ভেজাল সার কীটনাশক তৈরিই তার পেশা

আপডেট: 06:54:31 08/01/2019



img
img

মাগুরা প্রতিনিধি : মাগুরা সদর উপজেলার শ্রীকান্তপুর গ্রামে ভেজাল সার ও কীটনাশক তৈরির বড় ধরনের একটি কারখানার সন্ধান পেয়েছে কৃষি বিভাগ।
মঙ্গলবার বিকেলে মোস্তাফিজুর রহমান কাজল নামে এক ব্যক্তির অবৈধ কারখানা থেকে উদ্ধার হয়েছে বিপুল পরিমাণ ভেজাল সার ও কীটনাশক।
মাগুরা সদর উপজেলার সহকারী কমিশনার (ভূমি) মোহম্মদ মাহাবুবুল আলম ও সদর উপজেলার কৃষি কর্মকর্তা রুহুল আমীনের নেতৃত্বে একটি ভ্রাম্যমাণ আদালত এ অভিযান চালায়। অভিযানে উদ্ধার করা ভেজাল সার-কীটনাশকের মধ্যে রয়েছে চার হাজার ২০০ কেজি ম্যাগনেসিয়াম সালফেট, ৬২ বস্তা ডলোচুন, তিন হাজার ৭৬০ কেজি জিপসাম, ২৫ বস্তা পাথরকুচি, আট বস্তা বালি, ২৫ প্যাকেট দস্তা, কনফিডেন্স নামে বিপুল পরিমাণ ভেজাল কীটনাশকসহ কীটনাশক তৈরির ইন্ডাস্ট্রিয়াল রঙ ও নানা উপকরণ। এসব ভেজাল সার ও কীটনাশক বাজারে বিক্রি করে কাজল কমপক্ষে অর্ধকোটি টাকা অবৈধভাবে আয় করতেন বলে জানান ভ্রাম্যমাণ আদালতের কর্মকর্তারা।
সদর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা রুহুল আমীন জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে বিকেলে কাজলের এই কারখানায় অভিযান চালালে এসব মালামাল উদ্ধার হয়। দীর্ঘদিন ধরে কাজল এ কারখানায় এসব ভেজাল সার ও কীটনাশক ব্যবহার তৈরি করে বাজারজাত করছে; যা মাটির উর্বরতা বৃদ্ধির বিপরীতে ব্যাপক ক্ষতি করছে। পাশাপাশি এসব কীটনাশক কিনে কৃষকরা প্রতারিত হচ্ছেন। ক্ষতি হচ্ছে ফসলের। এ কারখানার বৈধ কোনো কাগজপত্র নেই। অভিযানের খবর পেয়ে মালিক কাজল পালিয়ে যান। কাজলের কারখানার ব্যবস্থাপক মফিজুর রহমানকে আটক করা হয়েছে।
রুহুল আমীন আরো জানান, কাজল অতীতে ভেজাল সার ও কীটনাশসহ একাধিকবার ধরা পড়ে জেলহাজতে গেছেন। কিন্তু পরে জামিনে বেরিয়ে এসে স্থান বদল করে নতুন কারখানা গড়ে আবার অপকর্মে লিপ্ত হন। আগে সদর উপজেলার রাঘবদাইড়, ছোট ব্রিজ এলাকায় তার কারখানা ছিল।

আরও পড়ুন