বিয়ের দাবিতে অ্যারিস্টোফার্মা অফিসে তরুণীর অবস্থান

আপডেট: 07:24:05 24/05/2016



img

স্টাফ রিপোর্টার : বিয়ে করে স্ত্রীর মর্যাদা দেওয়ার দাবিতে রাজশাহীর এক তরুণী অবস্থান নিয়েছেন অ্যারিস্টোফার্মা যশোর এরিয়া অফিসে।
তার অভিযোগ এই ওষুধ কোম্পানির এরিয়া ম্যানেজার শরিফ হাসান রাজশাহী চাকরিকালে তার সঙ্গে প্রেমজ সম্পর্ক গড়ে তোলেন। বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে শরিফ হাসান তার সঙ্গে শারীরিক সম্পর্কও গড়ে তোলেন। কিন্তু পরে তিনি বিয়ে করতে অস্বীকার করেন এবং বদলি হয়ে যশোর চলে আসেন।
মঙ্গলবার সকালে ওই তরুণী যশোর শহরের একটি আবাসিক হোটেলে ওঠেন। সেখান থেকে সোজা যান অ্যারিস্টোফার্মার ঘোপ এলাকার এরিয়া অফিসে।
প্রত্যক্ষদর্শীরা বলছেন, তরুণীকে প্রথমে অফিসে ঢুকতে বাধা দেওয়া হয়। তাকে টেনেহিঁচড়ে বের করে দেওয়ার চেষ্টাও হয়। কিন্তু তরুণী শেষ পর্যন্ত অফিস ছাড়েননি।
বিকেলে সুবর্ণভূমির সঙ্গে কথা হয় তরুণীর। তার দাবি, যশোরে বদলি হয়ে আসার পর তিনি অনেক দিন ধরে শরিফ হাসানের পেছন পেছন ঘুরছেন। কিন্তু শরিফ তাকে বিয়ে করা তো দূরের কথা, পাত্তাই দিচ্ছেন না। বাধ্য হয়ে তিনি বিষয়টি শরিফের সহকর্মীদের জানাতে আজ অফিসে এসেছেন। যতক্ষণ শরিফ তাকে বিয়ে করতে রাজি না হবে, ততক্ষণ তিনি যশোর ছাড়বেন না বলে সাফ জানিয়ে দেন।
শুধু তা-ই নয়, সুবর্ণভূমির সঙ্গে আলাপকালে তরুণী তার পার্সে (ভ্যানিটি ব্যাগ) রক্ষিত ছোরা, ব্লেড ও বিপুল সংখ্যক ঘুমের ওষুধ বের করে দেখান। বলেন, ‘ব্যর্থ হলে আমি আত্মহত্যা করব। এ ছাড়া আমার সামনে আর কোনো পথ খোলা নেই।’
ঘটনার ব্যাপারে অভিযুক্ত শরিফ হাসানের সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করা হয়। কিন্তু তাকে অফিসে পাওয়া যায়নি। তার কোনো সহকর্মীও শরিফের ফোন নাম্বার দিতে রাজি হননি।
তবে অ্যারিস্টোফার্মার যশোর ডিপো ইনচার্জ বিভাষ কুমার বলেন, ‘যেহেতু ঘটনার সঙ্গে তাদের কোম্পানির নাম জড়িয়ে গেছে, তাই বিষয়টি খতিয়ে দেখা হবে। প্রয়োজনে অভিযুক্ত কর্মকর্তার বিরুদ্ধে কর্তৃপক্ষ ব্যবস্থা নেবেন।’

আরও পড়ুন