যুবককে পিটুনি, ইয়াবা দিয়ে চাঁদা দাবি

আপডেট: 10:14:49 12/06/2018



img

চৌগাছা (যশোর) প্রতিনিধি : চৌগাছায় আব্দুস সালাম নামে এক যুবককে অপহরণ করে চাঁদা না পেয়ে মারপিট করে পুলিশ পরিচয়ে বাবার কাছে চাঁদা দাবি করেছে দুর্বৃত্তরা। এ বিষয়ে চৌগাছা থানায় লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন।
আব্দুস সালাম চৌগাছা পৌরসভা শহরের পাঁচনমনা এলাকার নূরশেদ আলীর ছেলে।
সালাম চৌগাছা থানায় লিখিত অভিযোগে বলেছেন, চলতি মাদকবিরোধী অভিযানে পুলিশকে মাদক ব্যবসায়ের তথ্য দেওয়ায় উপজেলার সিংহঝুলী ইউনিয়নের জাহাঙ্গীরপুর গ্রামের সলেমান হোসেনের ছেলে মনি ও আব্দুল, দাউদ হোসেনের ছেলে লিটন ও টিটন, একই গ্রামের নূর মোহাম্মদের ছেলে হাফিজুর তার ওপর ক্ষিপ্ত হয়ে ৬০ হাজার টাকা চাঁদা দাবি করে। চাঁদা দিতে অস্বীকার করায় গত রোববার সন্ধ্যা সাতটার দিকে উল্লিখিত ব্যক্তিসহ অজ্ঞাত ৫-৬ ব্যক্তি সিংহঝুলী বাজার থেকে তাকে তুলে নিয়ে যায়। তারা জাহাঙ্গীরপুর গ্রামের ধুলোর বিল মাঠের একটি মেহগনিবাগানে নিয়ে চাঁদা দাবি করে। তিনি চাঁদা দিতে অস্বীকার করলে মেহগনিগাছের সঙ্গে বেঁধে লাঠি দিয়ে বেদম মারপিট করে এবং তার কাছে থাকা দুই হাজার ৩০০ টাকা ছিনিয়ে নেয়। একপর্যায়ে গ্রামের লোকজন সেখানে এলে মাদক ব্যবসায়ীরা সালামকে গ্রামের ইউপি সদস্য রিপন হোসেনের কাছে হাজির করে। এরপর তারা পুলিশ পরিচয়ে তার বাবার কাছে ৬০ হাজার টাকা চাঁদা দাবি করে।
খবর পেয়ে আব্দুস সালামের বাবা নূরশেদ তার স্বজনদের নিয়ে মুচলেকা দিয়ে রিপন মেম্বারের কাছ থেকে তাকে উদ্ধার করে নিয়ে আসেন।
সাংবাদিকদের আব্দুস সালাম বলেছেন, ‘মনি ও আব্দুল এবং লিটন ও টিটন আপন চাচাতো ভাই। তারা ইয়াবার ব্যবসা করে। কিছুদিন আগে এই মনি ১০০ ইয়াবা ট্যাবলেটসহ ডিবি পুলিশের হাতে আটক হয়। এঘটনায় তারা আমাকে দায়ী করে শায়েস্তা করতে চেয়েছিল।’
আব্দুস সালামের দাবি, ওই দুর্বৃত্তরা টাকা না পেয়ে তার হাতে পাঁচটি ইয়াবা ধরিয়ে দিয়ে ভিডিও করে রেখেছে। পরে তাকে পুলিশের কাছে ধরিয়ে দেওয়ার জন্য এই কাজ করা হয়েছে।
‘কিন্তু চৌগাছা থানার এসআই ফজের আলী ঘটনাস্থলে গিয়ে ইয়াবা থাকার সত্যতা না পেয়ে আমাকে মেম্বারের জিম্মায় দিয়ে পরিবারের কাছে হস্তান্তরের নির্দেশ দেন। পরে আমার বাবা লিখিত দিয়ে আমাকে ছাড়িয়ে নিয়ে আসে।’
সালামের বাবা নূরশেদ আলী বলেন, ‘ছেলেকে মুচলেকা দিয়ে ছাড়িয়ে এনেছি।’
এবিষয়ে চৌগাছা থানার উপ-পরিদর্শক ফজের আলী বলেন, ‘গোপন সংবাদের ভিত্তিতে ঘটনাস্থলে গিয়ে অভিযোগের কোনো সত্যতা না পাওয়ায় সালাম নামের ওই যুবককে মেম্বারের জিম্মায় দিয়ে তার পরিবারের কাছে হস্তান্তর করতে বলি। পরে আজ এঘটনায় আব্দুস সালাম থানায় এসে একটি লিখিত অভিযোগ দিয়েছে।’
চৌগাছা থানার ওসি খন্দকার শামীম উদ্দিন বলেন, লিখিত অভিযোগ পাওয়া গেছে। মামলাটি প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।

আরও পড়ুন