প্রতিশোধ : স্ত্রীর প্রেমিকের প্রৌঢ়া মাকে ‘গণধর্ষণ’

আপডেট: 02:00:08 11/02/2018



img

স্টাফ রিপোর্টার : যশোরের অভয়নগরে এক প্রৌঢ়া নারীকে অস্ত্রের মুখে তুলে নিয়ে গণধর্ষণ করা হয়েছে বলে অভিযোগ করা হচ্ছে। এ ঘটনায় পুলিশ অভিযুক্ত দুইজনকে আটক করে কারাগারে পাঠিয়েছে। ওই নারীর ডাক্তারি পরীক্ষা সম্পন্ন করিয়েছে পুলিশ।
ওই প্রৌঢ়ার ছেলে অভিযুক্ত এক ধর্ষকের স্ত্রীর সঙ্গে পরকীয়ায় লিপ্ত বলে তথ্য মিলেছে। স্ত্রীর কথিত ওই প্রেমিকের ওপর প্রতিশোধ নিতে তার মাকে ধর্ষণ করা হয় বলে পুলিশ ধারণা করছে।
ঘটনাটি ঘটেছে অভয়নগর উপজেলা সদরের নওয়াপাড়ার ড্রাইভারপাড়া এলাকায়। আটক দুইজন হলেন, উপজেলার নওয়াপাড়া বেঙ্গলগেট এলাকার ইব্রাহিম শেখের ছেলে জাহিদুল ইসলাম ওরফে জাহিদ শেখ ও ড্রাইভারপাড়ার হারুন অর রশিদের ছেলে সোহাগ মোড়ল।
অভিযোগকারিণীর বরাত দিয়ে অভয়নগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শেখ গনি মিয়া সুবর্ণভূমিকে জানান, ওই প্রৌঢ়া একসময় জাহিদ শেখের বাড়িতে কাজ করতেন। সেসময় জাহিদের বাড়িতে তার ছেলের যাতায়াত ছিল। এই সুবাদে জাহিদের স্ত্রীর সঙ্গে ওই প্রৌঢ়ার ছেলের পরকীয়া সম্পর্ক হয়। এই ঘটনার প্রতিশোধ নিতে বৃহস্পতিবার দিনগত রাতে ওই প্রৌঢ়াকে অস্ত্রের মুখে অপহরণ করে জাহিদ ও তার লোকজন। এরপর তাকে বাড়ির পাশের বাঁশবাগানে নিয়ে গণধর্ষণ করা হয়।
ওসি আরো জানান, বৃহস্পতিবার রাতে ‘ধর্ষিত’ প্রৌঢ়ার পরিবারের সদস্যরা ওসিকে বিষয়টি অবহিত করেন। পরে অভিযান চালিয়ে জাহিদ শেখ ও সোহাগকে আটক করা হয়। এরপর শুক্রবার তাদের আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। এ ঘটনায় চারজনের নামে থানায় মামলা হয়েছে।
ওসি শেখ গনি মিয়া আরো জানান, শুক্রবারই আদালতে ওই প্রৌঢ়া জবানবন্দি দেন। আর শনিবার সকালে যশোর জেনারেল হাসপাতালে তার ডাক্তারি পরীক্ষা সম্পন্ন করা হয়।
যশোর জেনারেল হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক আব্দুর রহিম মোড়ল সুবর্ণভূমিকে জানান, গণধর্ষণের অভিযোগকারিণীকে নিয়ে পুলিশ হাসপাতালে এসেছিল। ওই নারীর শরীর থেকে আলামত সংগ্রহ করে পরীক্ষার জন্য পাঠানো হয়েছে। রিপোর্ট আসার পর অভিযোগের সত্যাসত্য নির্ণয় করা যাবে।

আরও পড়ুন