বাঘারপাড়ায় স্বামীর পক্ষে প্রচারণায় সাথী

আপডেট: 03:22:25 20/03/2019



img

চন্দন দাস, বাঘারপাড়া (যশোর) : উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের দিন যতই ঘনিয়ে আসছে বাঘারপাড়ায় প্রার্থীদের ব্যস্ততা ততই বেড়ে চলেছে। প্রচার-প্রচারণায় নানা কৌশল অবলম্বন করছেন প্রার্থীরা। দলীয় নেতা-কর্মীদের পাশাপাশি পরিবারের সদস্যরাও নামছেন প্রচারণায়।
আওয়ামী লীগের দলীয় মনোনয়ন চেয়ে ব্যর্থ হয়ে স্বতন্ত্র প্রার্থী হয়েছেন জেলা আওয়ামী লীগ নেতা ও সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান নাজমুল ইসলাম কাজল। দলীয় কর্মীবাহিনীর পাশাপাশি তার (নাজমুল ইসলাম কাজল) পক্ষে প্রচারণায় মাঠে নেমেছেন স্ত্রী সাথী ইসলাম। প্রতিদিনই তিনি (সাথী ইসলাম) লিফলেট হাতে ঘুরছেন উপজেলার এ প্রান্ত থেকে ও প্রান্তে। এ সময় সাথী ইসলাম তার স্বামীকে আনারস প্রতীকে ভোট দিতে আহ্বান জানিয়ে নানা প্রতিশ্রুতি দিচ্ছেন। নতুন মাত্রা যোগ করতেই তিনি প্রচারণায় নেমেছেন বলে মনে করছেন কাজলের কর্মী-সমর্থকরা।
এই সপ্তাহে সাথী ইসলাম দিন-রাত প্রচারণা চালান দরাজহাট ইউনিয়নের ছাতিয়ানতলা, হাবুল্যা, পাইকপাড়া, কড়াইতলা, রায়পুর ইউনিয়নের শেখেরবাতান, নারিকেলবাড়িয়া ইউনিয়নের অন্তারামপুর, দোহাকুলা ইউনিয়নের ঢেপখালিসহ পৌর এলাকায়।
প্রচারণাকালে তিনি বলেন, আনারস প্রতীকের জোয়ার শুরু হয়েছে। মানুষ নাজমুল ইসলাম কাজলকে ভোট দেওয়ার অপেক্ষায় রয়েছে।
সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘ছোটবেলা থেকেই রাজনীতির মধ্যে বেড়ে উঠেছি। বাবা সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়েছিলেন।’
এ উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে মোট ছয়জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নেমেছেন। এর মধ্যে নৌকা প্রতীক নিয়ে লড়ছেন উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সম্পাদক হাসান আলী, রায়পুর ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান মঞ্জুর রশিদ স্বপন (মোটরসাইকেল), উপজেলা বিএনপির সাবেক সাধারণ সম্পাদক ও সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান আবু তাহের সিদ্দিকী (দোয়াত-কলম), ইসলামী ঐক্যজোটের মিজানুর রহমান (মিনার) এবং ন্যাশনাল পিপলস পার্টির (এনপিপি) আলী জিন্নাহ (আম)।
প্রার্থীদের মধ্যে মিজানুর ও আলী জিন্নাহর পক্ষে কোনো প্রচারণা লক্ষ্য করা যায়নি। তাদের পোস্টার সাঁটানো নেই কোথাও। বের হয়নি প্রচার মাইকও।
নয়টি ইউনিয়ন ও একটি পৌরসভা নিয়ে গঠিত যশোরের বাঘারপাড়া উপজেলা। দুই লক্ষাধিক জনসংখ্যার এ উপজেলায় রয়েছেন এক লাখ ৬৫ হাজার ১২২ জন ভোটার। আগামী ৩১ মার্চ অনুষ্ঠিত হবে বাঘারপাড়া উপজেলা পরিষদ নির্বাচন।

আরও পড়ুন