শিক্ষকের পিটুনিতে মাদরাসাছাত্র হাসপাতালে

আপডেট: 02:59:58 14/04/2018



img

সাতক্ষীরা প্রতিনিধি : সঠিকভাবে পড়া বলতে না পারায় সাতক্ষীরার পাটকেলঘাটা সিদ্দিকিয়া কওমি মাদরাসার ছাত্র আদনান ফরাজীকে (১২) দুই দফা বেধড়ক পিটিয়েছেন শিক্ষক। শুক্রবার দুপুরের পর ও সন্ধ্যার পর তাকে পিটিয়ে আহত করা হয়। শরীরে বেশ কয়েকটি আঘাতের চিহ্ন নিয়ে শনিবার সকালে শিশুটি সাতক্ষীরা সদর হাসপাতালে ভর্তি হয়েছে।
আহত শিক্ষার্থী তালা উপজেলার বাউখোলা গ্রামের গোলাাম মোস্তফার ছেলে। তাকে বেত দিয়ে পেটানোর ঘটনায় অভিযুক্ত করা হচ্ছে মাদরাসার শিক্ষক হাফেজ মাওলানা রায়হান ইকবাল রাজুকে। শরীরে আঘাতের চিহ্ন নিয়ে মাদরাসা থেকে পালিয়ে খুলনা রোড মোড়ে এলে উপস্থিত লোকেরা শিশুকে হাসপাতালে নিয়ে যান।
আহত শিক্ষার্থী আদনান ফরাজীর মামা মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, ‘আমার ভাগ্নে প্রায় ১৫ পারা হাফেজ। শুক্রবার জুমার নামাজের পর তাকে পড়া বলতে বলা হলে সে (আদনান) সঠিকভাবে বলতে পারেনি। এই অপরাধে তাকে প্রথমে মারপিট করা হয়। সন্ধ্যার পর পড়া বলতে না পারলে আবার তাকে পিটিয়ে গুরুতর আহত করেন মাওলানা রায়হান ইকবাল রাজু।’
‘মার খেয়ে আদনান পালিয়ে খুলনা রোড মোড়ে এসে অসুস্থ হয়ে পড়ে। তখন স্থানীয়রা তাকে সদর হাসপাতালে ভর্তি করে আমাকে খবর দেয়।’
এ বিষয়ে তিনি সংশ্লিষ্ট থানায় অভিযোগ করবেন বলেও জানান।
পাটকেলঘাটা সিদ্দিকিয়া কওমি মাদরাসার প্রিন্সিপাল হাফেজ মাওলানা মনিরুল হক ঘটনার সত্যতা স্বীকার করেছেন।
তিনি বলেন, ‘আমি বাইরে ছিলাম। তবে খোঁজ নিয়ে দেখেছি, পরীক্ষার পড়া বলতে না পারায় তাকে মারা হয়েছে। যেহেতু সে বর্তমানে হাসপাতালে ভর্তি সেহেতু তার আঘাতটা কম নয়। এ বিষয়ে ওই শিক্ষকের বিরদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করবো।’

আরও পড়ুন