বাগেরহাটে ছাত্রদের সড়ক অবরোধ লাঠিচার্জ

আপডেট: 10:03:39 26/04/2017



img
img

সুবর্ণভূমি ডেস্ক : বাগেরহাটে চার দফা দাবিতে বুধবার (২৬ এপ্রিল) বিক্ষোভ মিছিল ও সড়ক অবরোধ করেন মেডিক্যাল ট্রেনিং ইনস্টিটিউটের (ম্যাটস) শিক্ষার্থীরা। এসময় পুলিশ তাদের লাঠিচার্জ করলে অন্তত ৩০ জন আহত হন। আহতদের প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে। তবে লাঠিচার্জের অভিযোগ অস্বীকার করেছেন বাগেরহাটের পুলিশ সুপার পংকজচন্দ্র রায়।
বঙ্গবন্ধু ডিপ্লোমা মেডিক্যাল স্টুডেন্ট অ্যাসোসিয়েশনের ব্যানারে (বিডিএমএসএ) বেলা পৌনে ১১টার দিকে ম্যাটস শিক্ষার্থীরা বাগেরহাট-বরিশাল মহাসড়কের দড়াটানা সেতুর কাছে জড়ো হয়ে প্রায় আধাঘণ্টার মতো যান চলাচল বন্ধ করে রাখেন। এসময় রাস্তায় দীর্ঘ যানজটের সৃষ্টি হয়। এতে পুলিশ সেখানে গিয়ে লাঠিচার্জ করলে আন্দোলনকারীরা সড়ক থেকে সরে যান।
শিক্ষার্থীরা জানান, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের পঞ্চবার্ষিকী পরিকল্পনা অনুযায়ী ম্যাটস শিক্ষার্থীদের উচ্চশিক্ষার অধিকার নিশ্চিত করা, মেডিক্যাল এডুকেশন বোর্ড নামে স্বতন্ত্র বোর্ড গঠন করা, ইন্টার্নশিপ ভাতা প্রদানসহ চার দফা দাবিতে কেন্দ্রীয় কর্মসূচি অনুযায়ী তারা প্রায় ৪০০ শিক্ষার্থী আন্দোলনে নামেন। এর অংশ হিসাবে সকালে তারা ম্যাটস থেকে বিক্ষোভ মিছিল নিয়ে বাগেরহাট-বরিশাল মহাসড়ক অবরোধ করেন। শান্তিপূর্ণভাবে কর্মসূচি পালন করা হচ্ছিল। কিন্তু পুলিশ সেখানে গিয়ে তাদের সরানোর চেষ্টা করে। তারা দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত রাজপথে থাকতে চাইলে পুলিশ লাঠিচার্জ করে তাদের ছত্রভঙ্গ করে দেয়। এতে অন্তত ৩০ জন শিক্ষার্থী আহত হন।
বাগেরহাট ম্যাটস এর সভাপতি মো. গোলাম রব্বানী ও সাধারণ সম্পাদক মো. ইয়ার মাহমুদ জানান, দেশব্যাপী বিক্ষোভ কর্মসূচির অংশ হিসেবে তারা বিক্ষোভ মিছিল করে শহরের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে দড়াটানা ব্রিজের সামনের সড়কে অবস্থান করেন। এসময় পুলিশ আমাদের উপর চাড়াও হয়।
পুলিশ সুপার পংকজচন্দ্র রায় বলেন, ‘এখানকার ম্যাটসের শিক্ষার্থীরা যে চার দফা দাবি আদায়ের আন্দোলনে নেমেছে তা বাস্তবায়নের দায়িত্ব সরকারের। তারা খুলনা-বরিশাল সড়কের ওপর বসে থাকায় দীর্ঘ যানজটের সৃষ্টি হয়। এতে সাধারণ মানুষ ভোগান্তিতে পড়ে। আমি সেখানে গিয়ে তাদের বুঝিয়ে শান্ত করি। শিক্ষার্থীরা রাস্তার ওপর থেকে সরে গেলে যান চলাচল স্বাভাবিক হয়। প্রচণ্ড দাবদাহে কিছু শিক্ষার্থী অসুস্থ হয়ে পড়ে।’
সূত্র : বাংলা ট্রিবিউন

আরও পড়ুন