যৌতুকের দাবিতে স্ত্রী-সন্তানকে তাড়িয়ে নাবালিকা বিয়ে!

আপডেট: 08:00:30 12/11/2016



img

বাগেরহাট প্রতিনিধি : বাগেরহাটে যৌতুকের দাবিতে স্ত্রী ও শিশু মেয়েকে তাড়িয়ে দিয়ে এক নাবালিকাকে দ্বিতীয় বিয়ে করার অভিযোগ উঠেছে মো. আরিফুজ্জামান ঢালী নামে এক ব্যক্তির বিরুদ্ধে। শুধু তাই নয়, প্রথম বউ এবং তার পরিবারের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানি করা হচ্ছে বলেও অভিযোগ করা হচ্ছে।
শনিবার দুপুরে বাগেরহাট প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলনের এমন অভিযোগ করেন আয়েশা সিদ্দিকা তানিয়া নামে এক গৃহবধূ। এসময় তার সঙ্গে এক বছর বয়সী মেয়ে আরিশা সিদ্দিকাও উপস্থিত ছিল।
সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে আয়েশা সিদ্দিকা তানিয়া বলেন, ''২০১৪ সালে ২৮ ফেব্রুয়ারি এটিএন বাংলার বাগেরহাট জেলা প্রতিনিধির পরিচয় দিয়ে বাগেরহাট সদরের সুগন্ধি গ্রামের আশ্রাফ ঢালীর ছেলে মো. আরিফুজ্জামান ঢালী তাকে বিয়ে করেন। বিয়ের পর আমি জানতে পারি, শ্বশুর একজন ভণ্ড কবিরাজ, এলাকায় ‘জিন বাবা’ হিসাবে পরিচিত। শ্বশুর আমাকেও এই ব্যবসায় নামানোরও চেষ্টা করেন। এসব কাজে আমি বাধা দেওয়ায় স্বামী ও শ্বশুরবাড়ির লোকজন আমাকে যৌতুকের দাবিতে অত্যাচার নির্যাতন শুরু করে।''
তিনি জানান, সংসারে সুখ-শান্তির কথা চিন্তা করে তার বাবা স্বর্ণালংকার ও আসবাবপত্রসহ প্রায় দশ লাখ টাকার মালামাল যৌতুকও প্রদান করেন। এরপরও আরো নগদ তিন লাখ টাকা যৌতুকের দাবিতে নির্যাতন শুরু করলে প্রাণ বাঁচাতে অন্তঃসত্ত্বা তানিয়া খুলনায় তার মামাবাগিতে গিয়ে আশ্রয় নেন।
যৌতুক না পেয়ে সুচতুর আরিফ তার শ্বশুর (তানিয়ার বাবা) জাহিদুর রহমান জাকিরের নামে মিথ্যা মামলা ঠুঁকে দেন। ওই মামলায় পুলিশ তাকে গ্রেফতার করে বাগেরহাট কারাগারে পাঠায়।
তানিয়া দাবি করেন, গত সপ্তাহে তার স্বামী বাগেরহাট সদরের নোনাডাঙ্গা গ্রামে এক নাবালিকাকে বিয়ে করেন।
সংবাদ সম্মেলনে তানিয়া ছাড়াও তার স্বজনরা উপস্থিত ছিলেন।

আরও পড়ুন