লোহাগড়ায় কুমারী মায়ের সন্তান ছিনতাই!

আপডেট: 06:58:26 06/12/2017



img

লোহাগড়া (নড়াইল ) প্রতিনিধি : লোহাগড়া উপজেলার ধলইতলা গ্রামে লম্পট যুবকের লালসার শিকার এক কুমারী সন্তান জন্ম দিয়েছেন। তবে স্থানীয় প্রভাবশালীরা কেড়ে নিয়ে গেছে ওই নবজাতককে। ভয়ে পুলিশ কিংবা আইনের সহযোগিতা নিতেও সাহস পাচ্ছেন না ওই তরুণী মা।
স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার একটি গ্রামের মৃত ইলিয়াস ভূঁইয়ার স্ত্রী ও সন্তানরা নিজেদের খুপড়ি ঘরে বসবাস করেন। অভাবের সংসার তাদের। নয় মাস আগে পাশের গ্রামের মৃত মোস্ত শেখের লম্পট ছেলে নয়ন শেখ (৩০) ইলিয়াস ভূঁইয়ার যুবতী মেয়েকে ঘরের মধ্যে ঢুকে ধর্ষণ করে। মেয়েটি লোকলজ্জায় ঘটনাটি কাউকে জানাননি। এক পর্যায়ে তিনি গর্ভবতী হয়ে পড়লে পরিবারের সদস্যদের কাছে সবকিছু খুলে বলেন। পরে মেয়েটির মা গ্রামের লোকজন ও লম্পট নয়নের পরিবারের কাছে বিচার চেয়েও পাননি। উল্টো চাপের মুখে পড়েন তারা।
এদিকে, নির্ধারিত সময়ে গত শুক্রবার রাতে মেয়েটি বাড়িতে ছেলেসন্তান প্রসব করেন। বিষয়টি জানাজানির পর মঙ্গলবার বিকেলে নয়নের বন্ধু গ্রামের প্রভাবশালী সোহাগ গাজী, হাফিজুরসহ ৪-৫ জন ভয়ভীতি দেখিয়ে ওই মেয়েটির কাছ থেকে নবজাতকটিকে নিয়ে যায়। শিশুটির মা ও তার পরিবারের সদস্যরা নবজাতকের খোঁজ পাচ্ছেন না। প্রভাবশারীদের ভয়ে থানা বা আইনের সহযোগিতা নিতেও সাহস পাচ্ছেন না তারা।
ভুক্তভোগী মেয়েটি বলেন, ‘নয়নের লোকজন আমাকে ও আমার পরিবারকে নানা ভয় দেখিয়ে আমার সন্তানকে নিয়ে চলে গেছে। জানি না আমার বাচ্চাটি কোথায়। আমি আমার সন্তানকে ফিরে পেতে চাই। ঘটনায় জড়িত নয়নের বিচার চাই।’
মেয়েটির ভাই সৈকতও বোনের সম্ভ্রমহানির ন্যায্য বিচার দাবি করেন।
এ ব্যাপারে অভিযুক্ত নয়নের সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করেও তাকে পাওয়া যায়নি।
ওই এলাকার সাবেক ইউপি সদস্য পলাশ হোসেন জানান, মেয়েটিকে নিয়ে চার মাস আগে শালিস বৈঠকে অভিযুক্ত নয়নকে ৫০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছিল। সে টাকাও ভুক্তভোগী বা তার পরিবারের সদস্যরা পাননি।
লোহাগড়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. শফিকুল ইসলাম বলেন, ‘ঘটনার ব্যাপারে কেউ কোনো অভিযোগ দেয়নি। তবে ভুক্তভোগীর বাড়িতে পুলিশ পাঠানো হয়েছিল। তাদের বাড়িতে পাওয়া যায়নি।’
অভিযোগ পেলে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে জানান ওসি।

আরও পড়ুন