শান্তনু চক্রবর্তীর পাঁচটি কবিতা

আপডেট: 01:19:04 05/01/2017



img

এসো প্রেম শিখি

১.
নেমে পড়ি লাবণ্য সাগরে
অবগাহন শেষে শুদ্ধ হয়ে সন্ন্যাস,
তারপর মোহমুক্তির সাধনায় মিশে যাও পর্বত পাদদেশে
পাখিদের পূর্ণতা নিয়ে উড়ে যাক মুক্ত বাতাস
স্বর্গ উদ্যানে।

২.
সুধা নয়, হেমলক যেচে নাও
চন্দ্রকলা নৃত্যের আসর ভরে উঠুক জ্যোৎস্নার ঘ্রাণে
কবিতার বৃন্তে ফুটুক শিউলির হাসি।

৩.
মৃত নদীতে ভেসে আসা প্রবীণ নৌকাখানা
ফিরে যাক প্রবাসী সমুদ্রঝড়ে
হেরোডোটাসের মূর্তি ফুঁড়ে প্রশস্ত জীবন
এক পশলা প্রেমে ধুয়ে হবে নির্বাণ লাভ।




শুক্লপক্ষ

সময়কে স্তব্ধ করো কবি
লাবণ্য হারিয়ে যাচ্ছে,
নিয়মের শ্বেতপাথরে গড়িয়ে পড়ছে যৌবনের প্রমাদ।
চাঁদের বুকে নকশা কুদে কুদে
ঝরে গেলো কলঙ্কের জ্যোৎস্নারা,
বসন্ত শেষে মুছে গেলে সবুজের হাসি
চায় না মরু বিহারে মরীচিকা হতে,
চোখে চোখ রাখ কবি
সময় থমকে যাক অনন্ত শতাব্দী।




কসমিক প্রেম

ভালোবাসার ফিউজ কেটে গেলে
পৃথিবীটা অন্ধকারের নাট্যশালায় ডুব দেয়
মন্দিরা আর পাখোয়াজি ছন্দে
ভরে যায় ছন্নছাড়া পপগীত,
উত্তর মেরু থেকে ভেসে আসা
হৈমন্তী শেয়ালের বেসুরো আর্তনাদে
জেগে ওঠে মধ্যরাতের সজ্জা!
কামরসের যবনিকা!
শরীরে অঝোর বৃষ্টি নামলে
গ্রন্থিতে জমে ওঠে প্রার্থনার সুর।
ফেরেলের সূত্র ধরে ধেয়ে আসে উষ্ণ বাতাস
ট্রায়াঙ্গল ফ্রেমে আঁকি দীঘল অবয়ব।




কৃষ্ণচূড়ার উপাখ্যান

মাঝরাতের কবিতায় যখন ব্যস্ত শহরের গল্প উঁকি দেয়
মুচকি হেসে পালিয়ে যাও অজানা উপন্যাসের গলিতে,
তারপর তেইশ খণ্ডের পাণ্ডুলিপি হয়ে যায় শরীর
দিনলিপির ভণ্ড তপস্যায় হারিয়ে যায় এলিট সংস্কার।
কিশোরী নদীর ভাজে জমে আছে শেওলার দ্বীপ
নারীর নদীতে ডুবে যাই নিবিড় উৎসবে।
তৃপ্তির আলো মেখে থেমে গেছে অলস চোখ
চায়ের ক্যাবিনে জটলা বেঁধেছে টুংটাং ম্যালোডি।




ডায়মন্ড

অনামিকায় দেব বলে
রিক্টার সভেল্ড পর্বত ফুঁড়ে
এনেছি কাঁচা হীরা!
চিবুক ছোঁব বলে
হারিয়েছি পথের দিশারি
বন্ধু দিয়োগো অ্যালভারেজ,
আমিতো পর্তুগিজ নই
তোমাকে ভুলে ভাগ্যলক্ষ্মীর অর্চনা
বাঙালি সত্তাকে প্রশ্নবিদ্ধ করে।
দাঁড়িয়ে আছি জাহাজের মাস্তুলে
তোমার চোখের মত প্রকাণ্ড সাগর
বিস্তৃত মেঘমুক্ত নীলাকাশ,
অনন্ত জলরাশি!

তুমি বঙ্গদেবী
অধর চুম্বনে চুম্বনে
ক্লান্তির মৃত্যু ঘটে,
অন্তহীন সাগরের ম্যাপ হারিয়েছি
কম্পাসবিহীন দিকভ্রান্ত জাহাজ
দিশেহারা ক্যাপ্টেন,
প্রতীক্ষার প্রচ্ছদ আঁকছে শিল্পীর চোখ
তোমার উপকূলেই নোঙর ফেলবো
আঁধারেই খুঁজে নেবে
বুকের উত্তাল সৈকত।