মেয়াদোত্তীর্ণ কোমল পানীয়ে নতুন তারিখ বসানো হচ্ছিল

আপডেট: 12:48:54 09/01/2017



img
img

মণিরামপুর (যশোর) প্রতিনিধি : কোমল পানীয় কোকা কোলা ও স্প্রাইটের বোতলের পুরনো তারিখ মুছে সেখানে মেয়াদোত্তীর্ণের নতুন তারিখ বসানোর অভিযোগে মণিরামপুরে দুইজনকে এক বছর করে বিনাশ্রম কারাদণ্ড দিয়েছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত।
রোববার রাত সাড়ে ১০টার দিকে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহম্মদ অতুল মণ্ডল এবং নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও সহকারী কমিশনার (ভূমি) লিংকন বিশ্বাস আদালত পরিচালনা করে এদের সাজা দেন। এসময় আদালত ডিলার মফিজুর রহমান মফিজের গোডাউন সিলগালা করে দেন।
সাজাপ্রাপ্ত দুইজন হলেন, শহরের হাকোবা এলাকার আলম (২৫) ও বসুন্দিয়া গ্রামের সোহেল রানা (২৪)। আলম কোমল পানীয়র ডিলার মফিজুর রহমানের ছেলে। আর সোহেল স্প্রাইট কোম্পানির এসআর। তার বাবার নাম নান্নু গাজী।
প্রত্যক্ষদর্শী ও আদালত সূত্র জানায়, আলম ও সোহেল মেয়াদোত্তীর্ণ কোমল পানীয় কোকা কোলা ও স্প্রাইটের বোতলের লেভেল মুছে সেগুলোর গায়ে নতুন করে সিল মারছিলেন। গোপন সংবাদের ভিত্তিতে রোববার রাত ৯টার দিকে আদালত মণিরামপুর শহরের গোহাটা মসজিদের পিছনে ব্যবসায়ী মফিজের গোডাউনে অভিযান চালিয়ে ওই দুইজনকে আটক করেন। এরপর তাদের স্বীকারোক্তিতে আদালত বিপুল পরিমাণ মেয়াদোত্তীর্ণ মালামাল জব্দ করেন।
আলম ও সোহেল আদালতকে জানিয়েছেন, কোকা কোলা কোম্পানির যশোর অঞ্চলের এরিয়া সেলস অফিসার মাহফুজ ও এরিয়া সেলস ম্যানেজার বাসার এই সিল কালিসহ বিভিন্ন উপাদান তাদেরকে সরববরাহ করে একাজের নির্দেশ দিয়েছেন। ওই দুই কর্মকর্তার নির্দেশে গত তিনমাস ধরে তারা একাজ করছেন।
আলম ও সোহেল বলেন, ‘স্যাররা আমাদের বলেছে এসব মালের মেয়াদ শেষ হলেও আরও দুই-তিন মাস খেলেও কোনো সমস্যা হয় না। এই পর্যন্ত তারা এক হাজারেরও বেশি বোতলে নতুন করে লেভেল লাগিয়েছেন।’
আটক দুইজন আদালতের কাছে দোষ স্বীকার করায় তাদের এক বছর করে বিনাশ্রম কারাদণ্ড দেওয়া হয়।
আদালতের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মোহম্মদ অতুল মণ্ডল জানান, ধরা পড়া দুইজন নিজেদের দোষ স্বেচ্ছায় স্বীকার করে নিয়েছেন। ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ আইনের ৫১ ধারায় তাদের এক বছর করে কারাদণ্ড ও গোডাউন সিলগালা করে দেওয়া হয়েছে।
আদালত চলাকালে বেঞ্চ সহকারী হিসেবে আব্দুল মান্নান, এসআই ফিরোজ উপস্থিত ছিলেন।

আরও পড়ুন