শ্রীলঙ্কায় গির্জা-হোটেলে সিরিজ বোমা, নিহত ১৩৮

আপডেট: 01:52:52 21/04/2019



img

সুবর্ণভূমি ডেস্ক : ইস্টার সানডের দিন শ্রীলঙ্কায় অন্তত ছয়টি জায়গায় গির্জা ও পাঁচ তারকা হোটেলে একযোগে বোমা হামলা হয়েছে।
রোববার সকালের এ ঘটনায় অন্তত ১৩৮ জন নিহত এবং চার শতাধিক লোক আহত হয়েছেন বলে হাসপাতাল ও পুলিশের বরাতে জানিয়েছে বার্তা সংস্থা।
তিনটি হোটেলে ও তিনটি গির্জায় বিস্ফোরণগুলো ঘটেছে বলে পুলিশের এক মুখপাত্র জানিয়েছেন। 
সকাল সাড়ে আটটা থেকে পৌনে নয়টার মধ্যে কোচচিকাদে এলাকার সেইন্ট অ্যান্থনির চার্চ, কাটুয়াপিতিয়ার সেইন্ট সেবাস্টিয়ানের চার্চ এবং বাত্তিকালোয়ার একটি গির্জায় ইস্টার সানডের প্রার্থনা চলাকালে বোমা হামলা চালানো হয়।
কাছাকাছি সময়ে রাজধানী কলম্বোর শাংরি লা, সিনামন গ্র্যান্ড ও কিংসবুরি হোটেলেও বিস্ফোরণ ঘটে। 
হতাহতদের মধ্যে বিদেশি পর্যটক থাকতে পারেন বলে শ্রীলঙ্কার গণমাধ্যমের খবরে বলা হয়েছে। তাদের খবর অনুযায়ী, নিহতের সংখ্যা আড়াইশ ছাড়াতে পারে।
কেবল সেইন্ট সেবাস্টিয়ানের গির্জাতেই অন্তত ৫০ জনের মৃত্যু হয়েছে। বাত্তিকালোয়ায় অন্তত ২৫ জনের লাশ উদ্ধারের খবর দিয়েছে স্থানীয় সংবাদমাধ্যমগুলো।
শ্রীলঙ্কার প্রধানমন্ত্রীর সরকারি বাসভবনের কাছে সিনামন গ্র্যান্ড হোটেলের রেস্তোরাঁয় বিস্ফোরণে অন্তত একজন নিহত হয়েছেন বলে হোটেলটির এক কর্মকর্তা জানিয়েছেন।
এক প্রত্যক্ষদর্শী বিস্ফোরণের শব্দ শোনার পর দৌঁড়ে সেইন্ট অ্যান্থনির চার্চে ‍গিয়ে মেঝেতে লাশ পড়ে থাকতে দেখার কথা বলেছেন।
কামাল নামের ওই ব্যক্তি বলেন, পৌনে নয়টার দিকে বিকট ওই বিস্ফোরণের শব্দ পান তিনি।  এরপর লোকজনকে দৌঁড়ে বের হয়ে আসতে দেখেন। তারা চিৎকার করে অনেক লোকের মৃত্যুর কথা বলছিল।
“আমরা দৌড়ে গির্জার ভিতরে গিয়ে লাশ পড়ে থাকতে দেখলাম। আমরা প্লাস্টিক দিয়ে সেগুলো ঢেকে দিলাম। এরপর পুলিশ এসে সবাইকে সেখান থেকে বের করে দিলো।”
ইস্টার সানডের প্রার্থনার জন্য ওই গির্জায় পাঁচ শতাধিক লোক জড়ো হয়েছিলেন বলে জানিয়েছেন তিনি।
শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত কেউ এ হামলার দায় স্বীকার করেনি। শ্রীলঙ্কার প্রধানমন্ত্রী রনিল বিক্রম সিংহে তার নিরাপত্তা উপদেষ্টাদের নিয়ে জরুরি বৈঠকে বসেছেন।
নিউজ ফার্স্ট লংকা জানিয়েছে, সোম ও মঙ্গলবার শ্রীলঙ্কার সব সরকারি স্কুল বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে।
সূত্র : রয়টার্স, বিবিসি, বিডিনিউজ

আরও পড়ুন