শ্রেণিকক্ষে নয়, ক্যারম বোর্ডে শিক্ষার্থীরা

আপডেট: 08:49:39 07/08/2018



img

কালীগঞ্জ (ঝিনাইদহ) প্রতিনিধি : শৈলকুপা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা হঠাৎ তিনটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে গিয়ে ভয়াবহ দৃশ্য দেখলেন। ক্লাসে শিক্ষক-শিক্ষার্থী নেই। দীর্ঘদিন ব্যবহার না হওয়ায় ক্লাসরুম গুমোট। শিক্ষার্থীরা বাজারে গিয়ে ক্যারম বোর্ড খেলছে।
এই দৃশ্য ঝিনাইদহের শৈলকুপা উপজেলার ঐতিহ্যবাহী বেণীপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয় ও মরিয়ম নেছা মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয় এবং কাচেরকোল ফাজিল মাদরাসার। মঙ্গলবার প্রতিষ্ঠানগুলোতে হাজির হয়েছিলেন ইউএনও।
নির্বাহী কর্মকর্তা মো. উসমান গনি দুটি স্কুলে গিয়ে দেখলেন দশম শ্রেণির ক্লাসে কোনো শিক্ষক-শিক্ষার্থী নেই। শিক্ষা প্রতিষ্ঠান দুটোর লেখাপড়ার মান ও পরিবেশ আশানুরূপ না হওয়ায় তিনি ক্ষোভ ও বিস্ময় প্রকাশ করেন। এসময় তিনি বেণীপুর স্কুলের পাশের বাজার থেকে কয়েকজন শিক্ষার্থীকে আটক করে অভিভাবকদের হাতে তুলে দেন। সেখান থেকে চারটি ক্যারম বোর্ড জব্দ করা হয়।
ইউএনও মো. উসমান গনি জানান, বেণীপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে সব শ্রেণিতে শিক্ষার্থী উপস্থিতির হার খুবই কম ছিল। এরমধ্যে দশম শ্রেণির ১৬২ জন শিক্ষার্থীর মধ্যে কেউই উপস্থিত ছিল না। অপরদিকে মরিয়ম নেছা মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয়েও দশম শ্রেণির কোনো শিক্ষার্থীকে ক্লাসরুমে পাওয়া যায়নি। দীর্ঘদিন ক্লাস না হওয়ায় শ্রেণিকক্ষ ছিল অপরিচ্ছন্ন ও গুমোট অন্ধকার দেখা যায়।
এছাড়া কাচেরকোল ফাজিল মাদরাসায় শিক্ষার্থী উপস্থিতি কম ও শিক্ষার মান নাজুক হওয়ায় অসন্তোষ প্রকাশ করেন ইউএনও।
স্কুল চলাকালে কাচেরকোল ও বেণীপুর বাজারের বেশ কয়েকটি চায়ের দোকানে ছাত্রদের ক্যারম বোর্ড খেলতে দেখে হতাশা প্রকাশ করেন এই উপজেলা পর্যায়ের প্রধান সরকারি কর্মকর্তা। তখনই সেখান থেকে চারটি ক্যারম বোর্ড জব্দ করে ওই বাজারের সব দোকানে এই খেলা বন্ধের নির্দেশ দেন।
সংশ্লিষ্ট শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান দুটির বিরুদ্ধে মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তাকে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের নির্দেশ প্রদান করেছেন বলে জানান ইউএনও।

আরও পড়ুন