মহেশপুরে অপচিকিৎসায় কৃষক পঙ্গুত্বের পথে

আপডেট: 07:46:06 06/10/2018



img

মহেশপুর (ঝিনাইদহ) প্রতিনিধি : আনিচুর রহমান ওরফে কামরুল ইসলাম নামে বেলেমাঠ বাজারের এক হাতুড়ে ডাক্তারের অপচিকিৎসায় মনির হোসেন নামের এক কৃষক পঙ্গু হতে চলেছেন।
অসুস্থ মনির হোসেন হাতুড়ে ডাক্তার আনিচুর রহমান ওরফে কামরুল ইসলামের বিরুদ্ধে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে লিখিত অভিযোগ করেছেন।
মনির হোসেন ঝিনাইদহের মহেশপুর উপজেলার হুদাশ্রীরামপুর গ্রামের মুজিবুল হকের ছেলে।
মনির হোসেন বলেন, ‘মহেশপুর উপজেলার বেলেমাঠ বাজারের ‘জিসান ফার্মেসী’তে ব্যথার ওষুধ কিনতে গিয়েছিলাম। ফার্মেমির মালিক আনিচুর রহমান (কামরুল) ব্যথার ওষুধ না দিয়ে আমাকে হাঁটু ও পায়ের গোড়ালিতে দুটি ইনজেকশন পুশ করেন। ইনজেকশন দেওয়ার পর থেকে আমার হাঁটু ও পায়ের গোড়ালি ফুলে যায়।’
বাজারের কয়েকজন ব্যবসায়ী জানান, আনিচুর রহমান ওরফে কামরুল কোনো প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত ডাক্তার না। তিনি আগে সেনাবাহিনীতে চাকরি করতেন। অবসর নেওয়ার পর ফার্মেসি খুলে বসেছেন। তিনি কীভাবে রোগীর শরীরে ইনজেকশন পুশ করেন- সেই প্রশ্ন ব্যবসায়ীদের।
জিসান ফার্মেসীর মালিক আনিচুর রহমান কামরুল রোগী মনিরের পায়ে ইনজেকশন দেওয়ার কথা স্বীকার করেছেন।
তিনি বলেন, ‘আমি মনিরের পায়ে একটি ইনজেকশন দিয়েছিলাম। পরে সে অসুস্থ হয়ে পড়লে মহেশপুরের রায়হান ভাই সাংবাদিক রহমানসহ কয়েকজনে বসে কিছু টাকা ক্ষতিপূরণ দিয়ে আমি মীমাংসা করে নিয়েছি।’
উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের কর্মকর্তা ডা. নাসির উদ্দিন বলেন, ‘ভালো ডাক্তার বা ডাক্তারের ব্যবস্থাপত্র ছাড়া কেউই পায়ের বা শরীরের কোনো শিরায় ইনজেকশন দিতে পারে না। যদি কেউ দেয় তাহলে সে অন্যায় করেছে।’
উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শাশ্বতী শীল বলেন, ‘অভিযোগটি ব্যস্ততার কারণে এখনো দেখতে পারিনি। অভিযোগটি দেখে ব্যবস্থা নেবো।’

আরও পড়ুন