লোহাগড়ায় চেয়ারম্যানের ‘দুর্নীতির’ প্রতিবাদ

আপডেট: 01:57:20 06/12/2018



img

নড়াইল প্রতিনিধি : লোহাগড়া উপজেলার লক্ষ্মীপাশা ইউপি চেয়ারম্যান কাজী বনি আমিনের বিরুদ্ধে সীমাহীন দুর্নীতি, অনিয়ম ও স্বেচ্ছাচারিতার প্রতিবাদে মানববন্ধন হয়েছে।
আজ বেলা ১১টায় লোহাগড়া উপজেলার দাসেরডাঙ্গা গ্রামে প্রকল্প এলাকায় গ্রামবাসীরা এ মানববন্ধন করেন।
মানববন্ধনে বক্তব্য দেন ইউপি সদস্য জিরু কাজী, আব্দুল আহাদ শেখ, রবিউল ইসলাম, হাফিজুর রহমান, মো. রেজাউল প্রমুখ।
বক্তারা বলেন, ইউপি চেয়ারম্যান কাজী বনি আমীন একজন চিহ্নিত দুর্নীতিবাজ। ৪০ দিনের কর্মসূচির কাজে ৫৪ জন মজুরের কাজ করার কথা থাকলেও প্রতিদিন দশ থেকে ১২ জন মজুর দিয়ে কাজ করান। সপ্তাহে পাঁচ দিন কাজ করার কথা থাকলেও তিন দিন কাজ হয়। এভাবে এ কর্মসূচি থেকে বিপুল টাকা আত্মসাৎ করে আসছেন চেয়ারম্যান।
তারা আরো অভিযোগ করেন, ভিজিডি কার্ড বিতরণে নির্বাচিত সদস্য ছাড়াই অনিয়মতান্ত্রিকভাবে নিজেই অর্থ গ্রহণের মাধ্যমে তালিকা প্রস্তুত করেছেন। বয়স্ক ভাতা, বিধবা ভাতা, মাতৃত্বকালীন ভাতা, প্রতিবন্ধী ভাতা- প্রতিটি ক্ষেত্রেই অবৈধ আর্থিক সুবিধা নিয়ে তালিকা প্রস্তুত করেছেন। কাবিখা, কাবিটা, টিআর, এলজিএসপি প্রতিটি প্রকল্পে কাউকে কিছু না জানিয়ে নিজেই কাগজ-কলমে কাজ দেখিয়ে অর্থ আত্মসাৎ করেছেন। এলজিএসপি-৩ প্রকল্পের নয় লাখ ৮৯ হাজার টাকা কীভাবে ব্যয় করেছেন তা কেউ জানে না। জমি কেনা থেকে আসা ১% টাকার কোনো হিসেব নেই। সংরক্ষিত মহিলা সদস্য (৪, ৫ ও ৬) ওমান প্রবাসী পারভীন সুলতানার স্বাক্ষর জালিয়াতি করে চেয়ারম্যান তার সম্মানী উত্তোলন করে আসছেন ২০১৭ সালের জুন মাস থেকে।
তিনি বিভিন্ন প্রকল্পের কাজ সম্পন্ন না করেই টাকা উত্তোলন করিয়েছেন। সরকারি অর্থে গৃহ নির্মাণ করে দেওয়ার কথা বলে শতাধিক লোকের কাছ থেকে পাঁচ হাজার করে টাকা নিয়েছেন। দুস্থ লোকদের ভিজিএফের কার্ডের অর্ধেক চাল বিতরণ না করে আত্মসাৎ করেছেন।
ইউপি চেয়ারম্যানরা অভিযোগ করেন, চেয়ারম্যান কাজী বনি আমীন তাদের কোনো মূল্যায়ন না করে নিজের ইচ্ছামতো সব কিছু করেন। ঠিকমতো পরিষদের সভা করেন না। সভা না করে রেজুলেশনে স্বাক্ষর দিতে বাধ্য করেন। কথায় কথায় দলীয় ভয় দেখান।
তারা ইউপি চেয়ারম্যান বনি আমিনকে ‘প্রতারক ও দুর্নীতিবাজ’ আখ্যা দিয়ে তার বিচার দাবি করেন। না হলে অনাস্থা উত্থাপনের হুঁশিয়ারিও দেন।

আরও পড়ুন