সর্পদংশনে মৃত সাপুড়েকে বাঁচিয়ে তোলার চেষ্টা!

আপডেট: 01:24:59 28/04/2018



img

মহেশপুর (ঝিনাইদহ) প্রতিনিধি : শুক্রবার আব্দুল্লাহ নামে এক সাপুড়ে বিষধর সাপের ছোবলে মারা গেছেন। কিন্তু তার গুরু-শিষ্যরা একথা মানতে নারাজ। তারা মৃত আব্দুল্লাহকে বাঁচিয়ে তোলার জন্য ঝাড়-ফুঁক চালিয়ে যাচ্ছেন।
এই ঘটনা মহেশপুরের। বিভিন্ন এলাকা থেকে নতুন নতুন সাপ ধরে পাড়া-মহল্লায় খেলা দেখিয়ে জীবিকা নির্বাহ করতেন আব্দুল্লাহ (৩২); যাকে বিষধর সাপের ছোবলে জীবন দিতে হয়েছে।
শুক্রবার দুপুর ১২টার দিকে নিজ এলাকা বগার মোড়ে সাপের খেলা দেখিয়ে এলাকাবাসীর মনোরঞ্জন করছিলেন তিনি। এ সময় হঠাৎ যুড়িহুদা গ্রাম থেকে ফোন আসে সাপ ধরার জন্য। আব্দুল্লাহ ফোন পেয়ে চলে যান ওই গ্রামে। সেখানে সাপ ধরার সময় ঘটে অঘটন। বিষধর সাপ ছোবল দেয় তাকে। নিজেই ঝাড়-ফুঁকের মাধ্যমে শরীর থেকে বিষ নামানোর চেষ্টা করে করেন। কিন্তু সফল হননি। পরে তার গুরু ও শিষ্যদের সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করেও ব্যর্থ হন আব্দুল্লাহ। এক পর্যায়ে যুড়িহুদা গ্রামের লোকজন মহেশপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যান আব্দুল্লাহকে। কিন্তু সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক জানান, হাসপাতালে আনার আগেই আব্দুল্লাহ মারা গেছেন।
তা সত্তে¡ও হাল ছাড়েননি আব্দুল্লাহর গুরু-শিষ্যরা। গ্রামে মরদেহ নিয়ে তারা ঝাড়-ফুঁকের মাধ্যমে আব্দুল্লাহকে বাঁচানোর চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন বলে জানান বগা গ্রামের আমান উদ্দিন মিয়া।
আব্দুল্লাহ মহেশপুর শহরের বগা এলাকার বদর উদ্দিনের ছেলে।
উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের চিকিৎসক আনছার আলী জানান, বিকেল চারটার দিকে সাপে কাটা একব্যক্তিকে আনা হয়। কিন্তু হাসপাতালে আনার আগেই তার মৃত্যু হয়।
রাতে এ রিপোর্ট লেখার সময় আব্দুল্লাহর মরদেহ পুড়াপাড়ায় ছিল। সেখানে গুরু-শিষ্যরা ঝাড়-ফুঁকের মাধ্যমে তাকে বাঁচানোর চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছিলেন।

আরও পড়ুন