সরকারি মজুরিতে শ্রমিক কাজ করেন মেম্বারের বাড়িতে

আপডেট: 07:59:00 08/05/2018



img

আনোয়ার হোসেন, মণিরামপুর (যশোর) : মণিরামপুরের ঝাঁপা ইউনিয়নের পাঁচ নম্বর (কোমলপুর) ওয়ার্ডের কর্মসূচির লোক মেম্বারের বাড়িতে কাজ করছেন। ওয়ার্ডের মেম্বার আব্দুল গফুর কয়েকদিন ধরে কর্মসূচির সাত জন শ্রমিক দিয়ে বাড়ির ধান মাড়াইয়ের কাজ করাচ্ছেন।
মঙ্গলবার সকাল সাড়ে দশটার দিকে মেম্বরের নিজ বাড়িতে গিয়ে এই দৃশ্য দেখা যায় । মেম্বার নিজেও কর্মসূচির শ্রমিক দিয়ে বাড়ির কাজ করানোর কথা স্বীকার করেছেন।
উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন অফিসের সূত্র জানায়, ৩০ জন শ্রমিক নিয়ে গত মাসের ১৫ তারিখে শুরু হয় কোমলপুর ওয়ার্ডের অতিদরিদ্রদের জন্য কর্মসংস্থান কর্মসূচির কাজ। ধান কাটা শুরু হওয়ায় চার দিন কাজ করার পর শ্রমিক সংকটে ১৯ থেকে ২৮ তারিখ পর্যন্ত কাজ বন্ধ থাকে। এরপর আবার কাজ শুরু হয়। গ্রামবাসী বলছেন, ওই ওয়ার্ডের মেম্বার আব্দুল গফুর দ্বিতীয় দফা কাজ শুরু হওয়া থেকে কর্মসূচির সাতজন শ্রমিক দিয়ে নিজের জমির ধান কাটা, মাড়াইসহ আনুষঙ্গিক কাজ করাচ্ছেন।
অভিযোগের ভিত্তিতে মঙ্গলবার সকাল সাড়ে দশটার দিকে মেম্বরের বাড়িতে যান এই প্রতিবেদক। সেখানে মেম্বারের আঙিনায় ধান ওড়ানোর কাজ করতে দেখা যায় শ্রমিকদের। গণমাধ্যমকর্মীর উপস্থিতি বুঝতে পেরে একপর্যায়ে কাজ ফেলে সরে পড়েন শ্রমিকরা।
এদিকে, কাজের শুরু থেকে ওই ওয়ার্ডে তিনজন শ্রমিক অনুপস্থিত থাকেন বলে স্থানীয়রা জানিয়েছেন।
জানতে চাইলে মেম্বর আব্দুল গফুর বলেন, ‘বাড়িতে কাজের চাপ দেখে আজই কর্মসূচির তিনজন লোক ডেকে আনি। কাজ শুরু করাতে পারিনি, তার মধ্যে সাংবাদিকরা এসে পড়েছে। সাংবাদিক দেখে শ্রমিকদের কাজের জায়গায় পাঠিয়ে দিয়েছি।’
তবে শ্রমিকরা জানান,  তাদের মধ্যে চারজন মেম্বরের বাড়িতে কাজ করছিলেন।
জানতে চাইলে উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন অফিসের উপ-সহকারী প্রকৌশলী গোলাম সরোয়ার বলেন, ‘বিষয়টি জানতে পেরে মেম্বারকে কয়েকবার ফোন করেছি। কিন্তু সে রিসিভ করেনি।’
উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা ইয়ারুল হক বলেন, ‘বিষয়টি খতিয়ে দেখা হচ্ছে। যে কয়জন শ্রমিককে মেম্বার বাড়িতে নিয়ে কাজ করাচ্ছিল, তাদের ব্যাপারে ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে।’
মণিরামপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ওবায়দুর রহমান বলেন, ‘সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাকে বিষয়টি খতিয়ে দেখতে বলা হয়েছে।’

আরও পড়ুন