বিষ দিয়ে বীজতলা নষ্ট, চাষিদের মাথায় হাত

আপডেট: 08:34:36 03/01/2017



img

মাগুরা প্রতিনিধি : মাগুরা সদর উপজেলার বাগডাঙ্গা কালিনগর গ্রামে এক একর জমির বোরো ধানের বীজতলা কীটনাশক দিয়ে নষ্ট করেছে দুর্বৃত্তরা। এতে ২০ থেকে ২৫ একর জমির বোরো আবাদ বন্ধ হয়ে যাওয়ার আশঙ্কা করছে কৃষি বিভাগসহ সংশ্লিষ্টরা। মৌসুমের শেষ সময়ে বীজতলা ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ায় ওই এলাকার শতাধিক কৃষক পরিবার চরম হতাশাগ্রস্ত হয়ে পড়েছেন।
মিঠুন বিশ্বাস, অরবিন্দু বিশ্বাসসহ ক্ষতিগ্রস্ত একাধিক কৃষক জানান, গত ক’দিন ধরে তারা মাঠে সেচ, সার দিয়ে বোরো ধান চাষের জন্য জমি তৈরি করেছেন। মঙ্গলবার সকালে তারা স্থানীয় কুমার নদীর চরে যান বীজতলা থেকে চারা তুলতে। কিন্তু সেখানে গিয়ে দেখতে পান গোটা নদীর চরে সব কৃষকের বোনা এক একর জমির বীজতলা শুকিয়ে মরে গেছে। পরে কৃষি বিভাগের কর্মকর্তাদের খবর দিলে তারা এসে পরীক্ষা করে জানান, ক্ষতিকারক কীটনাশক স্প্রে করার কারণে বীজতলা মরে গেছে। প্রতিহিংসা পরায়ণ হয়ে দুর্বৃত্তরা এ কাজ করেছে।
কৃষকরা চরম হতাশা ব্যাক্ত করে বলেন, এই ধান চাষের ওপর তাদের জীবন-জীবিকা। এ অবস্থায় তারা এখন দিশেহারা হয়ে পড়েছেন। এখন চিন্তা আগামী দিনে পরিবার নিয়ে কী খেয়ে বেচে থাকবেন।
উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা তানজির হোসেন বলেন, ‘এক একর জমির বীজতলার অধিকাংশ কীটনাশকের প্রভাবে মারা গেছে। এ বীজতলা দিয়ে ২০ থেকে ২৫ একর জমির ধান রোপণ করা যেতো। আমরা তাৎক্ষণিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত বীজতলায় পানি ছেটাতে কৃষকদের পরামর্শ দিলেও তাতে তেমন উপকার হয়নি।’
বীজতলা নষ্ট হওয়ায় এলাকার কমপক্ষে ৫০ জন কৃষক ক্ষতিগ্রস্ত হবেন বলে তিনি মনে করছেন।
সদর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা হাফিজ হাসান বলেন, ‘এখন বোরো রোপণের শেষ সময়। যে কারণে দেখতে হবে ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকদের জমিতে কোনো লেট ভ্যারাইটি করার পরামর্শ দেওয়া যায় কি-না।’
মাগুরার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার তারিকুল ইসলাম জানান, পুলিশকে কেউ বিষয়টি অবহিত করেনি। ক্ষতিগ্রস্তরা চাইলে পুলিশ তদন্ত করে যথাযথ আইনগত ব্যবস্থা নেবে।

আরও পড়ুন