ব্যবসায়ীকে আটকের প্রতিবাদে বেনাপোলে অবরোধ

আপডেট: 08:07:51 06/12/2017



img

স্টাফ রিপোর্টার : বেনাপোল বাজারের ব্যবসায়ী ও আমদানিকারক ভাই ভাই ফল ভান্ডারের মালিক রাজু শেখকে  বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি) কর্তৃক আটকের প্রতিবাদে মার্কেট সমিতির সদস্য ও কর্মচারীরা যশোর-বেনাপোল মহাসড়ক অবরোধ করে রাখেন। এর ফলে আমদানি করা পণ্যসহ সব ধরনের যানবাহন চলাচল বন্ধ হয়ে যায়।
বুধবার বেলা ২টার সময় মার্কেট মালিকরা সড়ক অবরোধের ডাক দিলে মুহূর্তের মধ্যে যশোর-বেনাপোল মহাসড়কের ওপর ছোট ছোট গাছের গুঁড়ি, খাট-চৌকি , বাঁশ  ও টায়ার জ্বালিয়ে সড়ক অবরোধ করা হয় রাজুর মুক্তির দাবিতে।
বেনাপোল বাজারের ডাবলু মার্কেটের সভাপতি আনিসুর রহমান বলেন, ‘‘রাজু একজন বৈধ চা-পাতা আমদানিকারক। সে ভারত থেকে চা পাতা আমদানি করে ও দেশি চা পাতার সাথে মিশিয়ে ‘রাজু সুপার চা’ নামে প্যাকেটজাত করে গাড়িতে করে বিক্রি করে। এই মর্মে তার ট্রেড লাইসেন্স, আমদানি লাইসেন্সসহ ডিস্ট্রিবিউটার লাইসেন্স আছে। বুধবার তার গাড়ি নষ্ট হয়ে গেলে সে অটোরিকশায় করে চা-পাতা বিক্রি করতে গ্রামে গেলে পান্তাপাড়া এলাকায় তার গাড়ি আটক করে বিজিবি ক্যাম্পে নিয়ে আসে। এরপর চাহিদামতো রাজু তার কাগজপত্র নিয়ে বিজিবির ক্যাম্পে যায়। এ সময় বিজিবি তার কাগজপত্র না দেখে তাকে থানায় চালান দিয়ে দেয়।’’
গাড়িতে ৩৮০ কেজি চা-পাতা ছিল বলে তিনি জানান। রাজুকে চালান দেওয়ার খবর বাজারে পৌঁছালে মার্কেট মালিক সমিতি সড়ক অবরোধের ডাক দেয়।
ঘটনাস্থল বেনাপোল বাজারের প্রানকেন্দ্র নুর শপিং কমপ্লেক্স ও ডাবলু মার্কেটের সামনে বিকেল সাড়ে চারটার সময় গিয়ে দেখা যায়, বেনাপোল পোর্ট থানা পুলিশ সড়ক অবরোধকারীদের সরিয়ে দিয়ে যান চলাচলের জন্য রাস্তা থেকে সব কিছু সরিয়ে নিচ্ছে।
আটক রাজু দাবি করেন, বৈধ কাগজপত্র দেখানোর পরও তাকে জোর করে চালান দিয়েছে বিজিবি।
এক প্রশ্নের জবাবে তিনি দাবি করেন, ‘বিজিবি আমার কাগজপত্র পড়তে পারেনি। ওরা কাগজপত্র না পড়ে আমাকে ক্যাম্পে ডেকে নিয়ে চালান করে দেয়। আমার গাড়িতে যে ৩৮০ কেজি চা-পাতা ছিল তাও বিজিবি ক্যাম্পে রেখে দিয়েছে।’
এ ব্যাপারে বেনাপোল ক্যাম্পে ফোন করলে ফোনের অপর প্রান্ত থেকে ‘ব্যস্ত আছি, এখন কথা বলার সময় নেই’ বলে লাইন কেটে দেওয়া হয়।
বেনাপোল পোর্ট থানার এএসআই সুমন বলেন, ‘এ ঘটনায় বিজিবির পক্ষ থেকে থানায় একটি মামলা করা হয়েছে।’

আরও পড়ুন