পেট্রাপোলে স্থবির পণ্যবাহী পাঁচ হাজার ট্রাক

আপডেট: 07:15:06 04/03/2018



img

স্টাফ রিপোর্টার : দেশের বৃহত্তম স্থলবন্দর বেনাপোলের বিপরীতে ভারতের বনগাঁ কালিতলা পার্কিংয়ে আটকে আছে পাঁচ হাজারের বেশি পণ্যবাহী ট্রাক। এসব ট্রাক দিনের পর দিন বেনাপোল বন্দরে প্রবেশের অপেক্ষায় দাঁড়িয়ে আছে। সেখানকার একটি সিন্ডিকেট এর নিয়ন্ত্রণ করে থাকে। টাকা দিলেই আগে প্রবেশের সিরিয়াল হয়ে যায়। টাকা না দিলে কখনো ১৫ দিন কখনো ২০ থেকে এক মাসও সময় লাগে বেনাপোল বন্দরে ঢুকতে। এ কারণে স্থলবন্দর বেনাপোল দিয়ে আমদানি-রপ্তানি বাণিজ্যে বিঘœ ঘটছে।
চলতি অর্থবছরের প্রথম সাত মাসে (জুলাই-জানুয়ারি) বেনাপোল কাস্টম হাউজে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর) নির্ধারিত লক্ষ্যমাত্রা অনুযায়ী রাজস্ব আহরণ সম্ভব হয়নি। উল্লিখিত সময়ে বেনাপোল থেকে রাজস্ব আহরণের লক্ষ্যমাত্রা ছিল দুই হাজার ৪৪৬ কোটি ৪৫ লাখ টাকা। বিপরীতে আদায় হয়েছে দুই হাজার ৩২৫ কোটি ৭২ লাখ টাকা। অর্থাৎ আদায় হয়েছে লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে ১২০ কোটি ৭৩ লাখ টাকা কম। চলতি অর্থবছরের সাত মাসে ভারত থেকে এই পথে আমদানি হয়েছে ১৩ লাখ ৫৯ হাজার ৬২০ দশমিক ৪৬ মেট্রিক টন পণ্য।
রাজস্ব আদায়ের লক্ষ্যমাত্রা পূরণের জন্য জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের চেয়ারম্যান মোশাররফ হোসেন ভূঁইয়ার নির্দেশে বেনাপোল কাস্টম হাউজের কমিশনার বেলাল হোসেন আমদানি-রফতানি বাণিজ্য বাড়াতে দুই দেশের ব্যবসায়ী ও কাস্টমস কর্মকর্তাদের সঙ্গে দফায় দফায় বৈঠক করেছেন। তবে আমদানি বাণিজ্য বাড়াতে সফল হননি।
সংশ্লিষ্ট সূত্র জানিয়েছে, ওপারে ভারতের বনগাঁ কালিতলা পার্কিংয়ে সেখানকার পৌরসভার লোকজন সিরিয়ালের নামে পণ্যবাহী ট্রাক দিনের পর দিন আটকে রেখে ডেমারেজ বাবদ চাঁদাবাজি করে চলেছেন বলে ব্যবসায়ীদের অভিযোগ। এছাড়া বেনাপোল চেকপোস্টে নানা ধরনের বাড়তি নিয়মকানুন চালু করায় ভারত থেকে পণ্যবোঝাই ট্রাক বন্দরে প্রবেশ করতে বিলম্ব হচ্ছে। বর্তমানে ঋণপত্র (এলসি) খোলার পর ভারত থেকে পণ্য আসতে ২০ দিন থেকে এক মাস সময় লাগছে। বেনাপোল চেকপোস্টে ভারতীয় এক একটি ট্রাক তিনটি স্থানে এন্ট্রি করতে ২০ মিনিট করে সময় লাগায় সারাদিনে ট্রাক আসা কমে গেছে। ইতিপূর্বে প্রতিদিন বেনাপোল বন্দর দিয়ে ৫০০ ট্রাক পণ্য আমদানি হতো ভারত থেকে। সময় ক্ষেপণের কারণে বর্তমানে ট্রাকের সংখ্যা কমে গিয়ে দাঁড়িয়েছে গড়ে ২৫০টিতে। চেকপোস্টে বিজিবি, কাস্টমস ও বন্দর আলাদাভাবে রেজিস্ট্রার খাতায় ট্রাক এন্ট্রি করায় এ ধরনের পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়েছে বলে অভিযোগ করা হয়।
