শার্শায় শিক্ষার্থীদের উপবৃত্তির টাকায়ও ঘুষ!

আপডেট: 02:55:46 25/10/2016



img

স্টাফ রিপোর্টার : যশোরের শার্শা উপজেলায় মাধ্যমিক বিদ্যালয় ও মাদরাসায় উপ-বৃত্তির (আপিল) টাকা প্রদানে অনিয়ম-দুর্নীতির অভিযোগ উঠেছে।
অভিযোগে বলা হয়েছে, ষষ্ঠ শ্রেণির শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে ২০ টাকা ও নবম শ্রেণির শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে ৪০ টাকা করে ঘুষ নিয়েছেন মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার ও ব্যাংক অফিসার। টাকা কম পাওয়ায় শিক্ষার্থীরা উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিস ও অগ্রণী ব্যাংক বেনাপোল শাখার ওপর অসন্তুষ্ট।
সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়, শার্শা উপজেলার ৬৫টি মাধ্যমিক শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে উপবৃত্তির (আপিল) টাকা প্রদান করা হয়েছে। এর মধ্যে ৩৪টি মাধ্যমিক বিদ্যালয় ও ৩১টি মাদরাসা রয়েছে। এ সব প্রতিষ্ঠানে ষষ্ঠ শ্রেণির ৫৫০ জন ও নবম শ্রেণির ৪৫ জন শিক্ষার্থীকে উপবৃত্তির টাকা প্রদান করা হয়েছে। ষষ্ঠ শ্রেণির শিক্ষার্থীদের ৬০০ টাকার স্থলে দেওয়া হয়েছে ৫৮০ টাকা ও নবম শ্রেণির শিক্ষার্থীদের এক হাজার ৮০ টাকার স্থলে দেওয়া হয়েছে এক হাজার ৪০ টাকা। উপবৃত্তির টাকা প্রদানের সময় উপস্থিত ছিলেন শার্শা উপজেলা সহকারী মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার আশিকুজ্জামান, অফিস পিয়ন বাচ্চু মিয়া ও অগ্রণী ব্যাংক বেনাপোল শাখার সিনিয়র অফিসার মহিউদ্দিন।
শার্শার টিআরএস মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের ষষ্ঠ শ্রেণির ছাত্রী কাজলরেখা বলে, ‘বড়লোকের ছেলেমেয়েদের এ টাকা না হলেও চলে। কিন্তু আমাদের মতো যারা গরিব ছাত্রী, তারা উপ-বৃত্তির টাকা কম পেলে খুব কষ্ট লাগে। কারণ এ টাকায় আমরা বই-খাতা-কলম কিনি। আমাদের টাকা কম দেওয়া উচিত হয়নি।’
জানতে চাইলে মাদরাসা শিক্ষক সমিতির সহ-সভাপতি ও কায়বা বাইকোলা দাখিল মাদরাসার সহকারী শিক্ষক আবুল হাসান বলেন, ‘এবছর সকল উপ-বৃত্তিপ্রাপ্ত (আপিল) শিক্ষার্থীর কাছ থেকে সহকারী মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার আশিকুর রহমান ও অগ্রণী ব্যাংকের সিনিয়র অফিসার মহিউদ্দিন ঘুষ নিয়েছেন। ষষ্ঠ শ্রেণির শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে ২০ টাকা ও নবম শ্রেণির শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে ৪০ টাকা হারে ঘুষ নেওয়া হয়েছে।’
শার্শা উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষক সমিতির সভাপতি উপবৃত্তির টাকা দেওয়া হয়েছে কি-না জানেন না বলে জানিয়েছেন।
শার্শা উপজেলা সহকারী মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার আশিকুজ্জামান দাবি করেন, ‘উপবৃত্তির টাকা দেওয়া হয়েছে। টাকা কম দেওয়ার অভিযোগ পুরোপুরি ঠিক না।’
অগ্রণী ব্যাংক বেনাপোল শাখার সিনিয়র অফিসার মহিউদ্দিন বলেন, ‘টাকা তো আসলে ওইভাবে নেওয়া হয়নি। গাড়ি ভাড়া ও ব্যাংকে হিসাব খোলার জন্য কিছু টাকা রাখা হয়েছে।’

আরও পড়ুন