লোহাগড়ায় জমজমাট আইপিএল জুয়া

আপডেট: 03:11:24 05/05/2018



img

রূপক মুখার্জি, লোহাগড়া (নড়াইল) : ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগকে (আইপিএল) কেন্দ্র করে লোহাগড়ায় চলছে জমজমাট জুয়া।
শহর থেকে শুরু করে প্রত্যন্ত গ্রামাঞ্চলে ছড়িয়ে পড়েছে এই সর্বনাশা কারবার। মোবাইল ফোনের মাধ্যমে ঘরে বসেই এই জুয়ায় অংশ নেওয়া যায়।
জুয়া খেলে অনেকে আর্থিকভাবে লাভবান হচ্ছেন, আবার অনেকে খেলায় হেরে সর্বস্ব খোয়াচ্ছেন। অথচ বিষয়টি নিয়ে কর্তৃপক্ষের কোনো তাপ-উত্তাপ নেই।
খোঁজ-খবর নিয়ে জানা গেছে, বিগত ২০০৮ সালে ভারতে আইপিএল (ইন্ডিনিয়ান প্রিমিয়ার লিগ) ক্রিকেট শুরু হয়। উত্তেজনাপূর্ণ শ্বাসরুদ্ধকর এই লীগ খেলাকে কেন্দ্র করে ভারতজুড়ে চলে জমজমাট জুয়া খেলা।
গণমাধ্যমে এ সংক্রান্ত খবরাখবরও চোখে পড়ার মতো। ভারতের আইপিএল ক্রিকেট খেলার জনপ্রিয়তা এবং উন্মাদনার ঢেউ বাংলাদেশে আসতে বেশি সময় লাগেনি। সাম্প্রতিক সময়ে জুয়া খেলা শুধু শহরে সীমাবদ্ধ থাকেনি, গ্রামাঞ্চলেও ছড়িয়ে পড়েছে।
জুয়াড়িরা জানান, এই জুয়া খেলার ধরন হলো কোন দল জিতবে, কোন দল হার হারবে, সেই ব্যাপারে বাজি ধরা। এছাড়া আগামী বলে চার, নাকি ছক্কা, উইকেট পড়বে নাকি ১, ২ রান হবে, রান আউট হবে নাকি ক্যাচ আউট হবে, নাকি নো বল হবে ইত্যাদি বিষয়ে টাকা দিয়ে বাজি ধরতে হয়। সর্বনি¤œ ৫০ টাকা থেকে শুরু করে ২০-৩০ হাজার টাকার জুয়া খেলা হচ্ছে। তা ছাড়া, রেটের মাধ্যমেও এই জুয়া খেলা হচ্ছে। দুর্বল দলের পক্ষে ১০০ টাকায় ১৫ থেকে ২০ শতাংশ করে টাকা প্রদান করা হয়। জুয়া খেলার জন্য কেউ কেউ স্ত্রী, মা, বোনের গয়না বন্ধকও রাখছে। আবার কেউ কেউ জুয়া খেলে হাজার হাজার টাকা কামিয়ে নিচ্ছে। এই ফাঁদে পড়ে অনেকে ঋণগ্রস্ত হয়ে এলাকা ছাড়তে বাধ্য হচ্ছে। জনবহুল এলাকাগুলোতে এই জুয়া মারাত্মক আকার ধারণ করেছে।
অনুসন্ধানকালে আরও জানা গেছে, সর্বনাশা এই জুয়া খেলায় হাজার হাজার টাকা হেরে বিশু বিশ্বাস নামে একজন সেলুন ব্যবসায়ী এলাকা ছেড়ে বর্তমানে ঢাকায় অবস্থান করছেন। লোহাগড়ার বিধান বিশ্বাস নামে এক যুবক জুয়ায় করুণ পরিণতিবরণ করেছে। লোহাগড়ার পোদ্দারপাড়ার সোনার ব্যবসায়ী প্রতাপ সাহা ও বাপ্পারও একই অবস্থা। জয়পুর গ্রামের জাহিদেরও একই অবস্থা।
এই বিষয়ে যোগাযোগ করা হলে লোহাগড়া থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) শফিকুল ইসলাম বলেন, ‘অভিযোগ পেলে অবশ্যই জুয়াড়িদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।’

আরও পড়ুন