বাঘারপাড়ায় বৃদ্ধকে গলা কেটে হত্যার অভিযোগ

আপডেট: 06:19:06 08/08/2018



img
img

স্টাফ রিপোর্টারবাঘারপাড়া (যশোর) প্রতিনিধি : বুধবার ভোররাতে বাঘারপাড়ায় তফসির মোল্যা (৭৫) নামে এক বৃদ্ধকে গলা কেটে হত্যা করা হয়েছে বলে অভিযোগ করা হচ্ছে।
নিহতের পরিবারের অভিযোগ, মানবতাবিরোধী অপরাধে অভিযুক্ত ‘রাজাকার’ আমজাদ হোসেনের মামলায় সাক্ষ্যদান সংক্রান্ত ঘটনায় তাকে খুন করা হয়েছে। পুলিশ হত্যাকাণ্ডটি গুরুত্বের সাথে তদন্ত করবে বলে জানিয়েছেন থানার ওসি।
নিহতের চাচাতোভাই এবং মানবতাবিরোধী মামলায় অভিযুক্ত ‘রাজাকার’ আমজাদ হোসেনের মামলার সাক্ষী ইয়াহহিয়া রহমান জানান, মামলায় সাক্ষ্য দিতে নিসেধ করে আমজাদের ছেলে খোকন ও তার বাহিনী। তারা শাসায়, ‘যদি সাক্ষ্য থেকে না ফিরে আসেন, তাহলে তার বংশে বাদী হওয়ার মতো কাউকে রাখা হবে না।‘ কিন্তু তিনি সিদ্ধান্তে অবিচল থাকায় তার ভাইকে নৃশংসভাবে গলা কেটে হত্যা করা হয়েছে। মঙ্গলবার রাতে তার ভাই তফসির বাঘারপাড়া উপজেলার প্রেমচারা গ্রামের নিজবাড়ির বারান্দায় ঘুমিয়ে ছিলেন। ভোররাতে সন্ত্রাসীরা তাকে গলা কেটে হত্যা করে। এ হত্যাকাণ্ডে খোকন ও তার বাহিনীর সদস্য জাহিদুল, টুটুল মণ্ডল, জুলফিকার, মানিক, আলম, আশিক, শহিদুল, মনির, তোরাব জড়িত বলে তিনি অভিযোগ করেন্।
তিনি আরো জানান, কয়েকমাস আগেও তারা ভাই খালেক ও ভাইপো জহিরকে দুই দফা ব্যাপক মারধর করে। তারা হাসপাতাল থেকে চিকিৎসাও নিয়েছেন।
বন্দবিলা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান সবদুল হোসেন খান সুবর্ণভূমিকে বলেন, ‘আমজাদের বিরুদ্ধে মানবতাবিরোধী মামলা হওয়ার পর থেকেই দুটি পক্ষের মধ্যে দ্বন্দ্ব শুরু হয়। প্রায় এক বছর ধরে দুই পক্ষের মধ্যে গণ্ডগোল চলে আসছে। দুই মাস আগে ওই পক্ষের জবেদ আলী নামে একজন খুনও হয়। তফসির হত্যাকাণ্ড তারই ধারাবাহিকতা বলে স্থানীয়দের ধারণা।’
যোগাযোগ করা হলে বাঘারপাড়া থানার ওসি মনিরুল আলম বলেন, ‘সকালে খবর পেয়ে মরদেহটি উদ্ধার করে যশোর জেনারেল হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। কে বা কারা কেনো এই হত্যাকাণ্ডটি ঘটিয়েছে- সে বিষয়ে আমরা গুরুত্ব দিয়ে অনুসন্ধান কাজ শুরু করেছি।’

এদিকে, দুপুরে হাসপাতাল মর্গ থেকে তফসিরের মরদেহ নিয়ে মিছিলসহকারে প্রেসক্লাবের সামনে আসেন এলাকার লোকজন। তারা মরদেহ সামনে রেখে মানববন্ধন করেন প্রেসক্লাবের সামনে।

আরও পড়ুন