বর্ণাঢ্য আয়োজনে পালিত হচ্ছে ‘খুলনা দিবস’

আপডেট: 03:38:49 27/04/2019



img
img

খুলনা অফিস : খুলনা জেলার ১৩৭ বছর পূর্তি উপলক্ষে নগরীতে পৃথক পৃথক কর্মসূচির মধ্য দিয়ে ‘খুলনা দিবস’ পালিত হচ্ছে।
দিবসটি উপলক্ষে বৃহত্তর খুলনা উন্নয়ন সংগ্রাম সমন্বয় কমিটি শনিবার সকাল নয়টায় নগরীতে বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা বের করে। শোভাযাত্রাটি নগরীর প্রধান প্রধান সড়ক ঘোরে। ইতিহাস-ঐতিহ্য ও প্রাকৃতিক দৃশ্যসম্বলিত লোকজ, বাউল, ঘোড়াগাড়ি, পালকিতে জামাই-বউ ছাড়াও স্থানীয় রোভার স্কাউট, সি-স্কাউটের ব্যান্ড বাদক দলের বিশেষ উপস্থাপনা শোভাযাত্রাকে প্রাণবন্ত করে তোলে।
সাবেক সংসদ সদস্য মিজানুর রহমান, খুলনার জেলা প্রশাসক হেলাল হোসেন, সংগঠনের সভাপতি আলহাজ শেখ মোশাররফ হোসেন ও মহাসচিব শেখ আশরাফ উজ জামানসহ খুলনার সর্বস্তরের মানুষ এতে অংশ নেন।
দিবসটি উপলক্ষে সন্ধ্যায় নগরীর শহিদ হাদিস পার্কে আলোচনা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান হবে। এছাড়া উন্নয়ন কমিটির কার্যালয়ে চলছে চার দিনব্যাপী মেলা।
অপরদিকে খুলনা দিবস উপলক্ষে খুলনা উন্নয়ন ফোরামের উদ্যোগে শনিবার সকাল আটটায় নগরীতে বর্ণাঢ্য র‌্যালি বের হয়। খালিশপুরের নতুন রাস্তায় ফোরামের কার্যালয় থেকে শুরু হয়ে র‌্যালিটি দৌলতপুরের প্রধান প্রধান সড়ক ঘোরে।
পরে দৌলতপুর এসএস শপিং সেন্টারে আলোচনা সভা হয়। সভায় সভাপতিত্ব করেন খুলনা উন্নয়ন ফোরামের চেয়ারম্যান শরীফ শফিকুল হামিদ চন্দন। অন্যদের মধ্যে আলোচনা করেন বঙ্গবন্ধু পরিষদ মহানগর নেতা ও দৌলতপুর থানা সভাপতি, খুলনা উন্নয়ন ফোরামের সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান এসএম নুরুল হক নুরু, মো. রবিউল ইসলাম, অ্যাডভোকেট রেজাউল করিম, চৌধুরী হাবিবুর রহমান, শেখ মনির হোসেন, আব্দুর রউফ বিশ্বাস, ডা. মোসাদ্দেক হোসেন বাবলু, আসিফ ইকবাল, গোলাম কিবরিয়া আশা, সৈয়দ আল আমিন, আলমগীর কবির, সাবের আহম্মেদ, শেখ মহসিন প্রমুখ।
এছাড়া বঙ্গবন্ধু পরিষদ, ডিবেটিং সোসাইটিসহ বিভিন্ন সামাজিক সাংস্কৃতিক সংগঠন খুলনা দিবস উপলক্ষে নানা কর্মসূচি পালন করছে।
১৮৮২ সালের ২৫ এপ্রিল খুলনা, সাতক্ষীরা ও বাগেরহাটকে নিয়ে গঠিত হয় খুলনা জেলা। এরপর বাগেরহাট ও সাতক্ষীরা আলাদা জেলা হলেও খুলনা রয়ে গেছে স্বকীয়তায়। ১৩৬ বছর পূর্ণ করে খুলনা জেলা আজ ১৩৭ বছরে পা দিয়েছে।

আরও পড়ুন