সচল হলো বেনাপোল বন্দর

আপডেট: 07:15:19 29/01/2018



img

স্টাফ রিপোর্টার : টানা পাঁচদিন বন্ধ থাকার পর সোমবার বিকেলে সচল হয়েছে বেনাপোল-পেট্রাপোল স্থলবন্দর। শুরু হয়েছে দুই দেশের মধ্যে আমদানি-রফতানি চালু হয়েছে।
কার্যক্রম শুরু হওয়ায় কর্মচাঞ্চল্য ফিরে এসেছে বেনাপোল-পেট্রাপোল বন্দর এলাকায়। প্রধান সড়কের ওপর যে সব ট্রাক পণ্য নিয়ে এই ক’দিন দাঁড়িয়ে ছিল, সেসব কাঁচামাল পচনশীল পণ্যবাহী ট্রাক অগ্রাধিকার ভিত্তিতে বাংলাদেশে পাঠাচ্ছে ভারতীয় কাস্টমস ও সিঅ্যান্ডএফ এজেন্টরা।
এর আগে গত বৃহস্পতিবার (২৫ জানুয়ারি) সকাল থেকে সোমবার বিকেল সাড়ে পাঁচটা পর্যন্ত একটানা পাঁচদিন বেনাপোল-পেট্রাপোল স্থলবন্দর দিয়ে দুই দেশের মধ্যে আমদানি-রফতানি বন্ধ ছিল। ভারতের পেট্রাপোল বন্দরে কারপাসসহ কাস্টমস কর্মকর্তাদের ‘হয়রানি’র প্রতিবাদে আমদানি-রফতানি বন্ধ করে দেয় পেট্রাপোল সিঅ্যান্ডএফ এজেন্ট স্টাফ ওয়েলফেয়ার অ্যাসোসিয়েশন। ফলে দুই দেশের বন্দর এলাকায় আটকা পড়ে শত শত পণ্যবাহী ট্রাক; যার অধিকাংশেই বাংলাদেশের রফতানিমুখি গার্মেন্ট শিল্পের কাঁচামালসহ পচনশীল পণ্য ছিল।
ওপারের সিএন্ডএফ এজেন্টস সূত্রে জানা যায়, সোমবার দুপুর থেকে পেট্রাপোলে বন্দরে দফায় দফায় বৈঠক করেন কাস্টমস কর্তৃপক্ষ, সিঅ্যান্ডএফ এজেন্ট, বন্দর ব্যবহারকারী বিভিন্ন শ্রমিক সংগঠন ও প্রশাসনের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা। আগের নিয়মে রফতানি কার্যক্রম চালানোসহ দেশের রাজস্ব আয়ের দিকে লক্ষ্য রেখে সবাইকে নমনীয় হয়ে কাজ করার আহ্বান জানায় কাস্টমস কর্তৃপক্ষ। এতে সম্মতি জানায় সবপক্ষ। এর পর বিকেল সাড়ে পাঁচটা থেকে আমদানি-রফতানি চালু হয়।
ভারতের পেট্রাপোল চেকপোস্ট সিএন্ডএফ এজেন্ট স্টাফ ওয়েলফেয়ার অ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক কার্তিক চক্রবর্তী বলেন, ‘বৈঠকে আমাদের ন্যায়সঙ্গত দাবি মেনে নেওয়া হয়েছে। তাই বিকেল সাড়ে পাঁচটা থেকে পেট্রপোল-বেনাপোল বন্দর দিয়ে আমদানি-রফতানি কার্যক্রম চালু করেছি। সড়কের ওপর দাঁড়িয়ে থাকা ট্রাক ও পচনশীল পণ্যবাহী গাড়িগুলো অগ্রাধিকার ভিত্তিতে ছেড়ে দেওয়া হচ্ছে। মঙ্গলবার সকাল থেকে পুরোদমে আমদানি-রফতানি কার্যক্রম চলবে।’
বেনাপোল চেকপোস্ট কাস্টমস কার্গো শাখার রাজস্ব কর্মকর্তা হারুন অর রশিদ বলেন, ‘সোমবার বিকেলে পেট্রাপোল-বেনাপোল দিয়ে আবার আমদানি-রফতানি চালু হয়েছে। আমরা দ্রুততার সাথে কাজ করছি।’
বেনাপোল স্থলবন্দর কর্তৃপক্ষের ভারপ্রাপ্ত পরিচালক (ট্রাফিক) আমিনুল ইসলাম জানান, সোমবার বিকেলে আমদানি-রফতানি সচল হয়েছে। বন্দরে যে সব পচনশীল পণ্য প্রবেশ করেছে, তা দ্রুত ছাড় দিতে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। পণ্যজট কমাতে প্রয়োজনে সারারাত কাজ হবে বন্দরের অভ্যন্তরে।

আরও পড়ুন