বৃহস্পতিবার ভোরে যশোরে আঞ্চলিক ইজতেমা শুরু

আপডেট: 02:44:25 26/12/2017



img

স্টাফ রিপোর্টার : বৃহস্পতিবার ফজরের নামাজের পর আম বয়ানের মধ্যেদিয়ে যশোরে শুরু হচ্ছে আঞ্চলিক বিশ্ব ইজতেমা; যা তিনদিনের মাথায় আখেরি মোনাজাতের মাধ্যমে ৩০ ডিসেম্বর শনিবার শেষ হবে।
আগের মতো এবারো আঞ্চলিক ইজতেমা হবে উপশহরে। ইতিমধ্যে প্রস্তুতি প্রায় শেষ হয়েছে বলে আয়োজকরা জানিয়েছেন।
ইজতেমার প্রধান জিম্মাদার রেজাউল ইসলাম রাজু জানান, টঙ্গির বিশ্ব ইজতেমায় বিপুল লোকসমাগমের কারণে তাবলিগের মুরব্বিদের পরমর্শক্রমে ২০১১ সাল থেকে দেশের ৬৪টি জেলাকে দুইটি অংশে ভাগ করা হয়। ৩২ জেলার মুসল্লিরা একবছর টঙ্গির বিশ্ব ইজতেমায় অংশ নেন। অন্য ৩২ জেলা সংশ্লিষ্ট এলাকায় অঞ্চলভিত্তিক বিশ্ব ইজতেমার আয়োজন করে। গতবছর যশোর টঙ্গিতে বিশ্ব ইজতেমায় যোগ দিয়েছিল। সেই কারণে এবার স্থানীয়ভাবে আঞ্চলিক বিশ্ব ইজতেমা হচ্ছে এই জেলায়।
আয়োজকরা জানান, ইজতেমার মিম্বরের দক্ষিণ-পশ্চিম কোণায় নিয়ন্ত্রণ কেন্দ্র করা হয়েছে। এখান থেকে ইজতেমার যাবতীয় ঘোষণা প্রচার করা হবে। উত্তর-দক্ষিণ কোণ বিদেশি মেহমানদের জন্য নির্ধারণ করা হয়েছে। মূল ইজতেমার মাঠে (উপশহর ক্রীড়া উদ্যান) এক নম্বর খিত্তায় অবস্থান করবে বাঘারপাড়া উপজেলা; দুই নম্বরে সদরের লেবুতলা, চুড়ামনকাটি, নওয়াপাড়া, হৈবতপুর ও কাশিমপুর ইউনিয়ন, তিন নম্বরে সদর উপজেলার ফতেপুর, কচুয়া, ইছালী ও বসুন্দিয়া; চার নম্বরে সদরের দেয়াড়া, আরবপুর, চাঁচড়া, রামনগর ও নরেন্দ্রপুর, পাঁচ নম্বরে কেশবপুর উপজেলা, ছয় নম্বরে অভয়নগর উপজেলা; সাত নম্বরে মণিরামপুর উপজেলা; আট নম্বরে ঝিকরগাছা উপজেলা; নয় নম্বরে চৌগাছা এবং দশ নম্বর খিত্তায় অবস্থান করবেন শার্শা উপজেলার মুসল্লিরা। যশোর জেলার বাইরে থেকে আসা মুসল্লিরা আবস্থান করবেন পার্কে। উপশহর পার্ক ভরে গেলে অতিরিক্তরা বিভিন্ন খিত্তার সঙ্গে সমন্বয় করে থাকবেন।
মুসল্লিদের যানবাহন রাখার জন্য বিরামপুর স্কুল মাঠ নির্ধারণ করা হয়েছে।

আরও পড়ুন