত্যধিক দাম বৃদ্ধির কারণে গৃহিণীদের রান্নাভ্যাসে যেমন পরিবর্তন লক্ষ্য করা যায়, তেমনি রেস্টুরেন্টগুলোর আইটেমেও এসেছে পরিবর্তন। আগে রেস্টুরেন্টগুলোতে সালাদ হিসেবে পিঁয়াজ দিতো। এখন পিঁয়াজের জায়গা দখল করেছে কাঁচা পেঁপে। দোকানে এখন পিঁয়াজু নামে যা বিক্রি হয় তাকে আর যাই বলা যাক না কেন কোনোক্রমেই পিঁয়াজু বলা যায় না। ডাল এবং আটা দিয়ে বানানো এ বস্তুকে বড়জোর ডালাজু কিংবা আটাজু বলা যেতে পারে। অবশ্য বাঙালি এক্ষেত্রে বরাবরই ক্রিয়েটিভ। রোজার দিনে বেগুনের অত্যধিক মূল্য বৃদ্ধির কারণে আমরা বেগুনির পরিবর্তে পেঁপেনি কিংবা লাউনি খেতে অভ্যস্ত।
পিঁয়াজের দাম যতই বাড়ুক না কেনো এর সঙ্গে বাঙালির সখ্য দীর্ঘদিনের। পিঁয়াজ রস যেমন আমাদের কাঁদায় তেমনি আমাদের হাসাতেও এ রসের ভূমিকা কম নয়। পিঁয়াজ নিয়ে বাঙালির সবচেয়ে বেশি ব্যবহৃত রসিকতা সম্ভবত- ‘ছেলের সবই ভালো, খালি একটু পিঁয়াজ খায়’। পিঁয়াজের চলমান মূল্য বৃদ্ধিরকালে ‌এই বিষয়ক একটা প্র্যাকটিকাল জোক-

স্ত্রী : কী ব্যাপার, বাজার থেকে পিঁয়াজ আনোনি কেনো? দাম বেশি বলে আনবে না! এটা কেমন কথা?
স্বামী : দাম বেশি বলে আনিনি এটা ঠিক নয়।
স্ত্রী : তাহলে?
স্বামী : আসলে পিঁয়াজ কাটতে বসে তুমি প্রতিদিন চোখের জল ফেলবে, এটা আমি সহ্য করতে পারছি না।
পিঁয়াজ যে শুধু খাদ্য হিসেবে জনপ্রিয় তা নয়, প্রসাধনী হিসেবেও এর ব্যবহারও কম নয়। বিশেষত নারীদের ক্ষেত্রে এটা বেশ জনপ্রিয়। আমার বউকে দেখি প্রায়শই মাথা এবং মুখে পিঁয়াজ ঘষাঘষি করতে। বউকে বললাম, দুর্মূল্যের বাজারে ঘষাঘষি করে পিঁয়াজের দাম আর বাড়াইও না। আমার কথা শুনে বউ আর দেরি করেনি, বাসার ছাদের টবে পিঁয়াজ চাষ শুরু করে দিয়েছে। প্রয়োজনে চাষ করে পিঁয়াজ উৎপাদন করবে তবুও পিঁয়াজ দিয়ে রূপচর্চা বন্ধ হবে না।

পিয়াজ নিয়ে কিছু আজাইরা প্যাঁচাল
১. পিঁয়াজ মানুষের প্রাচীন খাদ্যের একটি। মানুষ গত সাত হাজার বছর ধরে পিঁয়াজ খেয়ে আসছে বলে মনে করা হয়।
২. প্রাচীন মিশরীয়দের কাছে পিঁয়াজ অমরত্বের প্রতীক ছিল। তারা পিঁয়াজকে উপাসনা করতো। পরকালে সমৃদ্ধি অর্জনের লক্ষ্যে ফারাওদের সমাধিসৌধে পিঁয়াজ রাখা হতো।
৩. ভুলেও আপনার কুকুরকে পিঁয়াজ খেতে দেবেন না। পিঁয়াজ রেড ব্লাড সেলকে দুর্বল করে দিয়ে কুকুরের মৃত্যুর কারণ হতে পারে।
৪. মধ্যযুগে পিঁয়াজ মুদ্রা হিসেবে ব্যবহৃত হতো, মধ্যযুগে উপহার হিসেবেও এর চল ছিল ব্যাপক। (মধ্যযুগ বুঝি আবার ফিরে এলো!)
৫. দ্য গিনেস বুক অব ওয়ার্ল্ড রেকর্ডস অনুসারে, পৃথিবীর সবচেয়ে বড় পিঁয়াজটি ফলিয়েছিলেন এক ব্রিটিশ কৃষক। ২০১১ সালে তার উৎপাদিত একটি পিঁয়াজের ওজন ছিল ১৮ পাউন্ড অর্থাৎ প্রায় সাড়ে আট কেজি।
৬. প্রাচীন অলিম্পিকে অ্যাথলেটদের শক্তিবর্ধক হিসেবে পিঁয়াজ খাওয়ানো হতো।
৭. পৃথিবীর সবচেয়ে বেশি পিঁয়াজ খায় গাদ্দাফির দেশের লোক। লিবিয়ানরা অন্য দেশের লোকের তুলনায় পাঁচগুণ বেশি পিঁয়াজ খায়।
৮. পুরনো ইংরেজি লোককাহিনি অনুযায়ী, যদি পিঁয়াজের ত্বক পুরু হয়, তাহলে এর অর্থ হচ্ছে একটি কঠোর বা তীব্র শীত আসছে। অন্যদিকে পিঁয়াজের পাতলা ত্বক হালকা শীতকালের ইঙ্গিত দেয়।
৯. পিঁয়াজের প্রায় ৯৭ ভাগই পানি।
১০. পিঁয়াজ পৃথিবীর ষষ্ঠ জনপ্রিয় সবজি। (মনোযোগী পাঠকের জন্য কুইজ, পৃথিবীর সবচেয়ে (প্রথম) জনপ্রিয় সবজির নাম কী? অবশ্যই আগে উত্তর দিয়ে পরে গুগল সার্চ করবেন-

পিঁয়াজ কাটার সময় কাঁদে না এমন মানুষ বিরল। পিঁয়াজ কাটার সময় কান্না প্রতিরোধে একটা ফ্রি টিপস- ‘পানি ছেড়ে দিয়ে ট্যাবের নিচে পিঁয়াজ কাটুন কিংবা ফ্রিজে রেখে ঠান্ডা অবস্থায় পিঁয়াজ কাটুন। আশা করি কান্না ছাড়াই পিঁয়াজ কাটতে পারবেন। চুইংগাম চিবুতে চিবুতে পিঁয়াজ কাটলেও নাকি চোখে পানি আসে না, তবে এটা ঝুঁকিপূর্ণ; এতে চোখে পানি না আসলেও দাঁতে পোকা আসতে পারে।
[মানবজমিন থেকে]