লোহাগড়ায় পানের দর ঊর্ধ্বমুখি

আপডেট: 02:14:19 07/03/2018



img
img

রূপক মুখার্জি, লোহাগড়া (নড়াইল) : পান উৎপাদনের জন্য বিখ্যাত লোহাগড়া এলাকায় এবার আবাদ ভালো হয়নি। ফলে হু হু করে বাড়ছে পানের দাম।
লোহাগড়া, লক্ষ্মীপাশা ও এড়েন্দা হাট-বাজার ঘুরে দেখা গেছে, খুব ছোট এক পোন (৮০টি) পান বিক্রি হচ্ছে ১৩০ টাকা থেকে ১৮০ টাকা। একটু বড় ও ভালো মানের পান বিক্রি হচ্ছে ২৫০ টাকা থেকে ৩০০ টাকা দরে। এ ছাড়া প্রতি খিলি পান ৫-৬ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে। খুচরো দোকানদাররা পাঁচ টাকার বিনিময়ে সাজতেন এক খিলি পান। এখন তাও বেড়েছে।
লক্ষ্মীপাশা বাজারের পান বিক্রেতা গোবিন্দ দে জানান, তীব্র শীত ও কুয়াশার কারণে এ বছর পানের বরজে ছত্রাকের আক্রমণ দেখা দেয়। ফলে, বরজের বেশিরভাগ পান ঝরে গেছে বা নষ্ট হয়ে গেছে। বরজে পান নেই বললেই চলে। এ কারণে বাজারে পানের দাম বেড়ে গেছে।
লোহাগড়া বাজারের পান ব্যবসায়ী দীপক মল্লিক জানান, প্রতি বছরই শীত মৌসুমে বরজের পান হলুদ বর্ণ ধারণ করে ঝরে যায়। গেল শীত মৌসুমে বরজের বেশির ভাগ পান ঝরে নষ্ট হয়ে গেছে। এতে করে বাজারে পানের সরবরাহ কমে গেছে। স্বাভাবিকভাবে দামও বেড়ে গেছে।
নিয়মিত বাজার থেকে পান কেনেন শহরের মশাঘুনি এলাকার আবদুর রাজ্জাক খান। তিনি বলেন, প্রতি বছরই শীত মৌসুমে পানের দাম বেড়ে থাকে। কিন্তু এ বছর পানের দাম অস্বাভাবিক ভাবে বেড়ে গেছে। ফলে, পান খাওয়া আগের তুলনায় কমে গেছে।
পানের দাম নিয়ে একই সুরে কথা বললেন শহরের লক্ষ্মীপাশা এলাকার বিপুল বিশ্বাস, পার-মল্লিকপুর গ্রামের দুলোল ঠাকুর, লক্ষ্মীপাশা গ্রামের তরিকুল ইসলাম।
এ ব্যাপারে উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের কর্মকর্তা সমরেন বিশ্বাস বলেন, প্রতিবছর শীতের সময় বরজে পানের কিছুটা ক্ষতি হয়। এ সময় বরজের অধিকাংশ পান ঝরে পড়ে। ফলে সাময়িকভাবে দাম বাড়লেও একটু বৃষ্টি হলেই নতুন পান বাজারে আসবে। তখন পানের দাম স্বাভাবিক হয়ে যাবে।

ছবি : তারিক হাসান বিপুল

আরও পড়ুন