অন্যদিকে, ভারত থেকে আমদানি করা পণ্য চট্টগ্রামসহ অন্যান্য বন্দরে যে মূল্যে শুল্কায়ন হয়, বেনাপোলে তার চেয়ে বেশি মূল্য ধরা হয়। ফলে অনেক আমদানিকারক বেনাপোল বন্দর থেকে মুখ ফিরিয়ে চট্টগ্রামসহ অন্য বন্দর দিয়ে পণ্য আমদানি করছেন। কোনো কোনো আমদানিকারক আবার বৈধ পথে আমদানি কমিয়ে চোরা পথে পণ্য আমদানি করছেন। জাতীয় রাজস্ব বোর্ড কর্তৃক আমদানি পণ্যের ট্যারিফমূল্য করা হলেও সেই মূল্যে থেকে বাড়িয়ে অধিক মূল্যে শুল্কায়ন করা হচ্ছে। ফলে আমদানিকারকরা আর্থিক ক্ষতির কারণে আর পণ্য আমদানিতে নিরুৎসাহিত হচ্ছেন। তাছাড়া কাস্টমস শুল্ক আদায় করে ছেড়ে দিলেও পথে বিজিবি ট্রাক আটকে বেশি পণ্য থাকার অভিযোগ আনে। এতে পণ্য নতুন করে পরীক্ষার জন্য সাত থেকে দশ দিন সময় লাগে।
এ প্রসঙ্গে বেনাপোল কাস্টমস সিঅ্যান্ডএফ এজেন্টস অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি মফিজুর রহমান সজন বলেন, ‘বেনাপোল চেকপোস্টে আমদানিকৃত পণ্যবোঝাই ট্রাক এন্ট্রির নামে অহেতুক সময় নষ্ট করা হচ্ছে। এর ফলে সারা বন্দরে পণ্যবাহী ট্রাক প্রবেশ কমে গেছে। এর নেতিবাচক প্রভাব পড়ছে রাজস্ব আদায়ে।’
তিনি বলেন, ‘কাস্টমস চেকপোস্টের একটি পয়েন্টে ট্রাক এন্ট্রি করলে সময় যেমন বাঁচবে তেমনি বাড়বে আমদানি-রফতানি বাণিজ্য।’
আমদানিকৃত পণ্যের ওপর মনগড়া মূল্য চাপিয়ে শুল্কায়ন বন্ধসহ বন্দরের অবকাঠামোগত উন্নয়ন করা হলে এই বন্দর থেকে প্রতিবছর সরকারের দশ হাজার কোটি টাকার রাজস্ব আয় সম্ভব বলে তার অভিমত।
বেনাপোল বন্দরে কীভাবে রাজস্ব আয় বৃদ্ধি ও আমদানি-রপ্তানি বাণিজ্যে গতি ফিরিয়ে আনা যায় সে নিয়ে কাস্টমস ও বন্দর ব্যবহারকারী বিভিন্ন সংগঠনের নেতাদের সঙ্গে কাস্টমস কর্তৃপক্ষ দফায় দফায় বৈঠক করেছেন। এসব সভায় বন্দর ব্যবহারকারীরা অনেক সুপারিশ করেন। কিন্তু কাজের কাজ তেমন একটা হচ্ছে না।
বেনাপোল বন্দর দিয়ে দেশের সিংহভাগ শিল্প কলকারখানাসহ গার্মেন্টস ইন্ডাস্ট্রিজের কাঁচামাল আমদানি হয়ে থাকে। পণ্য বন্দরে আসতে দীর্ঘ সময় লাগায় সময়মতো বিদেশি ক্রেতাদের পণ্য রফতানি করতে পারেন না অনেক উৎপাদক। সে কারণে অর্ডার বাতিল পর্যন্ত হচ্ছে।
এসব প্রসঙ্গে বেনাপোল কাস্টম হাউজের কমিশনার বেলাল হোসেন চৌধুরী বলেন, ‘বেনাপোল বন্দর দিয়ে আমদানি-রফতানি বাণিজ্যে স্থবিরতা দূর করা হবে। রাজস্ব আদায় বৃদ্ধি করতে সারা দেশের কাস্টমস হাউজে একই মূল্যে শুল্কায়নের বিষয়টি নিশ্চিত করার বিষয়ে কাজ করা হচ্ছে।’

আরও পড়ুন