মাগুরায় কাত্যায়নী পূজার ব্যাপক আয়োজন

আপডেট: 07:00:13 03/11/2016



img
img

শিমুল হাসান, মাগুরা : মাগুরার ঐতিহ্যবাহী কাত্যায়নী পূজা শুরু হচ্ছে আগামী ৬ নভেম্বর রোববার। চলবে ১০ নভেম্বর বৃহস্পতিবার পর্যন্ত। পূজার পরে মেলা চলবে একমাস।
এ বছর পূজার আয়োজনকে আরো আকর্ষণীয় করতে চলছে নানা থিমের প্রতিমা তৈরি, নতুন নতুন ডিজাইনের গেট-প্যান্ডেল, ডিসপ্লে ও লাইটিং স্থাপনের কাজ। শেষ সময়ে এসে প্রতিটি মণ্ডপে দিন-রাত চলছে ব্যাপক কর্মযজ্ঞ।
দরিমাগুরা ছানা বাবুর বটতলা পূজা কমিটি সাধারণ সম্পাদক বিকাশ সাহা বলেন, ‘দেশ-বিদেশের লাখ লাখ দর্শণার্থীর আগমনের কথা মাথায় রেখে এবছর তারা একদম নতুন আঙ্গিকে প্রতিমা তৈরি করেছেন। আলোকসজ্জা ও ডিসপ্লের পাশাপাশি রামায়ণে বর্ণিত কাহিনি অনুসারে তৈরি হচ্ছে গেট-প্যান্ডেল। গেট-প্যান্ডেলে ফুটে উঠেছে রামভক্ত পবনপুত্র হনুমান লক্ষণকে বাঁচাতে গন্ধমাদম পাহাড় হাতে করে নেমে আসছেন।’
দরিমাগুরা মন্দিরের প্রতিমাশিল্পী উজ্জ্বলগুরু বলেন, ‘আমি নতুন থিমের প্রতিমা তৈরি করেছি। সেখানে দেখা যাবে, মা কাত্যায়নী অশুভ শক্তি অসূর নিধন করে স্বর্গ থেকে বটবৃক্ষের মাঝ থেকে তার ছেলে-মেয়েদের নিয়ে মর্তলোকে আসছেন। বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বপ্রাপ্ত সন্তানরা স্ব-স্ব দায়িত্ব পালনে ব্যস্ত রয়েছেন।’
একইভাবে নিজনান্দুয়ালী নিতাইগৌর গোপাল আশ্রম, জামরুলতলা, নতুন বাজার সাহাপাড়া, পারনান্দুয়ালী, সাতদোহাপাড়া, বাটিকাডাঙ্গা পূজা কমিটির নেতারা জানান, তারা এ বছর পূজার আয়োজন ভিন্নতা এনেছেন। দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে আসা দর্শনার্থীরা এবছর মাগুরার ঐতিহ্যবাহী কাত্যায়নী পূজা দেখে মুগ্ধ হবেন।
সমন্বিত কাত্যায়নী পূজা উদযাপন কমিটির আহ্বায়ক ও মাগুরা জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক পঙ্কজ কুণ্ডু জানান, জেলার ঐতিহ্যবাহী এ পূজার আনুষ্ঠানিকতায় শুধু হিন্দু ধর্মের মানুষেরা অংশ নেন। কিন্তু এতে সহযোগিতা করেন ও গোটা উৎসবে অংশ নেন সব ধর্মের মানুষ। যে কারণে কাত্যায়নী উৎসব মাগুরা জেলার সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির অনন্য দৃষ্টান্ত।
তিনি জানান, এ বছর জেলায় ৮৪টি মণ্ডপে কাত্যায়নী পূজা অনুষ্ঠিত হচ্ছে। মাগুরা শহরে ব্যাপক আয়োজনে হচ্ছে ১৪টি মণ্ডপে। দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে আসা দর্শনার্থীদের নিরাপত্তার জন্য তারা প্রশাসনের সঙ্গে সভা করেছেন। স্বেচ্ছাসেবক, আনসার, পুলিশ, র‌্যাব, বিজিবি সদস্যরা আইনশৃঙ্খলা রক্ষায় দায়িত্ব পালন করবেন।
মাগুরার পুলিশ সুপার এহসান উল্লাহ জানান, কাত্যায়নী পূজা চলাকালে আইনশৃঙ্খলা কঠোরভাবে নিয়ন্ত্রণে রাখা হবে। আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বিভিন্ন বাহিনীর পাশাপাশি থাকবে সাদা পোশাকে গোয়েন্দা নজরদারি। তাছাড়া গোটা শহর ও পূজামণ্ডপ এলাকায় বসানো হয়েছে সিসি ক্যামেরা।

আরও পড়ুন