শুরুর দিনেই প্রশ্নফাঁস, এবারো ফেসবুকে

আপডেট: 08:42:41 01/02/2018



img

সাজিয়া আফরিন : কঠোর নিরাপত্তা, শিক্ষামন্ত্রীর শক্ত পদক্ষেপ আর কড়া হুঁশিয়ারিতেও কোনো কাজ হয়নি; এবারো এসএসসি পরীক্ষা শুরুর দিনই বাংলা প্রথমপত্র প্রশ্ন ফাঁস হলো।
আগের মতো এবারো প্রশ্ন এসেছে ফেসবুকে এবং তা পরীক্ষা শুরুর আধা ঘণ্টা আগে।
তিন ঘণ্টার পরীক্ষা দুপুর একটায় শেষ হওয়ার পর পরীক্ষার প্রশ্নপত্রের সঙ্গে ফেসবুকে আসা প্রশ্নের হুবহু মিল পাওয়া যায়।
বিষয়টি জানানো হলেও শিক্ষা কর্মকর্তারা প্রশ্ন ফাঁস হওয়ার কথা মানতে নারাজ।
বৃহস্পতিবার সারাদেশে একযোগে এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষায় বসে ২০ লাখের বেশি শিক্ষার্থী। এসএসসিতে এবার অভিন্ন প্রশ্নপত্রে হচ্ছে সব বোর্ডের পরীক্ষা।
গত বছর এসএসসির পর জেএসসি এমনকি প্রাথমিক সমাপনীর পরীক্ষার প্রশ্নপত্র ফাঁস হওয়ার পর শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ গত কিছু দিন ধরে কড়া হুঁশিয়ারি দিচ্ছিলেন।
কিন্তু বৃহস্পতিবার পরীক্ষা শুরুর আধা ঘণ্টা থেকে ২৫ মিনিট আগে একাধিক ফেসবুক ও মেসেঞ্জার গ্রুপে উত্তরসহ বহুনির্বাচনী প্রশ্ন পাওয়া যায়।
পরীক্ষা শুরুর ঠিক ২৪ মিনিট আগে ‘“@@@@ bangla 2nd Paper @@@@@’ নামে একটি মেসেঞ্জার গ্রুপে ইমেজ আকারে আসে বাংলা প্রথম পত্র ‘খ’ সেট বহুনির্বাচনী প্রশ্ন। তা বাংলা প্রথমপত্রের পরীক্ষায় আসা প্রশ্নের সঙ্গে মিলে যায়।
প্রশ্ন ফাঁস ঠেকাতে এবার পরীক্ষা শুরুর আধা ঘণ্টা আগে কেন্দ্রে প্রবেশের বাধ্যবাধকতা আরোপ করা হলেও তাতে শৈথিল্যই দেখা গেছে।
সকালে পরীক্ষা শুরুর আগে সরকারি ল্যাবরেটরি বিদ্যালয় কেন্দ্র পরিদর্শনে গিয়ে শিক্ষামন্ত্রী নাহিদ বলেছিলেন, প্রশ্নপত্র ফাঁস ঠেকাতে ‘সব ধরনের পদক্ষেপ’ নেওয়া হয়েছে।
প্রশ্ন ফাঁস হয়েছে প্রমাণ পেলে সঙ্গে সঙ্গে পরীক্ষা বাতিল করার ঘোষণাও দিয়েছিলেন তিনি।
নাহিদ বলেছিলেন, “আমরা খুবই ডেসপারেট, খুবই অ্যাগ্রেসিভ এ (প্রশ্ন ফাঁস) বিষয়ে। যদি কোথাও কেউ কোনোভাবে প্রশ্ন ফাঁসের চেষ্টা করে, তিনি কোনোভাবেই রেহাই পাবেন না। কী হবে, আমিও সেটা ধারণা করতে পারি না। চরম একটা ব্যবস্থা নেওয়া হবে।”
দুপুরে শিক্ষামন্ত্রীর মোবাইলে ফোন করা হলে তা বন্ধ পাওয়া যায়।
ঢাকা বোর্ডের পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক তপনকুমারকে জানালে তিনি বলেন, “নিউজ করতে চাইলে করেন, যা ব্যবস্থা নেওয়ার আগেই নিয়েছি। আমরা জানি প্রশ্ন ফাঁস হয়নি।”
প্রশ্ন ফাঁস নিয়ে আর কোনো মন্তব্যই করতে রাজি হননি তিনি।

যেভাবে মিললো প্রশ্ল
‘PSC • JSC • SSC • HSC Exam Helping Center’ নামে একটি ফেসবুক গ্রুপে ১ ফেব্রুয়ারি রাত ১২টা ৪৯ মিনিটে Sadia Islam Setu নামের ফেসবুক আইডি থেকে প্রশ্ন ফাঁসের বিজ্ঞাপন দেওয়া হয়। পোস্টে লেখা হয় “SSC Q 2018
BANGLA 1ST PAPER FREE TE DIBO
JADER LAGBE INBOX ME।”
ওই ফেইসবুক আইডিতে রাত ১২টা ৫০ মিনিটে মেসেজের মাধ্যমে যোগাযোগ করা হলে “@@@@ bangla 2nd Paper @@@@@” নামক একটি মেসেঞ্জার গ্রুপে যুক্ত হতে বলা হয়।
গ্রুপে যুক্ত হওয়ার পর, সকাল নয়টা ৩৬ মিনিটে MD Tamim Khan নামের এক আইডি থেকে ‘খ’ সেটের প্রশ্নের ছবি দেওয়া হয়। একইসঙ্গে হাতে লেখা দুটি উত্তরপত্রের ছবিও দেওয়া হয়।
পরীক্ষা শেষে Sadia Islam Setu নামের সেই ফেসবুক আইডি থেকে পরবর্তী প্রশ্ন ফাঁসের কথা জানিয়ে একটি মেসেজ পাঠানো হয়।
“শুনো সবাই আজকে আমরা জাস্ট দেখলাম যে কাজ হবে কি না, এখন শিওর যে কাজ হবে। আর আজকে রাতে তোমাদের ৩ সেট রিটেন দিয়া দিমু ওইগুলা পড়লেই কমন আর MCQ সকালে ৮.৩০ থেকে ৯.০০ টার মধ্যে আন্সার সহ দিমু।।।। আশা করি সবাই বুঝতে পারছো।।।।।।।।
প্রশ্ন মূল্য 300/- মাএ
প্রশ্ন নিতে চায়লে ADMIT CARD ER ছবি দেন
অথবা 200/- ADVANCE”
মেসেঞ্জার গ্রুপ ছাড়াও বিভিন্ন ফেসবুক গ্রুপ ঘেঁটেও প্রশ্নফাঁসের প্রমাণ মিলেছে। ‘PSC JSC SSC HSC Real Question Out All Board 100% Common’, ‘SSC Question Out’, ‘SSC Question Out 100% Common All BD & Rezult Change 2018+19+20All BoarD’ নামে ফেসবুক গ্রুপগুলোতেও প্রশ্ন ইমেজ আকারে পরীক্ষার আগেই দেওয়া হয়েছে।
সূত্র : বিডিনিউজ

আরও পড়ুন